প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কুমিল্লা সদর-৬
আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নে এগিয়ে হাজী বাহার

মাহফুজ নান্টু, কুমিল্লা : কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আ.ক.ম বাহা উদ্দিন বাহার আসন্ন একাদশতম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নে এগিয়ে থাকবেন বলে মনে করছেন কুমিল্লার প্রবীন রাজনীতিবিদ ও সুশীল সমাজ। কারন হিসেবে তারা উল্লেখ করেছেন স্বাধীনতার পরে কুমিল্লা সদর আসনে তৃনমূল পর্যায়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে দলকে সুসংগঠিত করা, জামায়াত শিবিরকে প্রতিহতসহ এলাকার উন্নয়নে ব্যাপক অবদান রাখার কারনেই দলীয় মনোনয়নে এগিয়ে থাকবেন হাজী বাহার।

তবে বর্তমান সংসদ সদস্য হাজী আ.ক.ম বাহা উদ্দিন বাহারের সাথে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী সদর আসন থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা অন্য নেতৃবৃন্দ। আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে আরো যারা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন তারা হলেন, জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক আলহাজ্ব মো. ওমর ফারুক, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক মাসুদ পারভেজ খান ইমরান, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আঞ্জুম সুলতানা সীমা, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কবিরুল ইসলাম শিকদার, আমেরিকান চেম্বারের সাবেক সভাপতি আফতাব উল ইসলাম মঞ্জু, কুমিল্লা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আয়েশা জামান, কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক অধ্যক্ষ আফজল খান, আওয়ামী লীগের আইনজীবী পরিষদের সদস্য একেএম ফয়েজ।

এদিকে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী সদর আসনের বর্তমান সাংসদ ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আ.ক.ম নিয়ে আমাদের সময়.কমকেবলেন, চাঁদাবাজ,সন্ত্রাস ও মাদকমুক্ত কুমিল্লা নগরী গড়তেই কাজ করে যাচ্ছি। চান আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার। তিনি মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, এই আসনে পূর্বে অনেককে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, কেউ আসন উদ্ধার করতে পারেনি।

১৯৭৩সালের পর সদর আসন আমি উদ্ধার করে জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিয়েছি। ২০০৮সাল ও ২০১৪সালে আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছি। তিনি বলেন,আসলে আমার বিপরীতে যারা মনোনয়ন নিয়েছেন তারা নির্বাচনের জন্য নয়, আমাকে ডিস্টার্ব করার জন্য মনোনয়ন নিয়েছেন।

এক সময় কুমিল্লা সদর এলাকা ছিলো মাদকের অভায়ারণ্য। তবে এখন এই জনপদ অনেকটাই মাদকমুক্ত তবে তা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। মানুষকে সাথে নিয়ে সেই কাজটিও সম্পন্ন করতে চাই।

তিনি বলেন, কুমিল্লাকে একটি শান্তির নগরী হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে আমি অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে এসেছি। কুমিল্লা একটি পথিকৃত ও উন্নয়ন সম্ভাবনাময়ী জনপদ । আর এ জনপদের কেন্দ্র হলো কুমিল্লা সদর এলাকা। আর আমি মনেপ্রানে বিশ্বাস করি এবং এই দর্শনটিই লালন করি কুমিল্লা এগিয়ে গেলে পুরো বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে।

এমপি বাহার বলেন,মনোনয়ন পেলে এই আসন জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে পারবো। কারণ আমি গত ১০বছরে সদর আসন ও কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন মিলিয়ে আড়াই হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন করেছি। জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নে এখন অপ্রতিরোধ্য। উন্নয়ন একটি চলমান প্রক্রিয়া। কুমিল্লায় আরো ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করার সুযোগ রয়েছে। আমি ৫৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়,৬৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়,১৬টি মাদ্রাসা ভবন,কয়েকটি কলেজ ভবন নির্মাণ ও সংস্কার করেছি। এছাড়া শাসনগাছা ফ্লাইওভার,পালপাড়া ব্রিজ,টিক্কারচর ব্রিজ ও আমতলী ব্রিজ নির্মাণ,শহীদ ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত স্টেডিয়াম পুন:নির্মাণ করেছি।

এছাড়া চিকিৎসা,ক্রীড়া ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রেও ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেছি। এদিকে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থারও ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আমি পুনরায় বিজয়ী হয়ে উন্নয়নের এই ধারাকে অব্যাহত রাখতে চাই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ