প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দুইশ’র বেশি আসন চায় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলো

সাজিয়া আক্তার : গণফোরাম, নাগরিক ঐক্য ও জেএসডি মিলে ২শ’র বেশি আসনে নির্বাচন করতে চায়। আসন ভাগাভাগি নিয়ে ২০ দলীয় জোটের শরিকরা কিছুটা নমনীয় হলেও, বিএনপির সঙ্গে দর-কষাকষি চালিয়ে যাচ্ছে ঐক্যফ্রন্টের শরিক দলগুলো। বিএনপি বলছে, কারো অযৌক্তিক দাবি মানা হবে না, যোগ্য প্রার্থী হলেই কেবল তাদের দাবি মানা হবে। সুত্র : ডিবিসি টেলিভিশন

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরই ৩০০ আসনে প্রার্থী বাছাই করতে মাঠে নেমেছে বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্টের শরিকরা। আসন ভাগাভাগিতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের তিন দল মিলে ২১৫টি আসন দাবি করেছে। ড. কামাল হোসেনের গণফোরাম চেয়েছে ১৬০টি, আ স ম আব্দুর রবের জেএসডি ২০টি আর মাহমুদুর রহমান মান্নার নাগরিক ঐক্য ৩৫টি আসন।

গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, আমরা ১৬০টি আসন দাবি করেছি। তবে একটি আসন নিয়েও আমরা কোন ঝুঁকিতে যাব না। অন্যান্য শরিক দলের চেয়ে যদি আমাদের প্রার্থী যোগ্য হয়, জনগণের কাছে তার গ্রহনযোগ্যতা বেশি হয়, আমরা সেটা নিয়ে কথা বলবো।

নাগরিক ঐক্য’র আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না জানান, আমরা পুরো শক্তি নিয়ে নির্বাচন করতে চাই। সারাদেশে আমাদের সংগঠনটি গুছিয়ে নেয়ার কাজটিও করতে চাই।

এলডিপি সভাপতি কর্নেল (অব) অলি আহমেদ বলেন, যে সমস্ত প্রার্থী জনগণের কাছে গ্রহনযোগ্যতা পাবে, তাদেরকে আমরা মনোনয়ন দেবার জন্য সুপারিশ করবো। অন্যায় কোন আবদার আমরা কেউই করবো না। এমন কী জামায়াতকে আমরা বলবো, কোন অন্যায় আবদার না করার জন্য। আমি মনে করি ঐক্যফ্রন্টে যারা আছে তারা সকলে শিক্ষিত। দেশের পরিস্থিতি তারা বোঝে। কেউ ব্যর্থ হবার জন্য আসন নেবেন এটা আমি বিশ্বাস করি না।

২০ দলীয় জোটের পাশাপাশি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধার পর আসন বন্টন নিয়ে জটিল পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে বিএনপি।

আসন বন্টন নিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী জানান, মনোনয়নে কোনদিনও সকলের মন খুশি করা যায়না। মনোনয়ন হচ্ছে সবচাইতে জটিল বিষয়। অনেকেরই প্রত্যাশা থাকে মনোনয়ন পাবার। তবে সকলের প্রত্যাশা পূরণ করা সম্ভব নয়। দলের পক্ষে এটা একটা কঠিন কাজ।

জোটের বিজয় নিশ্চিত করতে আসন নিয়ে দর-কষাকষি না করে সবাই ছাড় দিয়ে ঐক্যবদ্ধ থাকবেন বলেও প্রত্যাশা নেতাদের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত