প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সহজেই ‘নির্বাচনি মাঠ’ ছাড়বে না ঐক্যফ্রন্ট

সাব্বির আহমেদ : ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচনকে মাথায় রেখেই আঁটঘাঁট বাঁধছে সরকারবিরোধী জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। নির্বাচনের আগে সরকারকে নানামুখী চাপে রাখার চেষ্টা করলেও নির্বাচনি মাঠ ছাড়তে রাজি নয় ঐক্যফ্রন্ট। আপাতত জোটের লক্ষ্য একটাই- ন্যূনতম ছাড়ের ভিত্তিতে হলেও নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করা। আর সেটা নিশ্চিত করতে ফ্রণ্টটি অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখছে। পাশাপাশি জনসমর্থন আদায়ের সঙ্গে বাড়ানো হচ্ছে জোটের শক্তিমত্তা। নির্বাচনের আগে সরকারের কোনো ফাঁদে পা না দিতে দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে যাচ্ছে সতর্কবার্তা।

শুক্রবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে বিষয়গুলো স্পষ্ট হয়েছে।

ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এই প্রতিবেদককে তিনি বলেন, ‘একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিশ্চিতের জন্যেই আমাদের এই প্লাটফর্ম। নির্বাচন নিয়েই বরাবরই আমরা ইতিবাচক। নির্বাচনি মাঠেই থাকবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। জোটের নির্বাচনকেন্দ্রীক প্রস্তুতিও চলছে জোরেসোরে। জনগণের কথা মাথায় রেখেই সরকার ও নির্বাচন কমিশন একটি অবাধ নির্বাচন দেওয়া উচিত। জনগণ নিজের ভোটটি দিতে চায়’।

এদিকে নির্বাচনি মাঠে থাকার অংশ হিসেবে নিজেদের ইশতেহারের কাজ অনেকটাই সেরেছে ঐক্যফ্রন্ট। জনগণের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে পাঁচ প্রতিশ্রুতির ভিত্তিতে এ ইশতেহার তৈরি হচ্ছে। যা কাল পরশুর মধ্যে চূড়ান্ত হবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইশতেহার প্রণয়ন কমিটির একাধিক সদস্য।

ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়নে ছয় সদস্যের একটি কমিটি হয়েছে। এ কমিটির প্রধান গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। অন্য সদস্যদের মধ্যে বিএনপি থেকে মাহফুজ উল্লাহ, গণফোরাম থেকে আ ও ম শফিক উল্লাহ, নাগরিক ঐক্য থেকে ডা. জাহেদ উর রহমান, জেএসডি থেকে শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের অধ্যক্ষ ইকবাল সিদ্দিকী।

কমিটির সদস্য শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন বলেন, ‘আমরা জাফরুল্লাহ চৌধুরীর নেতৃত্বে ইশতেহার তৈরির কাজ করছি। কাল পরশুর মধ্যে চূড়ান্ত হয়ে যাবে। আমরা আজ ইশতেহার কমিটি আবারও বসবো’।

ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, ‘আমরা নির্বাচনি যুদ্ধে রয়েছি। নির্বাচনে অংশ নিতেই আমাদের এ যুদ্ধ। জনগণের ভোট নিশ্চিত করেই এ যুদ্ধে জয়ী হবো। এ জন্য নির্দিষ্ট কোনও বিষয় নয়, সকল বিষয়কে সামনে রেখে আমাদের আলোচনা চলছে’।

অন্যদিকে ৩০০ সংসদীয় আসনে প্রার্থীও চূড়ান্ত করেছে ৫টি রাজনৈতিক দল নিয়ে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। তবে এ বিষয়ে কোনও নেতাই এখনই মুখ খোলতে রাজি নন। তারা বলছেন, জনসমর্থন ও গ্রহণযোগ্যতাকে অগ্রাধিকার দিয়ে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ চলছে। সকলের কমন প্রতীক হবে ধানের শীষ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ