প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমজাদ হোসেনের শারীরিক অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি

মহিব আল হাসান : দেশবরেণ্য অভিনেতা ও নির্মাতা আমজাদ হোসেনের কোনো ধরণের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়নি। গতকাল সকালে হঠাৎ মস্তিষ্কে রক্ত ক্ষরণ হলে তাকে তেজগাঁও ইমপালস্ হাসপাতালে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। আজ রাত ১২টার আগে তার চিকিৎসার বিষয়ে কোনো কথা বলতে পারবেন না বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির মহাসচিব বদিউল আলম খোকন।

বদিউল আলম খোকন বলেন, ‘গতকাল সকাল ১০টায় আমজাদ ভাইকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডাক্তার উনাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। আজ সকালে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি বলে জানান। তবে আজ ১২টার পর ডাক্তাররা তার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবেন। এরপর আমাদের সাথে ডাক্তাররা কথা বলবেন।

গতকাল সকাল ৯টার দিকে আমজাদ হোসেনের স্ত্রী সুরাইয়া আক্তার তাকে (আমজাদ হোসেন) বিছানার নিচে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। কখন তিনি অচেতন হয়েছেন, তা আঁচ করতে পারেননি তিনি। এরপর সকাল ১০টার দিকে তাঁকে ইমপালস্ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
আমজাদ হোসেন একাধারে অভিনেতা, পরিচালক হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছেন। তিনি ১৯৬১ সালে ‘হারানো দিন’ চলচ্চিত্রে অভিনয় দিয়ে সিনেমায় পা রাখেন। পরবর্তীতে চিত্রনাট্য রচনা ও পরিচালনায় মনোনিবেশ করেন।

তার পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘আগুন নিয়ে খেলা’ (১৯৬৭)। পরে তিনি নয়নমনি (১৯৭৬), গোলাপী এখন ট্রেনে (১৯৭৮), ভাত দে (১৯৮৪) সিনেমা নির্মাণ করে প্রশংসিত হন।

‘গোলাপী এখন ট্রেনে’ এবং ‘ভাত দে’ চলচ্চিত্রের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদক (১৯৯৩) ও স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করে।

এছাড়া সাহিত্য রচনার জন্য তিনি ১৯৯৩ ও ১৯৯৪ সালে দুইবার অগ্রণী শিশু সাহিত্য পুরস্কার ও ২০০৪ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার লাভ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত