প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইসিকে সহযোগিতার নির্দেশ মন্ত্রিপরিষদ সচিবের

আনিসুর রহমান তপন : অবাধ, সুষ্ঠ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিষয়ে ইসিকে সহযোগিতা করতে মাঠ প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

বৃহস্পতিবার মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমের স্বাক্ষর করা আদেশে এমন নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সব মন্ত্রণালয়/বিভাগের সচিব, মহাপুলিশ পরিদর্শক, বিজিবি, কোস্ট গার্ড, আনসার ও ভিডিপি এবং র‌্যাবের মহাপরিচালক, সব বিভাগীয় কমিশনার, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরসহ মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং সব পুলিশ কমিশনার, উপ-মহাপুলিশ পরিদর্শক, জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও রিটার্নিং কর্মকর্তা, সব পুলিশ সুপার, আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার, জেলা নির্বাচন অফিসার, আনসার ও ভিডিপির জেলা কমান্ডেন্ট, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং উপজেলা/থানা নির্বাচন কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো আদেশে বলা হয়, ‘নির্বাচন কর্মকর্তা (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯১’র অনুসরণীয় বিধান অনুযায়ী আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যাতে অবাধ, সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে অর্পিত দায়িত্ব পালন সংশ্লিষ্ট সকলের কর্তব্য। তাছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত, বেসরকারি দপ্তর, প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অতীতের মতো নির্বাচন কমিশনকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন বলে সরকার আশা করে।

এছাড়াও নির্বাচনের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের শৃঙ্খলা ও নিয়ন্ত্রণের বিশেষ বিধান অনুসারে নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত যে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী উক্তরূপে নিয়োগের তারিখ থেকে নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি না পাওয়া পর্যন্ত তার নিজ চাকরির অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে প্রেষণে চাকরিরত বলে গণ্য হবেন। প্রেষণে চাকরিরতরা নির্বাচন সংক্রান্ত দায়িত্ব পালনে নির্বাচন কমিশন কিংবা রিটার্নিং কর্মকর্তার নিয়ন্ত্রণে থাকবেন এবং তাদের যাবতীয় আইনানুগ আদেশ বা নির্দেশ পালনে বাধ্য থাকবেন।

আদেশে আরও বলা হয়, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুসারে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার তারিখ থেকে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর ১৫ দিন সময় অতিক্রান্ত না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে পরামর্শ ছাড়া নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তাকে অন্যত্র বদলি করা যাবে না এবং সকল মন্ত্রণালয়, বিভাগ এবং আধাসরকারি, স্বায়ত্বশাসিত সংস্থাগুলোকে নির্বাচনের কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে ছুটি প্রদান এবং অন্যত্র বদলি করা যাবে না।

এছাড়াও নির্বাচন কমিশনের অনুরোধে সরকারের পক্ষ থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রয়োজনীয় কার্যক্রমও গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের স্বাক্ষর করা আদেশে।

এতে ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী বিভিন্ন সরকারি/আধা-সরকারি দপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্য থেকে প্রয়োজনীয় সংখ্যক প্রিজাইডিং অফিসার এবং পোলিং এজেন্ট নিয়োগ করা হবে। বিভিন্ন পর্যায়ের সরকারি এবং সরকরি অনুমোদন প্রাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক/শিক্ষিকাগণ নির্বাচনের কাজে প্রত্যক্ষভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হবেন বলেও আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ