প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নোবেল ও রবীন্দ্রনাথ

মধুসুদন মিহির চক্রবর্তী : বলা হয়ে থাকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরই ছিলেন প্রথম অশ্বেতাঙ্গ নোবেল বিজয়ী। তার আগে অন্তত ষাট জন নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। তাদের মধ্যে ইউরোপীয় ছাড়া অন্য যে তিনজন আমেরিকা থেকে নোবেল পেয়েছিলেন তারাও প্রকৃতপক্ষে ছিলেন শ্বেতাঙ্গ বংশোদ্ভূত। নোবেলপ্রাপ্তির পরপর রবীন্দ্রনাথ সারা পৃথিবী জুড়ে সেলিব্রেটিতে পরিণত হন। নোবেল পুরস্কার কমিটির কাছ থেকে পুরস্কার নেবার জন্য রবীন্দ্রনাথ নিজে উপস্থিত থাকতে পারেননি। এমনকি নোবেল বক্তৃতাটি দিতে সাত বছর সময় লেগে গিয়েছিলো।

রবীন্দ্রনাথের পক্ষে স্টকহোমের ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতকে পুরস্কারটি গ্রহণ করবার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়। রাষ্ট্রদূত কবির ধন্যবাদ বার্তা পাওয়ার জন্য যোগাযোগ করেন বাংলার তৎকালীন গভর্নর লর্ড কারমাইকেলের সঙ্গে। ১০ ডিসেম্বর সোনার মেডেল ও ডিপ্লোমা গ্রহণ করেন রাষ্ট্রদূত ক্লাইভ এবং রবীন্দ্রনাথের পাঠানো ধন্যবাদ বার্তা পড়ে শোনান। পরের বছরের ২৯ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার কলকাতার গভর্নর হাউজে সে মেডেল ও ডিপ্লোমা সুইডিস কনসাল এবং সরকারি বেসরকারি অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তির উপস্থিতিতে রবীন্দ্রনাথের হাতে তুলে দেন লর্ড কারমাইকেল। ততোদিনে কবির নোবেল বক্তৃতা দানের ব্যাপারে যে শর্ত ছিলো সেটি পূর্ণ হতে সাত বছর পার হয়ে গেছে। ১৯২১ সালে ২৬ মে বিকেল সাড়ে চারটায় কবি তার নোবেল বক্তৃতা প্রদান করেন।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ