প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বঞ্চিত মানুষ এবার নিজের অধিকার ছিনিয়ে নেবে : রুমিন ফারহানা

হ্যাপি আক্তার : বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেছেন, গত ১০ বছর ধরে এদেশের মানুষ ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত।

বৃহস্পতিবার রাতে যমুনা টেলিভিশনের ‘রাজনীতি’ টকশোতে তিনি বলেন, মানুষই এবার তার প্রতিরোধ গড়ে তুলবে এবং তারা নিজের অধিকার ছিনিয়ে নেবে। সুতরাং সরকার যদি মনে করে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও প্রশাসন দিয়ে সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মতো যেনোতেনোাভাবে পার পেয়ে যাবে, এবার তা হবে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে ঐক্যফ্রন্টের আলোচনার কথা উল্লেখ করে রুমিন ফারহানা বলেন, ঐক্যফ্রন্টের নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করে তাদের সুস্পষ্ট ৭টি দাবি তুলে ধরেছেন। কিন্তু সে দাবিগুলোর একটিও মানা হয়নি। তার পরেও দেশে ও মানুষের কথা চিন্তা করে বিএনপি ২০ দলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনের পথে। তার মানে নির্বাচনটি এখন সম্ভবত অংশগ্রহণমূলক হতে যাচ্ছে। তবে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে, নির্বাচনটি কি অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠুভাবে হবে কিনা।

তিনি বলেন, সরকারি দলের নেতা-নেত্রী ও কর্মীরা তারা শুরু থেকেই নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে আসছে। গত দেড় বছর ধরে সরকার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী যারা আছেন তারা প্রচারণা চালাচ্ছেন। সারা বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সর্বত্রই দেখা যায় নৌকা মার্কায় ভোট দিন পোস্টার, বিলবোর্ড ও ফেস্টুনে ভরে গেছ। সে দিক থেকে মনে হচ্ছে বাংলাদেশে নৌকা ছাড়া আর কোনো দল ও মতামতের মানুষ নেই। আমরা একটি পোস্টার লাগানোর জায়গাও পাই না। দলের লোকজন নিজের এলাকায় যেতে পারে না। অসমতল অবস্থায় ভোটের প্রক্রিয়াটি শুরু হয়েছে। তার সাথে নির্বাচনী যে আচরণ বিধি ও আইন আছে সেখানেও অস্পষ্ট দেখা যায়।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগে যারা এমপি আছেন তারা গত দেড় বছর ধরে সরকারি খরচে বিভিন্ন জায়গায় প্রচারণা চালালিয়ে ভোট চাইছেন। অপর দিকে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া থেকে শুরু করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এবং বিএনপির সমর্থকদের হয় তো আদালতের বারান্দায় নয় তো কারাগারে বেশির ভাগ সময় কাটাতে হচ্ছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত