প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিএনপির সাবেক ৫০ প্রার্থী বাদ!

ডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপি সর্বশেষ অংশ নেওয়া ২০০৮ সালের নির্বাচনে তিন শরিকদের ৪১টি আসন ছেড়ে দিয়ে দলীয় প্রার্থীদের মনোনয়ন দিয়েছিল ২৫৯টি আসনে। এবার দলের প্রার্থী মনোনয়ন দেওয়ার সংখ্যা আরো কমে যেতে পারে। বিশ্লেষকরা বলছেন, মূলত চারটি কারণে এবার বিএনপির প্রার্থী তালিকায় বড় ধরনের পরিবর্তন আসবে।

নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে, আগের নির্বাচনে মনোনয়ন পেয়েছিলেন এমন অর্ধশত প্রার্থী এবার মনোনয়ন পাচ্ছেন না। ওই সব আসনের কোনোটিতে বিএনপির নতুন প্রার্থী, আবার কোনোটি জোটের শরিকদের ছেড়ে দেওয়া হবে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নবম সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি বিএনপি ও তৎকালীন চারদলীয় জোট।

যে চার কারণে বিএনপির প্রার্থী তালিকায় বড় পরিবর্তন আসতে পারে তার প্রথমটি হচ্ছে, ১০ বছর আগে নির্বাচনে অংশ নেওয়া অনেক প্রার্থী ইতিমধ্যে মারা গেছেন। দ্বিতীয়ত, বয়স বেড়ে যাওয়ায় অনেকেই এবার নির্বাচন করতে পারছেন না। তৃতীয়ত, ওই সময়ের চারদলীয় জোট এখন ২০ দলীয় জোটে পরিণত হয়েছে এবং চতুর্থত, গত মাসে বিএনপিসহ অন্য চারটি দলের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ফলে আগামী নির্বাচনে বিএনপিকে মোট ২৪টি দলের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি করতে হবে। বিষয়টি বিএনপির জন্য অত্যন্ত চ্যালেঞ্জ বলে মনে করা হচ্ছে।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ২০ দল ও ঐক্যফ্রন্টের নেতারা অবশ্য বলছেন, সংখ্যার ভিত্তিতে নয়; আসন বণ্টন হবে প্রার্থীর জয়ের সম্ভাবনার ভিত্তিতে।

গতকাল কালের কণ্ঠকে মির্জা ফখরুল বলেন, আসন বণ্টন নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। বিএনপির প্রার্থীদের সাক্ষাৎকারের পর এ বিষয়ে আলোচনা শুরু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ১০ বছর আগে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। কেউ কেউ ইতিমধ্যে মারাও গেছেন। ফলে অনেক যাচাই-বাছাই করে এবার প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হবে।

স্থায়ী কমিটির সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন, বয়সজনিত কারণে তিনি নির্বাচন করবেন না। ‘আমার মতো অনেকেই নির্বাচন করবেন না। তা ছাড়া ১০ বছরে বিএনপির পাশাপাশি রাজনীতিতেও অনেক পরিবর্তন এসেছে। তরুণ বা নতুন মুখ তৈরি হয়েছে। ফলে তাদেরও জায়গা করে দিতে হবে।’

রংপুর-৬ আসনে গত নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতা নূর মোহম্মদ মণ্ডল। কিন্তু সম্প্রতি তিনি আওয়ামী লীগে যোগদান করায় ওই আসনে প্রার্থিতায় পরিবর্তন আসবে। জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম ছাড়া ওই আসনে বড় কোনো প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে না। কুড়িগ্রাম-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী তাজুল ইসলাম চৌধুরী মারা গেছেন। নির্বাচন করলে ওই আসন থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ মনোনয়ন পাবেন। কিন্তু রিজভী নির্বাচন করবেন কি না তা নিশ্চিত নয়। রিজভী না করলে জেলা কমিটির নেতা সোহেল হোসনাইন কায়কোবাদ অথবা সাবেক পৌর মেয়র আবুবকর সিদ্দিকী—এ দুজনের একজন মনোনয়ন পাবেন। মনোনয়ন বোর্ডে তাঁরা দুজনই সাক্ষাৎকার দিয়েছেন।

বগুড়া-২ আসনে ২০০৮ সালে বিএনপি প্রার্থী ছিলেন এ কে এম হাফিজুর রহমান। কিন্তু এবার আসনটি নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাকে ছেড়ে দেওয়ার সম্ভাবনা বেশি। নওগাঁ-৩ আসনের বিএনপির প্রার্থী আখতার হামিদ সিদ্দিকী মারা যাওয়ায় ওই আসনে তাঁর ছেলে পারভেজ হামিদ সিদ্দিকী জনির মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। যদিও স্থানীয় বিএনপি নেতা ফজলে হুদা বাবুল ও রবিউল ইসলাম বুলেটও ওই আসনের জন্য সাক্ষাৎকার দিয়েছেন।

সংস্কারপন্থী হওয়ায় সর্বশেষ নির্বাচনে ভাই বাদ পড়লেও এবারের নির্বাচনে নওগাঁ-৬ আসন থেকে মনোনয়ন পাচ্ছেন সাবেক এমপি আলমগীর কবীর। ২০০৮ সালে তাঁর বদলে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল ভাই আনোয়ার হোসেন বুলকে। দিনাজপুর-৩ আসনে বিএনপি জোটের প্রার্থী শফিউল আলম প্রধান কয়েক মাস আগে মারা গেছেন। ওই আসনে শিল্পপতি হাফিজুর রহমান অথবা পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম দলীয় প্রার্থী হতে পারেন।

পঞ্চগড়-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার জীবিত থাকলেও বয়সের কারণে তিনি নির্বাচন করতে আগ্রহী নন। তাঁর পরিবর্তে ছেলে ব্যারিস্টার নওসের জমিরের নির্বাচন করার সম্ভাবনা বেশি। যদিও এই আসন থেকে জাগপার প্রয়াত নেতা শফিউল আলম প্রধানের ছেলে রাশেদ প্রধানও ধানের শীষে নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র কিনেছেন। অন্যদিকে পঞ্চগড়-২ আসনের গত নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী মোজাহের হোসেন মারা যাওয়ায় ওই আসন থেকে মনোনয়নপত্র কিনেছেন প্রধানের মেয়ে ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান। বিএনপি জোটের প্রার্থী হিসেবে তাঁরই মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

গাইবান্ধা-৫ আসনে বিএনপির প্রার্থী হাসান আলীর জায়গায় সম্প্রতি বিএনপিতে যোগদানকারী কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি ফারুক আলম মণ্ডলের প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। জয়পুরহাট-১ আসনে মোজাহের আলী প্রধান মারা যাওয়ায় নতুন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। তাঁর ছেলে মাসুদ রানা প্রধান ওই আসনের জন্য মনোনয়ন কিনলেও কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা ফয়সল আলীমের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

রাজশাহী-১ আসনে গত নির্বাচনে সাবেক আইজিপি এনামুল হককে বিএনপির প্রার্থী করা হলেও এবারে প্রার্থী হচ্ছেন তাঁর ভাই ব্যারিস্টার আমিনুল হক। রাজশাহী-৩ আসনে সর্বশেষ নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়া কবির হোসেন বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ। এ কারণে মহানগরী বিএনপির সহসভাপতি শফিকুল হক মিলনকে মনোনয়ন দেওয়া হতে পারে। সংস্কারপন্থী নেতা আবু হেনা গত নির্বাচনে রাজশাহী-৪ আসন থেকে মনোনয়ন না পেলেও এবারে বিএনপির প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। ২০০৮ সালে এ আসনে বিএনপি প্রার্থী ছিলেন আবদুল গফুর। রাজশাহী-৫ আসনে ২০০৮ সালে নজরুল ইসলাম নির্বাচন করলেও এবার মনোনয়ন পাচ্ছেন নাদিম মোস্তফা। রাজশাহী-৬ আসনে বিএনপির অন্যতম প্রার্থী আজিজুর রহমান মারা গেছেন। তাঁর বদলে জেলা বিএনপির সহসভাপতি আবু সাঈদ চানের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

আসন্ন নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান। তিনি দলীয় মনোনয়নপত্র কেনেননি। ফলে দিনাজপুর-২ আসনে এবার নতুন প্রার্থী দেওয়া হচ্ছে। এ আসনে বোচাগঞ্জ উপজেলা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মঞ্জুরুল ইসলামকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার সুপারিশ করেছেন সাবেক সেনাপ্রধান মাহবুব। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ৩০ বছর এলাকায় সংগঠন ধরে রেখেছেন বিধায় তাঁর নাম সুপারিশ করা হয়েছে।

নাটোর-১ আসনে প্রয়াত বিএনপি নেতা ও মন্ত্রী ফজলুর রহমান পটলের বদলে তাঁর স্ত্রী অধ্যক্ষ কামরুন্নাহার শিরিন মনোনয়ন পাবেন। পাবনা-১ আসনে সর্বশেষ বিএনপি জোটের প্রার্থী ছিলেন যুদ্ধাপরাধী মামলায় ফাঁসি কার্যকর হওয়া মতিউর রহমান নিজামী। তাঁর ছেলের জন্য জামায়াত আসনটি এবারেও ছেড়ে দেওয়ার দাবি করছে। এদিকে ঐক্যফ্রন্টের একটি দল থেকেও আসনটি চাওয়া হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ-৫ আসনে আগের প্রার্থী মেজর (অব.) মঞ্জুর কাদেরকে মনোনয়ন দেওয়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ ১০ বছর ধরে বিএনপির রাজনীতিতে তিনি নিষ্ক্রিয় ছিলেন। তরুণ ব্যবসায়ী নেতা রকিবুল করিম খান পাপ্পু এই আসনে মনোনয়ন পাচ্ছেন।

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে সর্বশেষ বিএনপির প্রার্থী অহিদুল ইসলাম বিশ্বাসের বদলে মনোনয়ন পাবেন কেন্দ্রীয় নেতা শামসুজ্জামান দুদু। চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে সর্বশেষ নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়া জামায়াতের হাবিবুর রহমানের বদলে মনোনয়ন পাচ্ছেন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদ হাসান খান বাবু।

স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রয়াত এম তরিকুল ইসলামের যশোর-৩ আসনে মনোনয়ন পাচ্ছেন তাঁর ছেলে অমিত ইসলাম।

নড়াইল-২ আসনের বিএনপির প্রার্থী শরিফ খসরুজ্জামান মারা গেছেন। ওই আসনে বিএনপির তেমন ভালো প্রার্থী নেই। শরিক দল এনপিপির সভাপতি ডা. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ আসনটিতে জোটের প্রার্থী হতে পারেন।

খুলনার ছয়টি আসনের মধ্যে মাত্র দুটিতে বিএনপি ও জামায়াতের প্রার্থিতা পরিবর্তন হবে। একটি হচ্ছে খুলনা-৩, যেখানে ২০০৮ সালে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন কাজী শাহ সেকেন্দার আলী। জানা গেছে, ওই আসনে একাধিক নতুন ও ভালো প্রার্থী রয়েছে। এর মধ্যে ফখরুল আলম, আরিফুর রহমান মিঠু ও রকিবুল ইসলাম বকুলের নাম বেশি আলোচনায়। এই তিনজনের যেকোনো একজনকে প্রার্থী করা হবে বলে কেন্দ্রীয় একাধিক নেতা কালের কণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন। অন্যদিকে খুলনা-৬ আসনে গত নির্বাচনে জামায়াতের প্রার্থী শাহ মোহম্মদ রুহুল কুদ্দুস মারা গেছেন। জানা গেছে, দলটির খুলনা মহানগরী আমির মাওলানা আবুল কালাম আজাদকে ওই আসনে জোটের মনোনয়ন দেওয়া হবে।

ভোলা-২ আসনে সর্বশেষ নির্বাচনে বিজেপির প্রার্থী হিসেবে জোটের আশিকুর রহমানকে জোটের মনোনয়ন দেওয়া হলেও এবারে তিনি পাচ্ছেন না। হাফিজ ইব্রাহিম বা অন্য কাউকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।

বরিশাল-১ আসনে সর্বশেষ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন পেয়েছিলেন ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সোবহান। আসন্ন নির্বাচনে তাঁর বদলে সাবেক এমপি জহিরউদ্দিন স্বপনকে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে। সম্প্রতি বিএনপির স্থায়ী কমিটির কয়েকজন সদস্যসহ কয়েকজন আইনজীবী কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে গেলে আলোচনা প্রসঙ্গে স্বপনকে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন খালেদা জিয়া। নির্ভরযোগ্য সূত্র কালের কণ্ঠকে এ তথ্য জানিয়েছে।

পিরোজপুর-১ আসনটি ২০০৮ সালে জামায়াতের প্রার্থীর জন্য ছেড়ে দিয়েছিল বিএনপি। যুদ্ধাপরাধ মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে তিনি কারাগারে রয়েছেন। তাঁর ছেলে শামীম বিন সাঈদি ওই আসনের মনোনয়ন চাইছেন। কিন্তু সমঝোতা হলে আসনটি শরিক দল জাতীয় পার্টির (জাফর) নেতা মোস্তফা জামাল হায়দারকে ছেড়ে দেওয়া হবে।

পিরোজপুর-২ আসনে পরপর তিনটি নির্বাচনে বিএনপির পরাজিত প্রার্থী নুরুল ইসলাম মঞ্জুর মারা গেছেন। সমঝোতা হলে আসনটি ছেড়ে দেওয়া হবে লেবার পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ইরানকে। আগের প্রার্থী শাজাহান মিয়াকে পরিবর্তন করে মঠবাড়িয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি রুহুল আমিন দুলালকে প্রার্থী করা হতে পারে পিরোজপুর-৩ আসনে।

জেলার তিনটি আসনের মধ্যে একমাত্র মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থীর পরিবর্তন হবে। কারণ ওই আসনের সাবেক এমপি, দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য এম মামসুল ইসলাম মারা গেছেন। জেলা বিএনপির সভাপতি আবদুল হাই অথবা সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন ওই আসন থেকে মনোনয়ন পাবেন।

মহানগরী ঢাকার ১৫টি আসনের মধ্যে বেশ কিছু আসনে এবার পরিবর্তন আনবে বিএনপি। এর মধ্যে বেশির ভাগ আসনে সমন্বয় করা হবে ২০ দলীয় জোট শরিক এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিকদের সঙ্গে। তবে বৈঠক না হওয়ায় আসনভিত্তিক আলোচনা এখনো হয়নি। তবে নাসির উদ্দিন পিন্টুর ঢাকা-৭ আসনটি গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টুকে ছেড়ে দেওয়ার কথাবার্তা চলছে।

ময়মনসিংহ-১ আসনে আগের মনোনয়নপ্রাপ্ত আফজাল এইচ খানের বদলে বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্সকে দেওয়া হচ্ছে। ময়মনসিংহ-৪ আসনের আগের প্রার্থী এ কে এম মোশাররফ হোসেন অসুস্থ হওয়ায় নির্বাচন করবেন না। ওই আসনে মনোনয়ন নিয়ে দুই প্রার্থীর মধ্যে তীব্র প্রতিযোগিতা চলছে। তবে এর মধ্যে দলের ভাইস চেয়ারম্যান ড্যাব নেতা ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেনের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। আগ্রহী আরেক প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন খান দুলুর নামও আলোচনায় আছে।

ময়মনসিংহ-৯ আসনে খুররম খান চৌধুরী ২০০৮-সহ আগের বেশ কয়েকটি নির্বাচনে প্রার্থী হলেও এবার তীব্র প্রতিযোগিতার মুখে পড়েছেন। সৌদি আরব পূর্বাঞ্চল বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম মোহম্মদ রফিকুল ইসলাম ওই আসনের মনোনয়ন দৌড়ে অনেক দূর এগিয়ে গেছেন। একটি সূত্রের দাবি, লন্ডনে বসবাসরত দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সবুজ সংকেতও তাঁর দিকে।

সমঝোতা হলে টাঙ্গাইল-৮ আসনটি বিএনপি ছেড়ে দেবে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীকে। ওই আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন দলটির উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান। তবে বিএনপির কাছে নিজের ভাই আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর টাঙ্গাইল-৪ আসনটিও কাদের সিদ্দিকী দাবি করছেন বলে জানা গেছে।

নেত্রকোনা-৫ আসনের আগের প্রার্থী মোহাম্মদ আলী মারা গেছেন। কিশোরগঞ্জ-২ আসনে মো. ইদ্রিস আলী ভূঁইয়ার বদলে এবার প্রার্থী করা হচ্ছে সাবেক এমপি মেজর (অব.) আখতারুজ্জামানকে। কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের প্রার্থী মজিবর রহমান মঞ্জু মারা যাওয়ায় ওই আসনেও আসবে নতুন মুখ।

মানিকগঞ্জ-১ আসনের আগের প্রার্থী বিএনপির সাবেক মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন মারা যাওয়ায় তাঁর পরিবারের সদস্যদের মধ্যে একজনকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। তাঁর দুই ছেলে বিএনপির মনোনয়নপত্র কিনেছেন এবং সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। মানিকগঞ্জ-৩ আসনের আগের প্রার্থী হারুনার রশিদ খান মুন্নু মারা যাওয়ার কারণে মনোনয়ন দেওয়া হবে তার মেয়ে আফরোজা খান রিতাকে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বেশ কয়েকটি আসনে এবার প্রার্থী পরিবর্তন হতে পারে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে ইসলামী ঐক্যজোটের প্রয়াত নেতা মুফতি ফজলুল আমিনীর আসনে কেন্দ্রীয় নেতা রুমিন ফারহানা অথবা আশুগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আবু আসিফকে মনোনয়ন দেওয়া হবে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনে আগের প্রার্থী সাবেক এমপি কাজী আনোয়ার হোসেন মারা যাওয়ায় মনোনয়ন পাচ্ছেন তাঁর ছেলে কাজী নাজমুল হোসেন তাপস। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনে হারুন আল রশিদের বদলে কেন্দ্রীয় নেতা খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামলের প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

কুমিল্লার ১১টি আসনের মধ্যে অন্তত পাঁচটিতে এবার প্রার্থী পরিবর্তন করবে বিএনপি। এর মধ্যে কুমিল্লা-১ আসনের পাশাপাশি কুমিল্লা-২ আসনেও স্থায়ী কমিটির প্রবীণ সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন প্রার্থী হচ্ছেন। কুমিল্লা-২ আসনের সাবেক এমপি, স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য এম কে আনোয়ার মারা গেছেন। তাঁর পরিবারের সদস্যদের মধ্যে কেউ নির্বাচন করতে আগ্রহী নন। দলের কোনো ভালো প্রার্থীও নেই ওই আসনে। অন্যদিকে শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ পলাতক থাকায় তাঁর পরিবারের যেকোনো একজন সদস্যকে মনোনয়ন দেওয়া হবে কুমিল্লা-৩ আসনে।

কারাগারে থাকায় কুমিল্লা-৪ আসন থেকে মঞ্জুরুল আহসান মুন্সী নির্বাচন করতে না পারায় ২০০৮ সালে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল তাঁর স্ত্রী মাজেদা আহসানকে। কিন্তু এবারে মুন্সী নিজেই নির্বাচন করবেন। অবশ্য সমঝোতা হলে আসনটি ছেড়ে দেওয়া হবে জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতনকে। এ এস এম আলাউদ্দিন ভূঁইয়ার বদলে কুমিল্লা-৫ আসনটি এবার ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদকে। কুমিল্লা-৭ আসনের আগের প্রার্থী খোরশেদ আলম মারা গেছেন। ওই আসনটি শরিক দল এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদকে ছেড়ে দেবে বিএনপি।

চাঁদপুর জেলার দুই থেকে তিনটি আসনে প্রার্থী পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর মধ্যে ২০০৮ সালে প্রার্থী হলেও বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বিএনপি সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এহছানুল হক মিলন। কোনো কারণে তিনি নির্বাচন না করতে পারলে স্ত্রী নাজমুন নাহার বেবী প্রার্থী হবেন। চাঁদপুর-২ আসনের আগের প্রার্থী নুরুল হুদা মারা গেছেন। তাঁর জায়গায় ড. জালালউদ্দিন অথবা আতাউর রহমান ঢালীকে মনোনয়ন দেওয়া হবে।

চাঁদপুর-৩ আসনে আগের প্রার্থী জি এম ফজলুল হক অসুস্থ ও নিষ্ক্রিয় হওয়ায় নিশ্চিত মনোনয়ন পাচ্ছেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক।

লক্ষ্মীপুর-১ আসনে বিএনপির আগের প্রার্থী নাজিম উদ্দিনের বদলে জোট প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পাচ্ছেন এলডিপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম।

লক্ষ্মীপুর-৪ আসনে বিএনপির অনেক শক্ত ও ভালো প্রার্থী এ বি এম আশরাফ উদ্দিন নিজান। ২০০৮ সালে অনেক প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেও তিনি নির্বাচিত হয়েছিলেন। কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সমঝোতা হলে আসনটি ছেড়ে দিতে হবে জেএসডির সভাপতি আ স ম রবকে।

চট্টগ্রাম-১৪ আসন গতবার জামায়াতের প্রার্থী আ ন ম শামসুল ইসলামকে ছেড়ে দেওয়া হলেও এবার জোটের পক্ষে নিশ্চিত মনোনয়ন পাচ্ছেন এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ
সূত্র : কালের কন্ঠ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ