প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান
বগুড়ায় হোটেল ম্যানেজার সহ ৯ জোড়া নারী পুুরুষের জরিমানা

আরএইচ রফিক, বগুড়া : বগুড়া শহরের বিভিন্ন আবাসিক হোটেল এখন মিনি পতিতালয়ে পরিনত হয়েছে । মঙ্গলবার শহরের শেউজগাড়ী এলাকায় মিনি পতিতালয় হিসাবে চিহ্নিত আবাসিক হোটেল গোধূলীতে অভিযানে চালিয়ে অনৈতিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকার অপরাধে হোটেল কেয়ার টেকার সহ ৯ জোড়া নারীপুরুষ কে আটক করে জরিমানা আদায় করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

জানা গেছে , মঙ্গলবার দুুপুরে বগুড়া ৪র্থ আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সহায়তায় শহরের সেউজগাড়ি এলাকার কারমাইকেল রোডের আবাসিক হোটেল গধুলিতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন বগুড়ার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জগৎ বন্ধু মন্ডল।
গোপন এক সূত্রের ভিত্তিতে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হোটেল গোধূলীতে অভিযান চালায় আদালত। এ সময় প্রায় ২ঘন্টা সময় নিয়ে হোটেলের বিভিন্ন কক্ষে অভিযান কালে সেখান থেকে ৯ জোড়া নারী-পুরুষকে অনৈতিক কার্যকলাপে লিপ্ত অবস্থায় আটক করে ভ্রাম্যমান আদালত।

ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক হোটেলটিতে অনৈতিক কার্যকলাপে ব্যাবস্থা রাখার অপরাধে হোটেল কেয়ার টেকার জাহিদুল ইসলামকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ১০ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দেন।

শেষ খবর পয়র্যন্ত কেয়ারটেকার জাহিদুল ইসলাম জরিমানার টাকা পরিশোধ করায় সে কারাদন্ড থেকে বেঁচে যায়। এ অভিযানে ৯ জোড়া নারী-পুরুষের মধ্যে ৪ জোড়া কলেজের ছাত্র-ছাত্রীও ছিল। আটককৃতরা অপরাধ স্বীকার করায় তাদের প্রত্যেককে ২ শ’ টাকা করে জরিমানা করা হয়। অভিযানের সময় হোটেল মালিক ও ম্যানেজারকে পাওয়া যায়নি।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জগৎ বন্ধু মন্ডল সাংবাদিকদের জানান,অভিযানের আগেই হোটেল মালিক ও ম্যানেজার পালিয়ে যাওয়ায় তাদেরকে পাওয়া যায়নি। হোটেলের কেয়ারটেকার কে ১০ হাজার এবং অনৈতিক কাজে জড়িতরা অপরাধ স্বীকার করায় তাদের প্রত্যেককে ২ শ’ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে বলে জানান তিনি ।

উল্লেখ্য ,নামসর্বস্ব আবাসিক হোটেল গোধুলি মূলত্ব একটি মিনি পতিতালয় । হরহামেশাই এই হোটেলে মাদকের ব্যবস্থা ও যৌন কর্মীর উপস্থিতির কারনে বিভিন্ন পেশার মানুষ টাকার বিনিময়ে সেখানে এসে মনোরঞ্জনের সুযোগ পেয়ে থাকেন। এর আগেও বেশ কয়েকবার ঐ হোটেলে একই অপরাধে অভিযান পরিচালিত হয়েছিল।

অন্যদিকে বগুড়া শহরের তিন মাথা ,কেন্দ্রীয় বাস টার্মিন্যাল মাটিডালী এলাকা সহ রাজাবাজার ,ফতেহআলী বাজার অভ্যান্তরে কয়েকটি আবাসিক হোটেল এখন নারী দেহ ব্যবস্যার জন্য চিহ্নিত হলেও নিয়মিত নজরদারী এবং অভিযানের অভাবে দিন দিন নারী ব্যবস্যার প্রসার ঘটেই চলেছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ