প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রশিক্ষণ নিতে চীনে যাচ্ছেন আরো একদল প্রকৌশলী
৫০ ভাগ এলইডি ডিজিটালাইজড হয়েছে

সুজিৎ নন্দী : আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে পুরো নগরীতে ‘ডিজিটালাইজড এলইডি লাইট স্থাপন’ কাজ ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবার কথা থাকলেও বাস্তবায়ন হয়েছে ৫০ ভাগ। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) এলাকায় কাজ শেষ পর্যায়ে এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মধ্যে শুধুমাত্র উত্তরা এলাকার কাজ শেষ পর্যায়ে। খুব শিঘ্রই এ বিষয়ে দুই সিটি করপোরেশনের মধ্যে সভা অনুষ্ঠিত হবে। আপাতত কাজে ধীরগতি। নিয়ন্ত্রণ দপ্তর থেকেই এসব বাতির আলো ২০ভাগ বাড়ানো কমানো যাবে। প্রায় অর্ধশত প্রকৌশলী ও রক্ষণাবেক্ষনের বিভাগের কর্মকর্তারা চার দফাই এলইডি লাইট লাগানো, রক্ষণবেক্ষণ এবং মেরামত বিষয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে এসেছেন। আগামী বছরের শুরুতে আরো একদল প্রকৌশলী ও কর্মকর্তা চীনে যাচ্ছেন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন এ প্রতিবেদককে বলেন, পুরো দক্ষিনের এলইডি কাজ শেষ। এখন পর্যাপ্ত আলোয় স্বচ্ছন্দে চলাফেরা করতে পারবে নগরবাসী। পাশাপাশি আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকর্তাদের পক্ষেও গাড়ির আরোহীদের সহজে চেনা ও কোনো ঘটনার ভিডিও ফুটেজে স্পষ্ট ছবি দেখা সম্ভব হবে।

ডিএনসিসি ও ডিএসসিসি একাধিক দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, এলইডি স্ট্রিট লাইট স্থাপন প্রকল্প মূলত মেগা প্রকল্পের কাজ। ডিএসসিসি মেগাপ্রকল্পের আওতায় এটি বাস্তবায়ন হলেও ডিএনসিসি ভিন্ন ভাবে বাস্তবায়ন করছে। পিডিবি ও ৮টি সিটির সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে লাইট লাইনের কাজ চলছে। এ ব্যাপারে ডিএনসিসি বিদ্যুৎ সার্কেল বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম এ

প্রতিবেদককে বলেন, লাইট পর্যাপ্ত আছে। খুব দ্রুতগতিতে কাজ চলছে। উত্তরার জসিমউদ্দিন রোডে গেলে প্রকল্পের কাজ দেখা যাবে। ৮টি সিটির সমন্বয়ের মাধ্যমে করার কারণে কিছুটা কম মনে হতে পারে। নতুন যুক্ত হওয়া সদ্য বিলুপ্ত ইউনিয়ন শ্যামপুর, মাতুয়াইল, দনিয়া, সারুলিয়া, নাসিরাবাদ, মান্ডা, দক্ষিণগাঁও ও ডেমরাকে আলোকিত করার জন্য ডিএসসিসি একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এ প্রকল্পের আওতায় ১৪৩ দশমিক ৪৭ কিলোমিটার রাস্তায় এলইডি স্ট্রিট লাইট স্থাপন করা হবে। ২৮ দশমিক ৭০ বর্গকিলোমিটার নতুন এলাকা নগর হিসেবে ডিএসসিসি’র আওতায় এসেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ