প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

স্কাইপ বন্ধের সিদ্ধান্ত নিলে ভুল হবে : আবু সাঈদ খান

লিয়ন মীর : অনলাইনে তারেক রহমানের নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের মধ্যে পড়ে না বলে নির্বাচন কমিশন যথার্থ বলেছে। তবে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মতো ভয়াবহ মামলার আসামিকে নির্বাচনী কার্যক্রমে জড়িয়ে বিএনপি ঠিক করেনি বলে মন্তব্য করেছেন সিনিয়র সাংবাদিক আবু সাঈদ খান। এই প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, একজন পলাতক আসামি নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে কিনা এই বিষয়টি নিয়ে আইনে বিতর্ক আছে এবং নির্বাচন কমিশনের আচরণ-বিধিতে সুস্পষ্ট কোনো ব্যাখ্যা নেই। সেজন্য নির্বাচন কমিশন যথার্থই বলেছেন, এই বিষয়ে তাদের কিছু বলার নেই। আবার তারেক রহমান রাজনীতি করতে পারবেন কিনা এটা আদালতের বিষয় এবং রাজনৈতিক সিদ্ধান্তেরও বিষয়। তারেক রহমান দোষী কিনা প্রমাণের জন্য এখনো আদালতের কয়েকটি ধাপ বাকি আছে। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, আদালত থেকে নির্দোষ প্রমাণ হওয়ার আগে তারেক রহমানকে নির্বাচনী কার্যক্রমে জড়িয়ে বিএনপি ঠিক করেনি।

তিনি আরও বলেন, তারেক রহমানের অনলাইনে নির্বাচনী কার্যক্রম নিয়ে আওয়ামী লীগ যেটা বলছে, তা রাজনৈতিক বক্তব্য। রাজনীতিতে এমন বক্তব্য সব দলই দিয়ে থাকে। তবে তারেক রহমান স্কাইপে কথা বলেছেন বলে তা বন্ধ করে দিতে হবে, এটা সঠিক সিদ্ধান্ত নয়। তারেক রহমান যদি ফোনে কথা বলেন তাহলে কি ফোন বন্ধ করে দিতে হবে? যদি স্কাইপ বন্ধের সিদ্ধান্ত হয় তা মোটেও ভালো ফল দেবে না। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিটিআরসি বলছে, তারা স্কাইপ বন্ধ করেনি কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে আমরা স্কাইপ ব্যবহার করতে পারছি না। জনগণের মৌলিক অধিকার নিয়ে এমন লুকোচুরি করা ঠিক হচ্ছে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ