প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

#মিটু আন্দোলনে শরিক করা প্রয়োজন গার্মেন্টস ও প্রবাসে কর্মরত নারীদের

নাসিমা খান মন্টি : গার্মেন্টস ও প্রবাসে কর্মরত নারীদের #মিটু আন্দোলনে শামিল করে তাদের ওপর চলা যৌন হয়রানি ও নির্যাতন অনেকখানি কমানো সম্ভব। আমি প্রস্তাব করছি, আপনারা বিবেচনা করে দেখতে পারেন। ২০১৭ সালে মার্কিন অভিনেত্রী আলিশা মিলানোর অভিযোগের মধ্য দিয়ে ব্যাপকভাবে শুরু হয় #মিটু মুভমেন্ট। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বদৌলতে তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে । নারীরা নির্ভয়ে প্রকাশ করতে থাকে কর্মক্ষেত্রে মালিক বা সহকর্মী দ্বারা যৌন নির্যাতনের কথা। আর এই অভিযোগের তীর বেশিরভাগই ছিলো বিখ্যাত সব মানুষের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি বাংলাদেশেও এই আন্দোলনের ঢেউ লেগেছে। কর্মক্ষেত্রে নারীদের ওপর চলা যৌন নির্যাতন নিয়ে সোচ্চার হচ্ছেন তারা। নারী মানবাধিকারকর্মী, সাংবাদিক, শিক্ষক চাকরীজীবীসহ বিভিন্ন পেশার নারীরা এখন সোচ্চার। এরই ধারাবাহিকতায় জাতীয় প্রেসক্লাবে মানববন্ধন এবং আলোচনা/সেমিনারের মাধ্যমে তারা বাংলাদেশে এই আন্দোলন দৃঢ়ভাবে সমর্থন জানিয়েছেন।

আমিও সহমত তাদের সঙ্গে। তবে বেশ কিছুদিন থেকেই মনে হচ্ছে আমাদের দেশে গার্মেন্টস শিল্পে ও প্রবাসে নারী শ্রমিকদের যৌন হয়রানির বিষয়টি এই আন্দোলনে যুক্ত করলে কর্মক্ষেত্রে তাদের ওপর চলা নির্যাতন ধীরে ধীরে কমবে।

বাংলাদেশে গার্মেন্টস শিল্পে কর্মরত নারী কর্মীরা প্রতিনিয়ত যৌন হয়রানি ও নির্মম নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। অফিসে নিরাপত্তাকর্মী থেকে শুরু করে সুপারভাইজার-ম্যানেজার, কারো হাত থেকে রেহাই নাই এই প্রান্তিকের অসহায় শ্রমিকদের। চাকরি হারানোর ভয়সহ কর্মক্ষেত্রে অসহযোগিতার ভয়ের রাজত্বে চলে এসব নির্যাতন।

আর সৌদিআরবসহ অন্য আরব দেশগুলোতে কর্মরত নারী শ্রমিকরাও, বিশেষ করে গৃহশ্রমিকরা অসহনীয় জীবন যাপন করছে। তাদের ওপর প্রতিনিয়ত চলতে থাকা নির্মম যৌন নির্যাতন তারা নিরুপায় বলে সহ্য করে যাচ্ছে বছরের পর বছর। এসব নারীদের মধ্যে একাংশ নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে দেশে ফিরে আসতে বাধ্য হচ্ছে। গত কয়েকমাসে প্রায় ৪ হাজার নারী শ্রমিক সৌদিআরব থেকে ফেরত এসেছে।

আমরা যদি # মিটু আন্দোলনের প্রচেষ্টায় এসব নারীদের কথা, বিশেষ করে এদেশের গার্মেন্টস শ্রমিকদের কথা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রকাশ করতে থাকি, প্রতিবাদ করতে থাকি; তবে নিশ্চিত হয়েই বলতে পারি, এসব নারীরা কিছুটা হলেও মুক্তি পাবে। তাই তাদের পাশে দাঁড়ানোটা আমাদের দায়িত্ব। সাধুবাদ জানাই # মিটু আন্দোলনের সকল নারীকে যারা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে এই আন্দোলনকে বেগবান করছেন। কর্মক্ষেত্রে নারীদের ওপর নির্যাতন বন্ধ হবে একদিন নিশ্চিত।

সম্পাদক, আমাদের অর্থনীতি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ