Skip to main content

চৌদ্দদলীয় জোটই এখন পর্যন্ত এগিয়ে : সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম

আশিক রহমান : জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নয়, আজ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন চৌদ্দদলীয় জোটই নিবাচনে এগিয়ে আছে বলে মনে করেন শিক্ষাবিদ সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, নির্বাচনী মাঠে এখন প্রতিদিন নানা ধরনের ঘটনা ঘটছে। পরিস্থিতির প্রতিনিয়তই পরিবর্তন হচ্ছে। কে কখন এগিয়ে যায় বা পিছিয়ে পড়ে বলা কঠিন। তবে আজ পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে, মানুষের সমর্থনে আওয়ামী লীগই এগিয়ে আছে বলেই মনে হয় আমার। তিনি আরও বলেন, নির্বাচনী মাঠে আওয়ামী লীগ অন্যদের তুলনায় সুবিধাজনক অবস্থানে আছে। আওয়ামী লীগ এখন গোছানো। অনেক আগে থেকেই তারা নির্বাচনী মাঠে নেমেছে। বিগত বছরগুলোতে সরকার প্রচুর উন্নয়নমূলক কাজ করেছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। স্থানীয় সংসদ সদস্যরা অনেক কাজ করেছেন। কাঁচা রাস্তা পাকা হয়েছে। বিদ্যুৎ, রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কৃষিসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ হলেই গ্রামের মানুষ তা গ্রহণ করে। পছন্দও করে থাকে। মানুষের পছন্দ অনুযায়ী স্থানীয় সংসদরা করতে পারছেন এবং বিগত ছয়মাসে তা অনেক বাড়িয়ে দিয়েছেন। এর ফলে অন্যদের তুলনায় আওয়ামী লীগ এগিয়ে আছে। এক প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন নিয়ে আমি উঠতে-বসতে সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলি। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গেও নির্বাচন নিয়ে কথা হয়। সবার সঙ্গে কথা বলে যা মনে হচ্ছে, মানুষ আওয়ামী লীগকে সমর্থন করছে। আপাতত পাল্লা ভারী আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন জোটেরই। তিনি বলেন, দুই জোটই অনেক শক্তি নিয়ে নির্বাচনী মাঠে নেমেছে। দলগুলোর প্রার্থী ঘোষণা হয়ে গেলে, সত্যিকার অর্থে নির্বাচনী যুদ্ধ শুরু হয়ে গেলে প্রতিদিনই পাল্লাটা উঠবে নামবে । শেষ কথাটি বলার সময় এখনো আসেনি। কারণ অনেকেই ভোট কেন্দ্রে গিয়েও মত পরিবর্তন করেন। আগামী সাত দিনে অনেককিছুই পরিবর্তন হবে। এই সাত দিনেই অনেক কিছু বলে দেবে। এমনও হতে পারে এই সাত দিনে আওয়ামী লীগ আরও এগিয়ে গেছে কিংবা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এগিয়ে যাচ্ছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, ২০ শতাংশ মানুষ কাকে ভোট দেবেন সেই সিদ্ধান্তটি শেষমুহূর্ত পর্যন্ত নেন না। এর মধ্যে বড় একটা অংশ তরুণ ভোটার। তারা যে দলকে ভোট দেবে তারাই জয়লাভ করবে। নির্বাচনের দিন পর্যন্ত জানি না কে কাকে ভোট দেবেন। এই ২০ শতাংশ ভোটের মাঠে গুরুত্বপূর্ণ রোল প্লে করবে। নিয়ামকের ভূমিকায় থাকবে। ৮০ শতাংশ ভোটার মোটামুটি ৩৫ শতাংশ করে ভাগ হয়ে আওয়ামীল লীগ-বিএনপিতে। ১০ শতাংশ জাতীয় পার্টি-জামায়াতে ইসলামী এবং অন্যান্য দলগুলো। এই ১০ শতাংশও নির্বাচনে জয়-পরাজয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকবে।

অন্যান্য সংবাদ