প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মনোনয়ন নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের স্নায়ুযুদ্ধ, বঞ্চিত হওয়ার ঝুঁকিতে হেভিওয়েট প্রার্থী

হ্যাপি আক্তার : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আসন ভাগাভাগি নিয়ে সরকারবিরোধী শিবিরে দেখা দিয়েছে স্নায়ুযুদ্ধ। বেশ কয়েকটি আসনে ২০ দলীয় জোট, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপির একাধিক হেভিওয়েট মনোনয়নপ্রত্যাশী থাকায়, বঞ্চিত হওয়ার ঝুঁকিতে আছেন কয়েকজন। যদিও বিএনপি বলছে, নির্বাচনে ভালো ফলের স্বার্থে জোটের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে প্রস্তুত সবাই। সূত্র : ডিবিসি নিউজ।

একদিকে বিশ দলীয় জোট। আরেকদিকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। মাঝখানে দুই জোটেরই প্রধান দল বিএনপি আসন ভাগাভাগি নিয়ে মিত্রদের চাপে। তবে বিতর্কিতদের এড়াতে বিএনপির প্রার্থী বাছাইয়ের ওপর সতর্ক দৃষ্টি রাখছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ঢাকা-২ ও ৩ আসন থেকে নির্বাচন করতে চান জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান ড. কামাল হোসেনের দল গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু। কিন্তু ঢাকা-২ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী চারবারের এমপি আমানউল্লাহ আমান। ঢাকা-৩ আসন থেকে ধানের শীষের টিকিট চাইছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। দুটি আসন নিয়ে হেভিওয়েট ৩ মনোনয়নপ্রত্যাশীর লড়াইয়ে ছিটকে পড়ার ঝুঁকিতে আছে ১ জন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান বলেন, ‘আমি মনে করি দল চিন্তা করেই প্রার্থী বাছাই করবে। কাকে, কোথায় প্রার্থী হিসাবে মনোনয়ন দিলে জয়ী হয়ে আসতে পারবে সেদিক বিবেচনা করেই প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া উচিত।’ চট্টগ্রাম-১৪ আসন থেকে নির্বাচন করতে চান চারবারের এমপি, ২০ জোটের শরিক দল এলডিপির সভাপতি অলি আহমেদ। কিন্তু এই আসন থেকে লড়তে চান গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী এবং জামায়াতে ইসলামীর শাসমুল ইসলাম। ত্রিমুখী লড়াই থাকলেও অলি আহমেদকেই এই আসন ছেড়ে দেয়ার আভাস রয়েছে।
এলডিপি সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ বলেন, ‘এই আসনে শুধু হেভিওয়েট প্রার্থী হলেই হবে না, গ্রহণযোগ্যতাও দেখতে হবে। জনগণের সাথে প্রার্থীর সম্পর্ক দেখতে হবে। যোগ্যতা থাকতে হবে। আমাদের মধ্যে অনেকেরই সর্বোচ্চ ডিগ্রী আছে কিন্তু জনগণের সাথে সম্পৃক্ততা নেই। এমন ব্যক্তিকে তো কেউই ভোট দেবে না।’

এ বিষয়ে গণফোরাম নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘আমার বিশ্বাস মনোনয়ন নিয়ে আমাদের মধ্যে খুব বেশি দরকষাকষি হবে না। আমি ঢাকা-৬ আসন থেকে প্রার্থী হবার আকাক্ষা প্রকাশ করেছি।’আসন ভাগাভাগি নিয়ে জটিলতা থাকলেও সব পক্ষেরই ছাড় দেয়ার মানসিকতায় সমস্যা সমাধানে আশাবাদী বিএনপি। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘বর্তমান অবস্থা থেকে যেখানে যেটা প্রয়োজন অর্থাৎ এই অবস্থা থেকে মুক্ত হবার জন্য যতখানি ত্যাগ প্রয়োজন সেটা করতে সব পক্ষই প্রস্তুত আছে।