প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইউরোপীয় সাংসদদের হুঁশিয়ারিতে ভয় পান না হানিফ

রবিন আকরাম : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বাংলাদেশের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যরা। তবে তাদের উদ্বেগ এবং হুঁশিয়ারিকে পরোয়া করে না বলে জানিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। তথ্য- ডয়চে ভেলে

গ্রহণযোগ্য নির্বাচন না হলে বাংলাদেশে শুল্ক ও বানিজ্য সুবিধা বন্ধ করে দেয়া হবে– ইউরোপীয় পার্লামেন্টের কোনো কোনো সদস্যের বক্তব্যে এমন হুঁশিয়ারি ছিল বলেও জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও মুখপাত্র মাহাবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, এসব হুমকিতে আমরা ভয় পাই না। বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে তারা কথা বলেন, অথচ মিয়ানমার এত রোহিঙ্গাকে নির্যাতন করল, আমরা এক বছরেরও বেশি সময় ধরে তা দেখেছি, সেটা নিয়ে তারা কোনো হুমকি দিচ্ছে না। তারা মনে করলে আমাদের যে বাণিজ্য-সুবিধা দেয়, সেটা বন্ধ করে দিক। অ্যামেরিকা তো জিএসপি বন্ধ করে দিয়েছে, তাতে কী হয়েছে? বরং আমাদের গার্মেন্টস সেক্টর আরো মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। আসলে তারা আমাদের যে সুবিধা দেয়, সেটা তাদের স্বার্থেই দেয়। কারণ, আমাদের চেয়ে কম দামে আর কোনো দেশ তাদের পোশাক দিতে পারে না। বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ। এখন বিদেশিদের হুমকি-ধামকি বা চোখ রাঙানির দিন হয়তোবা শেষ।

সম্প্রতি ফ্রান্সের স্ট্রাসবুর্গে বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনায় ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্যরা বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিদ্যমান বাণিজ্য সুবিধা বহাল রাখতে চাইলে বাংলাদেশকে অবশ্যই মানবাধিকার ও অন্যান্য ইস্যুতে তার অঙ্গীকারগুলো পূরণ করতে হবে। শান্তিপূর্ণ, অংশগ্রহণমূলক, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের তাগিদও দিয়েছেন তারা। বলেছেন, ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে যে ধরনের সহিংসতা হয়েছিল, তা তারা আর দেখতে চান না। প্রখ্যাত আলোকচিত্রী শহীদুল আলমের বন্দিদশা নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে তাদের।

ইউরোপীয় পার্লামেন্ট সদস্যের মন্তব্য প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, প্রয়োজন হলে তারা পর্যবেক্ষক পাঠাক। তাই বলে এখনই নির্বাচন নিয়ে কিছু বলার মতো সময় আসেনি। সব দলই তো নির্বাচনে আছে। সুন্দরভাবে রাজনৈতিক কার্যক্রম চলছে। তাহলে এই সময় তাদের এই হুমকির মানে কী? নির্বাচন শেষেও তারা বলতে পারত। আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, দেশে গণতন্ত্র বজায় থাকবে৷ আগামী নির্বাচন সব দলের অংশগ্রহণে একটা ভালো নির্বাচনই হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ