প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সেক্স ও জেন্ডার প্রসঙ্গে

মাসুদ রানা, লন্ডন, ইংল্যান্ড থেকে

 

সেক্স ও জে-ারের মধ্যে মৌলিক পার্থক্য আছে। সেক্স হচ্ছে একটি দেহগত দ্বি-প্রকার লৈঙ্গিক প্রকাশ (বর্তমানে তৃতীয় একটি প্রকারের নাম মোটামুটি সুপ্রতিষ্ঠিত)। আর জে-ার হচ্ছে সেই দুই লৈঙ্গিক প্রকারের বৈষম্যমূলক সামাজিক মর্য্যাদা ও ভূমিকা। উদাহরণ স্বরূপ, নারী-পুরুষ হচ্ছে সেক্সের প্রকার, কিন্তু স্বামী-স্ত্রী হচ্ছে জে-ারের প্রকার।

দৈনন্দিনের বাংলাভাষায় সেক্স ও জে-ারের পার্থক্যসূচক আলাদা কোনো শব্দ নেই। উভয়ই ‘লিঙ্গ’। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, বাঙালি সংস্কৃতিতে সেক্স ও জে-ার অভিন্ন। কেউ যখন বলেন, ‘ছেলেটি মেয়েদের মতো লাজুক’ বলে মূল্যায়িত করে, তখন সে বস্তুত ছেলেটির দ্বারা তার দেহগত পুংলিঙ্গ, আর ‘মেয়েদের মতো লাজুক’ দ্বারা তার সামাজিক স্ত্রীলিঙ্গ নির্দেশ করে। একইভাবে,  ‘মেয়েটি ছেলেদের মতো সাহসী’ বলার মধ্যে  ‘মেয়েটি’র স্ত্রীলিঙ্গ এবং ‘ছেলেদের মতো সাহসী’ দ্বারা তার সামাজিক পুংলিঙ্গ নির্দেশ করা হয়।

আমাদের বুঝতে হবে, সেক্স হচ্ছে প্রাকৃতি-সৃষ্ট এবং জে-ার হচ্ছে মনুষ্য-সৃষ্ট। তাই, মানুষের মধ্যে সেক্সগত পার্থাক্য কোনো সমস্যা নয়, বরং মনুষ্য প্রজাতি টিকে থাকার জন্যে এখনও পর্যন্ত প্রয়োজনীয়। কিন্তু মানুষের মধ্যে জে-ারগত পার্থক্যের প্রয়োজনীয়তা ও যৌক্তিকতা নিয়ে বুদ্ধিবৃত্তিক ও রাজনৈতিক আলোচনা হওয়া জরুরি। ফেসবুক

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত