প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইয়াঙ্গুনে শতাধিক রোহিঙ্গা আটক মিয়ানমারের

নূর মাজিদ : মিয়ানমারের অভিবাসন পুলিশ দেশটির ইয়াঙ্গুন নগরীর উপকূল থেকে প্রায় ১০৬ জন রোহিঙ্গা শরণার্থী বোঝাই একটি নৌকা আটক করেছে। এই শরণার্থীরা প্রানভয়ে মিয়ানমার ছেড়ে মালয়েশিয়ার উদ্দেশ্যে সমুদ্র পাড়ি দেয়ার চেষ্টা করছিলেন। তবে মিয়ানমারের অভিবাসন কতৃপক্ষ গতকাল শুক্রবার জানিয়েছে, ২০১৫ সালের পর আদম পাচারকারীরা পুনরায় মিয়ানমারে তাদের তৎপরতা জোরদার করেছে। তাদের অবৈধ ব্যবসা দমন করার উদ্দেশ্যেই মালয়েশিয়াগামী নৌকাটি আটক করা হয়।

এই বিষয়ে দেশটির কায়াকতান শহরের অভিবাসন কর্মকর্তা কায় হৌতে ফোনালাপে রয়টার্সকে জানান, মিয়ানমারের বৃহত্তম নগরীর উপকূল থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরে নৌকাটি আটক করা হয়। মিয়ানমারের পশ্চিম রাখাইন রাজ্যের সিতওয়েতে অবস্থিত অভ্যন্তরীণ শরণার্থী শিবির থেকে পালিয়ে ওই রোহিঙ্গারা দেশ ছাড়ার চেষ্টা করছিলেন। এই সময় তাদের বহনকারী নৌকাটির ইঞ্জিন যাত্রাপথে বিকল হয়ে পড়লে মিয়ানমারের কতৃপক্ষ তাদের আটক করে।

২০১২ সালে দেশটির সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধনযজ্ঞ ও দাঙ্গা শুরু হওয়ার পর থেকেই সিতওয়ে নগরীর বাহিরে স্থাপিত শরণার্থী শিবিরগুলোয় হাজার হাজার রোহিঙ্গাকে বন্দী অবস্থায় মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। এছাড়াও উত্তর রাখাইনে সামরিক বাহিনী পরিচালিত জাতিগত শুদ্ধি অভিযানের প্রেক্ষিতে প্রায় ৭ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। জাতিসংঘ একে গনহত্যা এবং মানবতাবিরোধী অপরাধ বলে জানিয়েছে। রোহিঙ্গা শরণার্থীরা অবস্থার ভয়াবহতা ব্যাখ্যা করে বলেছেন, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী এবং উগ্র বৌদ্ধ মৌলবাদী গোষ্ঠীগুলো এই গনহত্যার মূল সংগঠকের ভূমিকা পালন করে। রয়টার্স

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ