প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

করমেলায় দু’দিনে প্রায় ৮’শ কোটি টাকা আদায় হয়েছে

আবু বকর : জাতীয় করমেলায় দু’দিনে প্রায় ৮’শ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার শুরু হওয়া মেলায় করদাতা ও সেবাগ্রহীতাদের স্বতঃর্স্ফূত অংশ গ্রহনে মেলা প্রাঙ্গণ ছিল মুখরিত।

গতকাল ১৪ নভেম্বর বুধবার আয়কর মেলার দ্বিতীয় দিনে ৫৫১ কোটি ১৫ লাখ ২০ হাজার ৩৯৮ টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। প্রথম দিনে সারা দেশে ২১৮ কোটি ৪৩ লাখ টাকার কর আদায় হয়। আয়কর বিবরণী বা রিটার্ন জমা দেন ৪৬ হাজার ৪০১ জন করদাতা। সেবা নেন ১ লাখ ১৩ হাজার ৬৯৯ জন।

গতবারের মেলার প্রথম দিনের চেয়ে কর বেড়েছে ৫ শতাংশ। রিটার্ন জমার সংখ্যা বেড়েছে ৫০ শতাংশের মতো।
দ্বিতীয় দিন মেলার বাড়তি আকর্ষণ ছিল শিক্ষার্থীদের নিয়ে আয়োজিত কর শিক্ষণ ফোরাম অনুষ্ঠান। ভবিষ্যৎ করদাতা সৃষ্টি ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে কর সচেতনতা তৈরির জন্য এটি এনবিআরের উদ্ভাবনী পদক্ষেপ। কর শিক্ষণ ফোরামের আওতায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা মেলা পরিদর্শন ও কর বিষয়ে ধারণা লাভ করেন। পরে কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
এরই অংশ হিসেবে দ্বিতীয় দিনে মেলা প্রাঙ্গণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি, ফিন্যান্স এবং ব্যাংকিং ও ইনস্যুরেন্স বিভাগের ৪০ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। এরপর তাদের নিয়ে কুইজ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় ১০ শিক্ষার্থীকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। বিজয়ীদের সনদপত্র ও বই দেয়া হয়।

পুরস্কার বিতরণ করেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যন মো. মোশাররফ হোসেন ভূইয়া। পাশাপাশি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন বিভাগকে সনদপত্র দেয়া হয়। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর প্রশাসন ও মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা) জিয়া উদ্দিন মাহমুদসহ কর বিভাগের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, মেলায় করদাতাদের উপস্থিতি দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষের আগ্রহ ক্রমাগত বাড়ছে। উৎসবের আমেজে মানুষ দলে দলে কোনো হয়রানি ছাড়াই স্বাচ্ছন্দে রিটার্ন জমা দিচ্ছেন।

কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আয়কর দিতে কেউ যেন কোনো প্রকার ভীতির সম্মুখীন না হয়, সে বিষয়ে সর্বদা সচেতন থাকতে হবে। তবেই করদাতা বাড়বে।

মেলার সমন্বয়কারী এবং এনবিআর সদস্য (আয়কর প্রশাসন) জিয়া উদ্দিন মাহমুদ বলেন, দু’দিনে মেলায় আমরা ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। করদাতা ও সেবা গ্রহীতাদের পদচারণায় মুখর ছিল মেলা। বিশেষ করে নারী ও তরুন করদাতাদের ভীড় ছিল লক্ষ্যণীয়। করদাতারা ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে কর প্রদান ও সেবা গ্রহণ করেছেন।

ঢাকায় বেইলী রোডে অফিসার্স ক্লাবে মঙ্গলবার সকাল ৯টায় মেলার উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।
১৯ নভেম্বর পর্যন্ত মেলা চলবে। রাজধানী ঢাকাসহ সকল বিভাগীয় শহরে ৭দিন, ৫৬টি জেলা শহরে ৪দিন,৩২টি উপজেলায় ২ দিন এবং ৭০টি উপজেলায় ১দিনব্যাপী আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

জিয়া উদ্দিন বলেন, কর আহরনের পাশাপাশি সামাজিক ন্যায় বিচার ও সমতা নিশ্চত করাই কর রাজস্ব বোর্ডের প্রধান কাজ। এ ধারাবাহিকতায় ‘উন্নয়ন ও উত্তরণ, আয়করের অর্জন’ শ্লোগানকে সামনে রেখে এ বছর আয়কর মেলার প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘আয়কর প্রবৃদ্ধির মাধ্যমে সামাজিক ন্যায় বিচার ও ধারাবাহিক উন্নয়ন নিশ্চিতকরণ।’

বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলছে মেলা। প্রতিদিন মেলা সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলবে। মেলায় আয়কর রিটার্ন দাখিল, ই-টিআইন গ্রহণ (নতুন ও পুরাতন), ই-পেমেন্ট, ই-ফাইলিং, ই-পেমেন্টের ব্যবস্থা রয়েছে।

মেলায় আসা মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য রয়েছে আলাদা বুথ। মেলায় করদাতাদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য রাজধানীর টিএসসি, রামপুরা, বেইলি রোড, মতিঝিল, মিরপুর ও উত্তরা থেকে ১৫টি শাটল বাস নিয়োজিত রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত