প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অস্ত্র উদ্ধারে ব্যাপক প্রস্তুতি

বাংলাদেশ প্রতিদিন : জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। আগামীকাল থেকে সারা দেশে বিশেষ অভিযান শুরু হবে। ইতিমধ্যে দেশের প্রতিটি জেলার পুলিশ সুপার এবং র‌্যাবের কমান্ডিং অফিসারদের এ বিষয়ে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এসব তথ্য দিয়ে পুলিশ সদর দফতরের একটি সূত্র বলেছে, নির্বাচন কমিশনের চাহিদা অনুযায়ী অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের জন্য পুলিশ সদর দফতরসহ সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সারা দেশে পুলিশের বিশেষ অভিযান চলবে। এ ক্ষেত্রে সন্ত্রাসী, মাদক কারবারি, অস্ত্র কারবারি কাউকে রেহাই দেওয়া হবে না। অবৈধ অস্ত্রের পাশাপাশি বৈধ অস্ত্রেরও যাতে অপব্যবহার না হয় সে জন্য পুলিশ সতর্ক রয়েছে।

সূত্র জানায়, বিভিন্ন নির্বাচনে অনেক প্রার্থী নিজেদের অবস্থান পাকাপোক্ত রাখতে অস্ত্রধারী পেশাদার সন্ত্রাসীদের ব্যবহার করেন। প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুপের বিপক্ষে ব্যবহার হয় অস্ত্র-বিস্ফোরক। এ সময় পেশাদার সন্ত্রাসীদের আনাগোনা বেড়ে যায়। হাতবদল হয় অবৈধ অস্ত্র ও বিস্ফোরকের। একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখেও পেশাদার সন্ত্রাসীদের আনাগোনা বেড়েছে— এ ধরনের খবরও রয়েছে গোয়েন্দাদের কাছে। বিশেষ ধরনের কোড ও সাংকেতিক ভাষা ব্যবহার করে হাতবদল হচ্ছে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র ও বিস্ফোরকের। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি গ্রুপকে চিহ্নিত করেছে গোয়েন্দারা। পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে অবৈধ অস্ত্র ব্যবসায়ীদের তালিকা তৈরি করেছে গোয়েন্দারা। নির্বাচনের আগে এসব অস্ত্র ব্যবসায়ীদের নজরদারিতে রাখার পাশাপাশি তাদের কাছে থাকা অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের জন্য দেশব্যাপী অভিযান শুরুর প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলো। গোয়েন্দাদের তথ্য মতে, শুধু রাজধানীতে তিন শতাধিক অবৈধ অস্ত্রধারী আছে। এসব অস্ত্রধারী অস্ত্র বেচাকেনার পাশাপাশি সারা দেশে চাহিদা অনুযায়ী ভাড়া দিয়ে থাকে। নির্বাচন এলে অস্ত্রের চাহিদা বেড়ে যায়। ভাড়ায় নিতে আগ্রহী হয়ে ওঠে দেশের বিভিন্ন এলাকার দলীয় ক্যাডাররা। নির্বাচনে নিজেদের আধিপত্য বিস্তারের ক্ষেত্রে এসব অস্ত্র ব্যবহার করা হয়। ভাড়ায় অস্ত্র নিতে আগ্রহীদের সংখ্যা সব জাতীয় নির্বাচনের আগে বেড়ে যায়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখেও এসব অস্ত্র হাতবদল হওয়ার আশঙ্কা করছেন গোয়েন্দারা। র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (এডিজি) কর্নেল জাহাঙ্গীর আলম জানান, অস্ত্র উদ্ধারে বছরজুড়েই অভিযান চালায় র‌্যাব। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিশেষ ড্রাইভ দেবে র‌্যাব। ইতিমধ্যে সব ব্যাটালিয়নের অধিনায়ককে এ বিষয়ে বলা হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতরের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) এস এম রুহুল আমীন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে আমাদের নিয়মিত অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মাঝে মাঝেই অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, অস্ত্র ব্যবসায়ীদের গুলি এবং আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেফতার করা হচ্ছে।

অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার অনেকাংশে কম বলে দাবি তার। পুলিশ সদর দফতরের হিসাব অনুযায়ী, শুধু গত সেপ্টেম্বর মাসেই সারা দেশে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় ৩১৪টি এবং বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনায় ৪২৬টি মামলা হয়েছে। র‌্যাব সূত্র জানায়, চলতি বছরের অক্টোবর পর্যন্ত গত ১০ মাসে সারা দেশে বিভিন্ন ধরনের ৮৫৭টি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। একই সময়ের মধ্যে বিভিন্ন প্রকারের ২০ হাজার ১৮৭টি গোলাবারুদ, ৪১০টি ককটেল, বোমা ও গ্রেনেড এবং ৩১৪ কেজি বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত