প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কৃষি খাতে খেলাপি ঋণের শীর্ষে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো

রমজান আলী : শিল্পখাতের পাশাপাশি কৃষিখাতেও খেলাপির ঋণের পরিমাণ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে কৃষি খেলাপি ঋণের পরিমাণ। এছাড়া কৃষি খাতেও খেলাপি ঋণের শীর্ষে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো। কৃষি খাতে বিতরণের পাশাপাশি সেইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে খেলাপি ঋণের পরিমাণও। এ খাতে খেলাপি ঋণের পরিমাণ এখন ৫ হাজার ৬৯৫ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে, যার প্রায় ৯৫ শতাংশ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ কৃষি ও পল্লী ঋণ বিষয়ক হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের জোর তৎপরতা এবং ব্যাংকগুলোর উদ্যোগের কারণে কৃষিঋণ বিতরণ বাড়ছে। তবে বন্যা, নদী ভাঙন, প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ নানা কারণে ঋণ সঠিক সময়ে আদায় হচ্ছে না, যার কারণে বেশকিছু ঋণ খেলাপি হয়ে গেছে। কৃষিঋণে এ খেলাপি হয়ে যাওয়াকে মোটেই ইতিবাচক ভাবে দেখছেন না সংশ্লিষ্টরা। চলতি (২০১৮-২০১৯) অর্থবছরে ২১ হাজার ৮০০ কোটি টাকার কৃষি ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) প্রথম তিন মাসে বিতরণ হয়েছে ৩ হাজার ৪৯৩ কোটি টাকা, যা নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার ১৬ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ। গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৭৪২ কোটি টাকা কম। গত অর্থবছর এ সময় ব্যাংকগুলো বিতরণ করেছিল ৪ হাজার ২৩৫ কোটি টাকা।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুয়াযী, এ অর্থবছরের সেপ্টেম্বর শেষে কৃষি খাতে মোট ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৩৯ হাজার ৬২৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপিতে পরিণত হওয়া ৫ হাজার ৬৯৫ কোটি টাকা মোট ঋণের ১৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ। আলোচ্য সময় পর্যন্ত সরকারি ব্যাংকগুলোর ২৯ হাজার ৮৮৪ কোটি টাকা ঋণের বিপরীতে খেলাপি রয়েছে ৫ হাজার ৪৪৯ কোটি টাকা, যা মোট খেলাপি ঋণের প্রায় ৯৫ শতাংশ; এটা ব্যাংকগুলোর কৃষি ঋণ স্থিতির ১৮ দশমিক ২৩ শতাংশ। বেসরকারি ও বিদেশি ব্যাংকগুলোর মোট ৯ হাজার ৭৩৯ কোটি টাকার কৃষি ঋণের বিপরীতে খেলাপি হয়েছে ২৪৫ কোটি টাকা। কৃষি ঋণের খেলাপি ঋণের শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক। ব্যাংকটির ২ হাজার ২১৫ কোটি টাকা এখন খেলাপি। এ ছাড়া সোনালী ব্যাংকে এক হাজার ৫৭৭ কোটি, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকে ৮৯৩ কোটি, জনতা ব্যাংকে ৪৭৭ কোটি এবং অগ্রণী ব্যাংকের ২১২ কোটি টাকার ঋণ খেলাপিতে পরিণত হয়েছে।

বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে খেলাপি ঋণের শীর্ষে রয়েছে উত্তরা ব্যাংক। এ ব্যাংকের ৩০ কোটি টাকা খেলাপি হয়েছে। এ ছাড়া এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের ১২ কোটি, ন্যাশনালের ৬ কোটি ৯৪ লাখ, ঢাকা ব্যাংকের ৬ কোটি ৮৫ লাখ, এবি ব্যাংকের ৬ কোটি ৭৯ লাখ টাকা এখন খেলাপি।

এব্যাপারে জানাতে চাইলে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, আমাদের সব শাখায় নির্শেদ দেয়া হয়েছে কৃষিখাতের খেলাপি ঋণের পরিমাণ কমিয়ে আনতে। এছাড়া আমাদের ইচ্ছা আছে আগামী অর্থ বছরের মধ্যে কৃষি ঋণের খেলাপি পরিমাণ অর্ধেক কমিয়ে আনা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ