প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টিকটকে দুই বাংলায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে আইয়ুব বাচ্চু

বিনোদন প্রতিবেদক : টিকটক স্মার্টফোন ভিত্তিক অ্যাপস। এটি চীনে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে চালু হয়। এরপর অন্যান্য দেশে অ্যাপসটির ব্যবহার শুরু হয়। বর্তমানে পৃথিবীর প্রায় ৮০ কোটির অধিক মানুষ এই মজার অ্যাপসটি ব্যবহার করছেন।
এই অ্যাপসটি বাংলাদেশীরাও ব্যবহার করছে সমান তালে। এই টিকটকে রোজ চোখ রাখলেই দেখা যায় শত শত নারী পুরুষের নানা রকম টিকটক ভিডিও। ফেসবুকের পাতা জুড়ে চোখে পরে বিভিন্ন ধরনের ফানি ভিডিও।

সাধারণ মানুষের পাশাপাশি দেশ ও বিদেশের নামি দামি তারকাদের ভিড়। টিকটকে আছেন গান, অভিনয়, ক্রিকেট, ফুটবলসহ নানা অঙ্গনের তারকারা।

এই টিকটকে বাংলাদেশের পূর্ণিমা, টয়া, সজল, নিলয়, তৌসিফ মাহবুব, নাদিয়া, জোভান, সাফা কবির, মতো জনপ্রিয় মুখগুলো হাজির হয়েছেন এখানে। মজার মজার সব ভিডিও দিয়ে টিকটকেও পেয়েছেন তারা তুমুল জনপ্রিয়তা।

টিকটকের ব্যবহারকারীরা মিউজিকের সাথে নিজের ঠোঁট মিলিয়ে বা নেচে রেকর্ড করে থাকেন। সঙ্গীতের সাথে ঠোঁট মিলিয়ে গানগুলোর মধ্যে শীর্ষসারিতে রয়েছেন সদ্য প্রয়াত ব্যান্ড লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চু!

পাঠকরা একটুও অবাক হবেন না। এই টিকটকে আইয়ুব বাচ্চুর বেশকিছু জনপ্রিয় গান ও গানের মিউজিক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়েছে ‘সেই তুমি কেন এত অচেনা হলে’ গানের মিউজিক। তালিকায় আছে ‘রুপালী গিটার’, ‘আমি বারো মাস তোমায় ভালোবাসি’, ‘মেয়ে তুমি কী আকাশ চেনো’, ‘আমি কষ্ট পেতে ভালোবাসি’ ইত্যাদি গান ও গানের মিউজিক। মূলত আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর পরই এই গানগুলো টিকটকে জনপ্রিয়তা পায়।

আইয়ুব বাচ্চুর নিজের গাওয়া ছাড়াও বিভিন্ন শিল্পীদের কভার করা কিছু গানও দেখা যায় টিকটক ব্যবহারকারীদের পছন্দের তালিকায়। এইসব গান ব্যবহারের সময় হ্যাশট্যাগে লেখা হচ্ছে ‘লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চু’, ‘রেস্ট ইন পিস আইয়ুব বাচ্চু স্যার’, ‘লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চু নেভার ডাই’, ‘রেসপ্যাক্ট আইয়ুব বাচ্চু’।

বাংলাদেশের ব্যবহারকারীদের পাশাপাশি কলকাতা ও বিহার-আসামের অসংখ্য টিকটক ব্যবহারকারীরাও আইয়ুব বাচ্চুর গানের সঙ্গে টিকটক ভিডিও আপ করছেন।

প্রসঙ্গত, গেল ১৮ অক্টোবর সকালে হৃৎপিণ্ড এবং ফুসফুসের স্বাভাবিক কার্যকলাপ বন্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন এলআরবি ব্যান্ডের কিংবদন্তি গায়ক আইয়ুব বাচ্চু।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ