প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফুসফুস সুস্থ রাখতে চাই দূষণমুক্ত বায়ু

ডেস্ক রিপোর্ট : ফুসফুস ভালো রাখতে হলে চাই দূষণমুক্ত বায়ু। কিন্তু বাংলাদেশের বাতাস এতই দূষিত যে শ্বাস নিলেই দূষিত বাতাসে ভরে ওঠে ফুসফুস; আক্রান্ত হয় শ্বাসতন্ত্র। পাশাপাশি বাড়ছে ধূমপান ও তামাক সেবন। রয়েছে ইটের ভাটা ও চুলার জ্বালানি থেকে নির্গত ধোঁয়ার উপদ্রব। ফুসফুসের একটি অসুখ ওয়ার্ল্ড সিওপিডি দিবস উপলক্ষে গতকাল সোমবার বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশন আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে বিশেষজ্ঞরা এসব তথ্য তুলে ধরেন। ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের সহায়তায় ‘কালের কণ্ঠ’ ও ‘চ্যানেল আই’ এই গোলটেবিল বৈঠকের সহ-আয়োজক ছিল। সিওপিডি বা ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ ফুসফুসের জটিল অসুখ।

বৈঠকে জাতীয় অধ্যাপক ও ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ডা. ব্রিগেডিয়ার (অব.) আব্দুল মালিক বলেন, বিশ্বে অসংক্রামক রোগের প্রকোপ বেড়েই চলছে। প্রতিবছর যত মানুষের মৃত্যু ঘটে তার ৬৭ শতাংশই অসংক্রামক রোগের কারণে মারা যাচ্ছে। বাংলাদেশেও অসংক্রামক রোগের মাত্রা বেড়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে হৃদেরাগ ও শ্বাসতন্ত্রের রোগ খুবই বিপজ্জনক হয়ে উঠছে। তাই মানুষের সচেতনতা আরো বাড়াতে হবে। শ্বাসতন্ত্রের রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণেও সরকারি-বেসরকারি মহলকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে।

বৈঠকের সভাপতি ও বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. রাশেদুল হাসান বলেন, বায়ুদূষণ থেকে নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করতে হবে। অসুখের উপসর্গ দেখা দিলেই চিকিৎসকের কাছে আসতে হবে। সময়মতো চিকিৎসকের কাছে না এলে পরে বিপদ বাড়তে থাকে। আর এখন অনেকটা সহজেই সিওপিডির চিকিৎসা করা যায়।

কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, দরিদ্র মানুষের মধ্যে, বিশেষ করে কমিউনিটিভিত্তিক নারীদের মধ্যে চুলার ধোঁয়ার বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানো দরকার। কারণ অনেক ক্ষেত্রেই রান্নার চুলার ধোঁয়া থেকে নারীরা শ্বাসতন্ত্রের সমস্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন।

নাট্যব্যক্তিত্ব মামুনুর রশিদ বলেন, ওষুধের বাণিজ্যের কারণে মানুষ যাতে বিপদগ্রস্ত না হয় সেদিকে ওষুধ কম্পানিগুলোকে খেয়াল রাখতে হবে। বিশেষ করে যেভাবে অ্যান্টিবায়োটিক রোগ প্রতিরোধক্ষমতা নষ্ট করছে, তা খুবই উদ্বেগের বিষয়। তাই ওষুধ কম্পানিগুলোকে ওষুধের বিকল্প কিছু ভাবতে হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সাংগঠনিক মহাপরিচালক নাহিদা রহমান সুমনা বলেন, ‘আমাদের দেশে অ্যালার্জি টেস্টের বিষয়ে মানুষের মধ্যে আরো সচেতনতা বাড়ানো দরকার। ফ্লু ভ্যাকসিনর ব্যবহারও বাড়াতে হবে। তরুণ প্রজন্মের মধ্যে ধূমপান, সিসা সেবনের মাত্রা বেড়ে চলছে—সেটাও বন্ধে আরো কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।

লাং ফাউন্ডেশনের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. আলী হোসেন বলেন, ‘দীর্ঘমেয়াদি ফুসফুসের রোগের জন্য নির্মল বায়ুর বিকল্প নেই। কিন্তু আমাদের দেশের পরিবেশ এত বেশি দূষিত হয়ে পড়েছে যে ফুসফুস ভালো রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে।’

ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল মুক্তাদির বলেন, দেশের ওষুধ উৎপাদন খাত এগিয়েছে। শ্বাসতন্ত্রের অসুখের সব ওষুধই দেশে রয়েছে। তবে অসময়ে ডাক্তারের কাছে গেলে তো লাভ হবে না!

বাংলাদেশ লাং ফাউন্ডেশনের যুগ্ম সম্পাদক ডা. মোহাম্মদ সাকুর খানের সঞ্চালনায় এ গোলটেবিল বৈঠকে আরো আলোচনা করেন নাট্যব্যক্তিত্ব জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, শিশুসাহিত্যিক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আলী ইমাম, সংগীতশিল্পী নাশিদ কামাল, বাংলাদেশ পরিবেশবাদী আইনজীবী সংস্থার (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, লাং ফাউন্ডেশনের সহসভাপতি অধ্যাপক ডা. মোস্তাফিজুর রহমান, আন্তর্জাতিক সম্পাদক ডা. কাজী সাইফউদ্দিন বেননূর, ডা. শেখ শাহিনুর হোসেন প্রমুখ।
সূত্র : কালের কন্ঠ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ