প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চট্টগ্রামের নেটে সাকিবের কিছু সময়

বিডিনিউজ : বল হাতে ছুটছিলেন মুস্তাফিজুর রহমান। ইশারায় থামিয়ে দিয়ে সাকিব আল হাসান বললেন, “আস্তে করিস কিন্তু…!” মুস্তাফিজ হেসে বলেন, “আজকে আমার বল এমনিতেই আস্তে হচ্ছে ভাই।” আঙুলের চোট কাটিয়ে মাত্র কয়েকদিন হলো নেটে ফিরেছেন, সাকিব তাই শুরুতে একটু সতর্ক। সময়ের সঙ্গে অবশ্য বাড়ল গতি, আস্তে-জোরে সব ডেলিভারিই হলো। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের দুই নেট মিলিয়ে বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক ব্যাট করলেন ৪৫ মিনিট।

সাকিবের অপেক্ষায় নেট প্রস্তুত ছিল অনেকক্ষণ ধরেই। রোববার সকালে চট্টগ্রামে এসেছে বাংলাদেশ দলের প্রথম ভাগ। দ্বিতীয় ভাগে ক্রিকেটারদের মধ্যে দুপুরে এসেছেন সাকিব ও মাহমুদউল্লাহ। এই দুজন বিমানবন্দর থেকে সরাসরিই চলে এসেছেন মাঠে, ততক্ষণে অন্যদের নেট সেশন শেষ।

ড্রেসিং রুমের সিড়ি বেয়ে সাকিব মাঠে নামতেই বেশ তৎপর হয়ে উঠলেন স্টিভ রোডস। চিৎকার করে সাকিবকে ডেকে বললেন দ্রুত নেটে নেমে যেতে। পেস বোলিং খেলা দিয়ে শুরু ব্যাটিং। মুস্তাফিজ ও আরিফুল হকের পাশাপাশি নেট পেসারদের খেললেন সাকিব। পরে আরেক নেটে মেহেদী হাসান মিরাজের স্পিনের সঙ্গে খেললেন নেট স্পিনারদের। শুধু নক করাই নয়, পুরো দমে ব্যাটিংয়েরই চেষ্টা করেছেন সাকিব। খেলেছেন সব ধরনের শট। উড়িয়ে মারা বেশ কিছু শটে হয়তো বোঝার চেষ্টা করেছেন আঙুলের জোর কতটা ফিরল।

আঙুলের চোট মূলত প্রভাব ফেলছিল সাকিবের ব্যাটিংয়েই। নেটের পাশে বসে তাই পুরো সময়ই অধিনায়কের ব্যাটিং গভীর মনোযোগে দেখেলেন বাংলাদেশ কোচ। লম্বা সময় ব্যাটিং করে প্যাড-গ্লাভস খুলে তখনই আবার নেমে গেলেন বোলিংয়ে। নেটে বেশ কিছুক্ষণ বোলিং করলেন মাহমুদউল্লাহকে।
খানিক পর আবার ডাক পেলেন কোচের। এবার অধিনায়ককে নিয়ে কোচ চলে গেলেন মাঠের মাঝে, উইকেট দেখতে। কিউরেটরকে নিয়ে দীর্ঘসময় চলল উইকেট নিয়ে আলোচনা। সেখান থেকে ফিরে আবার নেটে বোলিং। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসছিল বলেই হয়তো শেষ পর্যন্ত ক্ষান্তি দিলেন।

নেটে সাকিবের ব্যাটিং যা দেখলেন, তাতে দারুণ সন্তুষ্ট মনে হলো রোডসকে। অধিনায়ক সাকিবের কৌশলগত দিক নিয়ে মুগ্ধতার কথা আগেও বারবার বলেছেন বাংলাদেশ। অনুশীলন শেষে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে রোডস অধিনায়ককে ফিরে পাওয়ার উচ্ছ্বাস প্রকাশ করলেন স্বতঃস্ফূর্তভাবে।

“ওকে ফিরে পাওয়া দারুণ ব্যাপার। আমি বরাবরই বলে আসছি, সাকিব মাস্টার ট্যাকটিশিয়ান। মিরপুর টেস্টে অধিনায়ক হিসেবে রিয়াদ বেশ ভালো করেছে। তবে সাকিবের মানের একজন, ব্যাটিং-বোলিংয়ের পাশাপাশি ওর চাতুর্য ও ট্যাকটিকাল সচেতনতা বাংলাদেশ দলের সাফল্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। আমরা ওকে দুহাত বাড়িয়ে দলে স্বাগত জানাচ্ছি।”
“ওর আঙুলের অবস্থা এখন মনে হচ্ছে বেশ ভালো। আজকে ৪৫ মিনিট লম্বা নেট সেশন কাটিয়েছে। সব মিলিয়ে খুব ভালো মনে হচ্ছে অবস্থা।”

আঙুলের চোটের কারণে দেশের মাটিতে সবশেষ দুটি টেস্ট সিরিজ খেলতে পারেননি সাকিব। শেষ পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এবার চট্টগ্রাম টেস্টে টস করতে নামলে, এটিই হবে এই দফায় নেতৃত্ব পাওয়ার পর দেশের মাটিতে অধিনায়ক সাকিবের প্রথম টেস্ট।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ