প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

একাদশ নির্বাচনে
জামায়াত নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের ভাবনা

সৌরভ নূর : সম্প্রতি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নামের নতুন জোটের সাথে সম্পৃক্ত হয়েছে বিএনপি। একইসাথে বিএনপির পুরনো ২০ দলীয় জোটও রয়েছে। তবে বিএনপি ছাড়া জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের অন্য শরীক দলগুলো জামায়াতে ইসলামীর বিরোধী অবস্থান রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ বিবিসিকে জানান, বিষয়টি নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। সেটা নিয়ে আলাপ-আলোচনা চলছে। তবে যেখানে আমাদের ভালো প্রার্থী আছে সেখানে আমরা চাইবো না প্রার্থী বিসর্জন দিতে। একটা বিষয়ে আমরা সবাই একমত এমন প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া উচিত যার জেতার সম্ভাবনা আছে।

তিনি আরও জানান, বিএনপির মধ্যে জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে দুই ধরণের মতামত আছে। একটি অংশ মনে করছে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে জামায়াতের প্রার্থীরা নির্বাচন করলে কোন ক্ষতি নেই। আরেকটি অংশ মনে করেন, ধানের শীষ নিয়ে জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থীদের নির্বাচন না করাই ভালো। আর আসন ভাগাভাগির বিষয় নিয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

এদিকে বিএনপি’র সাথে জামায়াতের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে আপত্তি তুলেছেন ঐক্যফ্রন্টের কয়েকজন নেতা। বিএনপি যেন জামায়াতের সংশ্লিষ্টতা ত্যাগ করেন এমন পরামর্শও দেয়া হয়েছে তাদের। এ বিষয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা এবং গণফোরামের কার্যকরী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে ঐক্যফ্রন্টের কোন ভাবনা নেই। এখানে জামায়াতে ইসলামী আসার কোনো সুযোগ বা সম্ভাবনা আছে বলে আমরা মনে করছি না।

তিনি আরও বলেন, জামায়াতে ইসলামী দল হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিতে পারলেও তাদের নেতারা নিবন্ধিত দলের প্রতীক কিংবা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে পারবেন। তবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট যেখানে প্রার্থী দেবে সেখানে জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী থাকার কোন প্রশ্নই আসেনা। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে ৩০০ আসনে সর্বসম্মতভাবে প্রার্থিতা ঘোষণা করবে।

অন্যদিকে জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমান গত বুধবার বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, তারা জোটের ভিত্তিতেই নির্বাচনে অংশ নেবেন। তাদের ৫০-৬০ জন এবারের নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন বলেও মন্তব্য করেন। যেসব আসনে জামায়াতের নেতারা প্রার্থিতা করবেন, সেসব আসনে ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীরা জামায়াতের প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ