প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘বাঁশের চেয়ে কঞ্চি দড়’!

অসীম সাহা : হিন্দু হঠাৎ করে মুসলমান হলে খুব বেশি বেশি গরু খেতে শুরু করে। গরু খেয়ে সে বোঝাতে চায়, সে মুসলমানের চেয়ে বড় মুসলমান। আর যতো ধরনের অশ্রাব্য গালি আছে, তা দিতে শুরু করে। কিন্তু এতে তার হয়তো বৈষয়িক লাভ হয়, কিন্তু দীনতা কিছুতেই ঘোচে না। এমনকি মুসলিমরাও ‘নও মুসলিম’ বলে তাকে উপেক্ষার দৃষ্টিতে দেখে।

বিএনপি নেতা গয়েশ্বর রায় বুদ্ধিমান বলে একেবারে ভিক্ষুক থেকে রাজায় পরিণত হতে দেরি হয়নি। ছাত্রজীবনে তিনি রাজনীতির কেউ ছিলেন না। একটি কালো প্যান্ট ও শাদা শার্ট এবং একটি চারআনা দামের চিরুনি সম্বল ছিলো। সেখান থেকে তিনি হুশ করে কীভাবে বিএনপির গর্তে চ্যালামাছ হয়ে ঢুকে হঠাৎ বোয়ালমাছ হয়ে বেরিয়ে এলেন, সেটাই বিস্ময়কর! অবশ্য গয়েশ্বর বুঝতে পেরেছিলেন, আওয়ামী লীগের দিকে ঝুঁকলে তার পালে হাওয়া লাগবে না। তাই ধানের শীষে পা রেখে হাওয়ায় দুলতে পারার আনন্দে বিএনপির বড় বড় নেতার চেয়েও অনেক উচ্চকণ্ঠে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে ফেলে দেয়ার হুমকি দিতে কসুর করেননি এবং তার গর্জন চলছেই। তাতে বিএনপিও খুশি। একজন ‘হিঁদু’কে নিজেদের সাম্প্রদায়িকতা ঢাকার জন্য মোক্ষম অস্ত্র হিসেবে পাওয়া গেলো!

এ-জাতীয় নির্ভরশীল দালাল হিন্দুদের মধ্য থেকে খুঁজে পাওয়া চাট্টিখানি কথা নয়! কিন্তু এটাও নিশ্চিত, বিএনপি গয়েশ্বর বা নিতাই রায় চৌধুরীদের যতোই দলে টানুক কিংবা মন্ত্রিত্ব দিয়ে বোঝাবার চেষ্টা করুক যে তারা দল হিসেবে মোটেই সাম্প্রদায়িক নয়, সেটা পাগলেও বিশ্বাস করে না। বিএনপির নীতিনির্ধারকরাও যে গয়েশ্বর বা নিতাইকে বিশ্বাস করে, তাও নিশ্চিতভাবে বলা যায় না। এটা গয়েংশ্বর গং-রাও জানে। তবু শুধু লোভে ও হালুয়া-রুটির আশায় তারা বুক চেপে হলেও বিএনপির গায়ের গা মিশিয়ে লম্ফঝম্ফ করে। এতাদিন ধরে গয়েশ্বর সেই কাজটিই দক্ষতার সঙ্গে করেছেন। নিজে সম্ভবত বয়সের কারণে একটু দুর্বল হওয়াতে এবার মাঠে নামিয়ে দিয়েছেন নিজের পুত্রকে নয়, নিজের পুত্রবধূ বিএনপির আর এক খেলনানেতা নিতাই রায়চৌধুরীর মেয়ে নিপুণ রায়চৌধুরীকে।

নিপুণ খুব নিপুণভাবে তার কাজটি সম্পন্ন করতে গিয়ে পুলিশের ওপর আক্রমণ ও বিএবনপি নেতকাকর্মীদের নিয়ে তীব্র হুংকার দিয়ে জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি গয়েশ্বর রায়ের পুত্রবধূ। কিন্তু তিনি ভাবেননি, পুলিশ ‘নও মুসলিম’ টাইপের নেত্রী বলে তাকে ছাড় দেবে না। তাই এখন সে গ্রেফতার হয়ে ৭ দিনের রিমান্ডে আছে। নিপুণের হুমকির ধরন দেখে মনে হয়েছে, তার শ্বশুর গয়েশ্বর তার কাছে নস্যি! সম্ভববত নিতাই রায়চৌধুরীও জানতেন না, তার মেয়েকে গয়েশ্বর মাস্তান বানিয়ে রাস্তায় নামিয়ে দিয়েছেন। এবার ঠেলা সামলাবে কে? ঘওে বসে নিতাই কাঁদবে, জেলে বসে নিপুণ। আর ঘরে বসে হাসবেন গয়েশ্বর। মনে মনে বলবেন, “আরে বেয়াই, আমি অতো বেকুব না। নিজের পোলা তো আপন। পোলার বউ তো আপন না। তাই তারে মাঠে নামাইয়া দিছি, এখন বোঝেন গিয়া ঠেলা।”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত