প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডিবি পরিচয়ে ব্যবসায়ীকে আটকের পর ডাকাতি, সংঘবদ্ধ চ‌ক্রের প্রধানসহ আটক ৮

সুজন কৈরী: ডিবি পরিচয়ে প্রথমে ব্যবসায়ীকে আটক পরে ডাকাতি করা সংঘবদ্ধ ডাকাত চ‌ক্রের প্রধান ও ডিবির এসি পরিচয়দানকারী একেএম রানা (৩৮)সহ ৮ সদস্যকে আটক করেছে পিবিআই। আটক অন্যরা হলো- দেলোয়ার হোসেন (৫০), মো. সোহাগ খদকার (৩১), মো. জাবেদ আহমেদ ওরফে বাবু (৩৭), মো. বুলবুল আহমদ (৩২), মো. নাজমুল হাসন (২৪), আসাদুজ্জামান (৩৫) ও মো. হারুন ওরফে হিরা (৩২)।

মঙ্গলবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে পিবিআই সদর দফতরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটি জানায়, সোমবার সন্ধ্যায় সূত্রাপুরের ভিক্টোরিয়া পার্কের সামনে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে পিবিআই ঢাকা মে‌ট্রোর একটি বিশেষ টিম। এ সময় ৪টি মোটর সাইকল, ৩টি ওয়ার্লেস সেট, হ্যান্ডকাফ ১ জোড়া, খেলনা পিস্তল ২টি, চাপাতি ১টি ও চাকু ১টি উদ্ধারের পর জব্দ করা হয়।

পিবিআই জানায়, রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকার বাসিন্দা মো. মোস্তাফিজুর রহমান গত ২৫ অক্টোবর বিকালে পল্টন থেকে বাসায় যাওয়ার জন্য তিনি এবং তার বন্ধু মো. পলাশ (২৫) সুপ্রভাত গাড়িত উঠেন। বাসটি নর্দ্দা আসার পর কয়কজন ব্যক্তি বাসটির সামন ২টি মোটর সাইকল দিয়ে ব্যারিকেড দেয়। তারা বাসের ভিতর উঠে। তাদের ১জনের কাছে ওয়ার্লেস সেট ও ২ জনর পরনে ডিবি লেখা জ্যাকেট ছিল। তারা পলাশ ও মোস্তাফিজকে বলে ‘আমরা ডিবির লোক, আমাদর কাছ তথ্য আছ তোরা ইয়াবা খাস, তোদের কাছে ইয়াবা আছে’। এই বলে মোস্তাফিজুর ও পলাশকে জোর করে বাস থেকে নামিয়ে ডিবি পরিচয়দানকারীরা চড়-থাপ্পর, কিল-ঘুষি মারতে থাকে এবং মোস্তাফিজের পকেটে থাকা নগদ ৪২হাজার টাকা ও ২টি মোবাইল
ফোন সেট (মূল্যসহ মোট ৯২হাজার ৫০০ টাকা), সিঙ্গাপুরের ওয়ার্ক পারমিট কার্ড ও তার বন্ধুর কাছে থাকা নগদ ১৫হাজার টাকা ও ১টি মোবাইল ফোন সেট ( মূল্যসহ মাট ৪১হাজার টাকা) সর্বমোট ১ লাখ ৩৩হাজার ৫০০টাকা ছিনিয়ে নেয়।

এ সময় পলাশের কাছে ইয়াবা আছে বলে তার বন্ধুকে সার্চ করে। কিছু না পেয়ে তাকে ছেড়ে দেয়। পর মোস্তাফিজের ব্যাগে ইয়াবা আছে বলে তাকে জার করে মোটর সাইকেলে উঠায়। এ সময় মোস্তাফিজ ‘আমাকে কোথায় নিয়ে যাবেন’ জিজ্ঞেস করলে ডিবিপরিচয়দানকারীদের একজন(যার হাত ওয়ার্লেস ছিল)বেলে ‘তোকে থানায় নিয়ে সার্চ করে মামলা দিয়ে দিব’। এরপর মোস্তাফিজকে নিয়ে নর্দ্দা বাসষ্ট্যান্ড, গুলশান, বাড্ডা, হাতিরঝিল এলাকায় ঘুরতে থাকে। এ সময় মোস্তাফিজ আবারো ডিবি পরিচয়দানকারীদের ‘আমাক কোন থানায় নিয়ে যাবেন’ জিজ্ঞেস করলে, তারা বলে ‘এইতো সামনে’। এই বলে মোস্তাফিজকে একটি ফাঁকা জায়গায় নিয়ে মোটর সাইকল থামানার চেষ্টা করে। কিন্তু মানুষজন দেখে আর থামায় না।

একপর্যায়ে মোস্তাফিজকে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাধীন বিএসটিআই মোড়ের ফাঁকা জায়গায় নিয়ে আসে। মোস্তাফিজকে বলে ‘তোকে আজকের মত ছেড়ে দিলাম। তুই আর ইয়াবা খাবি না’। এই বলে তার কাছ থেকে ব্যাগটি (ব্যাগে ১৩লাখ টাকা ছিল) নেয়ার চষ্টা করে। মোস্তাফিজ দিতে অস্বীকার করলে ডিবি পরিচয়দানকাীদের একজন বলে ‘ওকে শেষ করে দে’। এরপর তাদের একজন মোস্তাফিজের গলায় চাকু ধরে এলাপাতারি কিল-ঘুষি, চড়-থাপ্পর রেতে থাকে। ডাকাত সদস্যদের কবলে পড়ার বিষয়টি বুজতে পেরে মোস্তাফিজ ডাকাত ডাকাত বলে ডাক-চিৎকার করতে থাকেন। আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে ব্যাগটি ছেড়ে দ্রুত পালিয় যায় ডাকাত সদস্যরা। এ ঘটনায় মোস্তাফিজুর বাদী হয়ে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে মামলাটি পিবিআই ঢাকা ‌মে‌ট্রো তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানা থেকে অধিগ্রহণ করে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করে।

পরে পিবিআইয়ের ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদারের সার্বিক তত্ত্বাবধান ও দিক-নির্দশনায় সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রটির অবস্থান সম্পর্কে তথ্য পাওয়ার পর পরই অভিযান চালিয়ে চক্রের প্রধানসহ ৮জনকে আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা ঘটনার বিষয়টি স্বীকার করেছে। তারা জানায়, দীর্ঘদিন ধরে রাজধানীর ব্যবসায়ীদের আটক করে ডাকাতি করছে।

তাদের জিজ্ঞাসাবাদে পিবিআই জানত পারে, আটককৃতরা ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি করে থাকে। চক্রটি তাদের নিয়োজিত সোর্সের মাধ্যম রাজধানীর ব্যবসা কেন্দ্র তাতী বাজার, শাখারী বাজার, ইসলামপুরসহ বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ীদর বড় অংকর নগদ টাকার লেনদেনের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে এবং টাকা পয়সা নিয়ে যাওয়ার সময় অনুসরন করে। পরে রাস্তায় নিজদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছে অবৈধ জিনিস আছে বলে আটক করে এবং মোটর সাইকেল যোগে বা কখনো তাদের নির্ধারিত মাইক্রাবাসে করে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যায়। পরে নিরিবিলি ও সুবিধাজনক স্থানে নিয়ে অ‌স্ত্রের ভয় দেখিয়ে মারধর করে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টাকা পয়সা, মোবাইলসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নিয় যায়। ডাকাত দলর নিয়োজিত সোর্সকে লুন্ঠিত টাকার ৪০ভাগ দিয়ে দেয়। ঘটনায় জড়িত পলাতক ও সহযোগি অন্যান্য ডাকাতদের আটকের চেষ্টা চলছে এবং ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত মাইক্রাবাসসহ ডিবি পুলিশ লেখা জ্যাকট উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।