প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ধর্ষণ বন্ধে, শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যকেও প্রাধান্য দেয়া উচিত : এলিনা খান

ফাহিম আহমাদ বিজয় : ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছেন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের আইবিএ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক খালেদ মাহমুদকে। এ প্রসঙ্গে মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট এলিনা খান বলেন, ঘটনাটি  এখনো প্রমাণ হয়নি। ধর্ষণ মামলা করলেই ধর্ষক হয়ে যায় না। প্রাথমিক পর্যায়ে যেহেতু অভিযোগ এসেছে, তাই মনে হচ্ছে, যৌন হয়রানিমূলক কিছু একটা ঘটেছে।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, আমরা ধরে নিচ্ছি, তিনি আসলে দোষী। তিনি নির্দোষও হতে পারেন। কিন্তু যখন একজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে এরকম অনৈতিক কার্যকালাপের অভিযোগ ওঠে, তা শিক্ষার্থীদের জন্য হুমকি। শিক্ষকই শিক্ষার্থীদের মধ্যে নৈতিক মূল্যবোধের জায়গা তৈরি করে। একজন শিক্ষককে দেখেই ছাত্ররা শেখে এবং তার আদর্শেই অনুপ্রাণিত হয়।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষকের বিরুদ্ধে যখন এরকম জঘন্য অভিযোগ আসে, তখন আমাদের শিক্ষিত সমাজ প্রশ্নবিদ্ধ হয়। আমার মনে হয়, চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য যাচাই করে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া উচিত। শুধু প্রথম শ্রেণিতে উত্তির্ণ নয়, তার শিক্ষার গুণাগুণও থাকতে হবে। সঙ্গে তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যকেও প্রধান্য দেওয়া উচিত।

তিনি আরো বলেন, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে যৌন হয়রানির ঘটনা কিন্তু এটি নতুন নয়। যৌন হয়রানির অভিযোগ দীর্ঘদিন ধরে আসছে, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় এবং জাহাঙ্গীর নগর বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রতি। ধর্ষণ বন্ধ করতে ফার্স্টক্লাস বা শিক্ষাগত যোগ্যাতার পাশাপাশি সৎ চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যকেও প্রাধান্য দেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি।

এক প্রশ্নের জবাবে এই মানবাধিকার কর্মী বলেন, এটি যদি না করা হয়, তাহলে শিক্ষকদের প্রতি মানুষের আস্থা কমবে। ছাত্র-ছাত্রীদেরও শিক্ষকদের প্রতি ক্ষোভ তৈরি হবে। সবার মধ্যে এমন একটি ধারণা তৈরি হবে যে, পিতা-মাতারাও নিজের মেয়েদেরকে বিশ^বিদ্যালয়ে পাঠাতে আশঙ্কা বোধ করবে।