প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

লক্ষ্মীপুর-৪ আসনে সাবেক দুই মন্ত্রীর চমক, এমটাই গুনজন

আমজাদ হোসেন আমু, লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরের রামগতি-কমলনগর দুটি উপজেলা নিয়ে গঠিত লক্ষ্মীপুর -৪ সংসদীয় আসন।নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে প্রার্থীর লড়াই ততই জমে উঠছে। এ আসনে আ,লীগ-বিএনপিতে দুই সাবেক মন্ত্রীর লড়াই হতে পারে এমনটাই গুনজন।

বুধবার (২১ নভেম্বর) নির্বাচনী এলাকায় সরেজমিনে দেখা যায়,আওয়ামী লীগ -বিএনপি,র পক্ষে সংসদ সদস্য প্রার্থীর বাহিরে চমক হতে পারে। একাদশ সংসদ নির্বাচনে মেঘনা উপকূলীয় এ আসনে জোটগতভাবে জেএসডি এবং বিকল্প ধারার দুই শীর্ষ নেতার চমক আসছে বলেও নেতাকর্মীরা প্রচার করছেন।

এতে কপাল পুড়তে বসেছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের। যদিও দলের চূড়ান্ত মনোনয়ন পাওয়ার জন্য ঢাকায় অবস্থানরত প্রার্থীরা এখনও শেষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

সাবেক নৌপরিবহন মন্ত্রী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি,র) সভাপতি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম সমন্বয়ক আ স ম আবদুর রব (তারা) ও সাবেক পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী,বিকল্প ধারা বাংলাদেশের মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান (কুলা)। দু,জনই এ আসন থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। শেষ পর্যন্ত সব কিছু ঠিক থাকলে আওয়ামী লীগ জোট থেকে আবদুল মান্নান (নৌকা) এবং বিএনপি জোট থেকে আসম আবদুর রব (ধানের শীষ) প্রতিক নিয়ে নির্বাচনের মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা গবেষণা করছে।

যদিও আ স ম আবদুর রব এ আসন থেকে তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছে। আবদুল মান্নান নির্বাচনে অংশ নিলেও ফসল ঘরে তুলতে পারেননি।

এদিকে, আওয়ামী লীগের শক্ত প্রার্থী হিসেবে বর্তমান সংসদ সদস্য মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন , কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক ফরিদুন্নাহার লাইলী,কেন্দ্রীয় উপ সম্পাদক আব্দুরজ্জাহের সাজু, অধ্যাপক শামছুল কবির মাঠে রয়েছেন।

ফরিদুন্নাহার লাইলী লক্ষ্মীপুর-৪ সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ছিলেন। নতুন প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক মো. আবদুজ্জাহের সাজু নির্বাচনী এলাকায় প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে আলোচনায় রয়েছেন।

দলীয় সূত্র জানায়, এ আসনে দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা তাসভীরুল হক অনু, রামগতি পৌরসভার সাবেক মেয়র আজাদ উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান রোকেয়া আজাদ, কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম নুরুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক একেএম নুরুল আমিন রাজু, সাংগঠনিক সম্পাদক ড.শামছুল কবির ও আওয়ামী লীগ নেতা এ কে এম শরীফ উদ্দিন।

অন্যদিকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে সক্রিয় রয়েছেন রামগতি উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য এ বি এম আশরাফ উদ্দিন নিজান, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিউল বারী বাবু ও কেন্দ্রীয় তাঁতী দলের সহ-সভাপতি আবদুল মতিন,সাবেক ডাকসু ও কেন্দ্রীয় নেতা মো:হারুনুর রশিদ । দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিয়েছেন। ইতোমেধ্যে তারা দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়িয়ে নির্বাচনী নির্দেশনা দিচ্ছেন।

জেলা কৃষকদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা বিএনপি নেতা এ্যাড.নাহিদ জানান,জাতীয়তাবাদী দলের মনোনয়নে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে যাকে ধানের শীষ মার্কায় নমিনেশন দিবে আমরা তার জন্য মাঠে কাজ করবো।

কমলনগর উপজেলা যুবলীগের যুগ্নআহবায়ক আরাফাত রাজু জানান, দলের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ রেখে প্রার্থীকে জয়ী করার চেষ্টা করবো।

কমলনগর ও রামগতির আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, জেএসডি ও বিকল্পধারা এখানে সাংগঠনিকভাবে পাকাপোক্ত নয়। আওয়ামী লীগ-বিএনপির অবস্থান রয়েছে জোরালো। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীরা নির্বাচনের মাঠ গরম করলেও জোটগত কারণে মনোনয়ন অংকে অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে। সবার মুখে-মুখে এখন মনোনয়নয়ন প্রাপ্তি নিয়ে আ সম আবদুর রব এবং মেজর আবদুল মান্নানের আলোচনা।

প্রসঙ্গত, লক্ষ্মীপুর-৪ আসনে বর্তমান ভোটার ৩ লাখ ১০ হাজার ৮৪৭ জন। গত সংসদ নির্বাচনে ভোটার ছিল ২ লাখ ৬৬ হাজার ৭২৬ জন। সে হিসাবে এ আসনে গত পাঁচ বছরে ভোটার বেড়েছে ৪৪ হাজার ১২১ জন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত