প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচন অনায়াসে আরও তিন সপ্তাহ পেছানো যেতে পারে : ইনাম আহমেদ

মো: মারুফুল আলম: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরী বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের মহান চেতনার মধ্যে এটিও একটি যে, একটি সামগ্রিক নির্বাচন। যেখানে গণতন্ত্র থাকবে, সবার বলার অধিকার থাকবে। আমরা বোধয় প্রতিপক্ষকে দমিয়ে দেওয়া বা তাদেরকে সুযোগ না দেওয়ার এটিচিউড থেকে এখনও মুক্ত হতে পারিনি। বুধবার ডিবিসি নিউজের টকশো’তে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, বিরোধীদলগুলো নির্বাচনের ব্যাপারে প্রস্তুতি গ্রহণের সুযোগ পায়নি বা সিদ্ধান্তও তাদের ছিলো না, এটা আমরা সবাই জানি। এখন তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সুতরাং একটু সময় পেলে ক্ষতি হতো না, বরং এনকারেজমেন্ট হতো। মানুষও বুঝতো যে, সরকার ও নির্বাচন কমিশন উভয়ে চাচ্ছে, মন খোলা করে উৎফুল্লচিত্তে বিরোধী দলগুলোও নির্বাচনে আসুক। সময় সংকুচিত করে দিয়ে তাদের আসতেই হবে এটা ঠিক হচ্ছে না। অনায়াসে আরও তিন সপ্তাহ পেছানো যেতে পারে। সুতরাং কেন পেছাবেন না। নির্বাচন না পেছানোর জন্য ইজতেমা বা রেজাল্ট ঘোষণার যে কারণগুলো দেখিয়েছেন এসব সবগুলোই কিন্তু সমাধান করা যায়।

ইনাম আহমেদ বলেন, পর্যবেক্ষক প্রসঙ্গে দুটো প্রশ্ন আছে। একটি হচ্ছে, আমাদের দেশীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণে যারা আছেন তাদের অনেককে সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না, যেমন ‘অধিকার’। ‘অধিকার’ এর অফিস বা কার্যালয় বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে। দ্বিতীয়ত, বিদেশী পর্যবেক্ষকরা স্থির করে জানিয়ে দিয়েছেন তারা আসছেন না। বিদেশী পর্যবেক্ষকরা একটি কথা বারবার উচ্চারণ করেছেন সেটি হলো ‘পাতানো বা সাজানো’। মানে, পাতানো বা সাজানো নির্বাচনে এসে সমর্থন দিতে তারা চায় না। যদি এটাই তাদের ধারণা হয়, তাহলে তারা দেখতে পারতো তাদের ধারণাটা সত্যি হচ্ছে কি হচ্ছে না।

নির্বাচনের তারিখ কবে ঘোষণা হবে তা জানার আগেই ইউরোপিয় ইউনিয়ন, জাতিসংঘ, কমনওয়েলথ সবাই বলে দিয়েছে যে, তারা নির্বাচনে আসছে না। নির্বাচন পেছালে বিদেশী পর্যটকদের প্রভাবিত করা যাবে কি না এ প্রসঙ্গে ইনাম আহমেদ বলেন, সিইসি কি রকম ব্যবস্থা নেবেন তার উপর নির্ভর করছে এটি। পর্যবেক্ষকরা যদি দেখে যে, পাতানো বা সাজানো নির্বাচন হচ্ছে না তখন তারা হয়তো ভেবে দেখবেন ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ