প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যোগ্যদের সুযোগ দিন

মিঠুন মিয়া : একটি সুষ্ঠু, সুন্দর, সত্য এবং কল্যাণমূলক সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য সৎ, দক্ষ এবং যোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীই নির্বাচিত হবেন, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এমনটিই একান্তভাবে কাম্য। গণতন্ত্রের সোপান নির্বাচনের কার্যকারিতা মূলত এখানেই। নেতিবাচক রাজনৈতিক সংস্কৃতি থেকে মুক্তি এবং রাজনৈতিক সুফল পাওয়ার জন্য রাজনীতিতে ভালো মানুষের  যেমন অংশগ্রহণ দরকার, তেমনি রাজনৈতিক দল এবং জনগণের উচিত ভালো মানুষদের রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়া। রাজনীতিই হলো একটি রাষ্ট্রের মূল বিষয়। যার প্রভাব সর্বক্ষেত্রে। কাজেই রাজনীতিতে প্রকৃত জনপ্রতিনিধির কোনো বিকল্প নেই। রাজনীতিবিদরাই পারেন একটি সমাজ রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন করতে। তাদের নেতৃত্বের দূরদর্শিতায় অগ্রগতির শীর্ষে উপনীত হয় পুরো সমাজ ব্যবস্থা।

গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় জনগণ স্বাধীনভাবে ভোটাধিকার প্রয়োগ করে। কাজেই যোগ্য প্রার্থী নির্বাচনের জন্য জনগণের সদিচ্ছাই যথেষ্ট। ভোটাররা যাতে জেনে-শুনে-বুঝে তাদের মনোপূত ব্যক্তিকে ভোট দিয়ে তাদের প্রতিনিধি বানাতে পারে- এজন্য দরকার প্রার্থী সম্পর্কে জানার তথ্যপ্রবাহ। রাজনৈতিক দলগুলোরও উচিত হবে যোগ্যদের প্রাধান্য দেয়া, যাতে জনগণ তাদের মনোনীত ব্যক্তিকে ভোট প্রদানের সুযোগ পান। যাদের উন্নয়নমূলক কর্মকা-ে অংশগ্রহণ, জনগণের নিকট দায়বদ্ধতা, জনসেবার জন্য নিবেদিত প্রাণ, সামাজিক, অর্থনৈতিকভাবে স্বচ্ছ এবং কল্যাণমুখী রাজনীতিতে বিশ্বাসী, তাদের নেতৃত্বই আমরা প্রত্যাশা করি। ক্ষমতায় গেলে চরিত্র বদলে যায়, জনগণের ধারেকাছেও দেখা যায় না, অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে এমন ব্যক্তিকে কোনোভাবেই নির্বাচিত করা ঠিক হবে না। নির্বাচনের আগে যেমন জনসেবার প্রতিশ্রুতি দেন প্রার্থীরা, ক্ষমতায় গেলে তার ব্যত্যয় হবে না, এমন বিশ্বাসের যেমন প্রতিফলন ঘটে। রাজনীতিই মানুষের মন জয় করার অত্যন্ত সহজ উপায়। এজন্য কেবল সদিচ্ছায় যথেষ্ট। রাষ্ট্রের নীতি প্রণয়ন থেকে শুরু করে যাবতীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন রাজনীতিবিদরাই। এসব কাজে যথেষ্ট অবদান রাখতে পারবেনÑ এমন ব্যক্তিকে নির্বাচিত করতে হবে। এজন্য ভোটারদের উচিত হবে সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়া।

লেখক : শিক্ষক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ