প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চেহারা খারাপ বলে কি এমপি-মন্ত্রী হতে পারব না!(ভিডিও)

শিমুল রহমান : অন্য সেলিব্রেটিরা এমপি হতে চাইলে কারও মাথা ব্যাথা হয় না, কিন্ত হিরো আলম এমপি হতে চাইলে সবার মাথা ব্যাথা বেড়ে যায়। অনেকেই আমাকে বিভিন্ন কথা বলবে। তাদের কথা শুনলে আমি এমপিও হতে পারব না মন্ত্রীও হতে পারব না। সময়টিভি ফেসবুক লাইভে এমনটাই ক্ষোভ প্রকাশ করেন হিরো আলম বলেন, স্বপ্ন দেখা সহজ বাস্তব করা কঠিন।

তিনি বলেন, আমি একদিক দিয়ে দুর্বল সেটা হলো আমার চেহারা। আমি দেখতে খারাপ। বড় বড় সেলিব্রেটিরা চেহারা সুন্দল বলেই কি তারা এই জায়গায় আসতে পারবে আমার চেহারা সুন্দর না বলে কি আমি এমপি মন্ত্রী পদে আসতে পারবনা। আমাদের মিডিয়ায় কেউ সিলিব্রেটি হলে, তাকে নিয়ে কথা হবেই। আমি হিরো এটা আমার একটা পরিচয়, আবার রাজনীতি আমার আরেকটা পরিচয়। কেউ এটা নেগেটিভলি নেবে আবার কেউ পজেটিভলি নেবে সেটা তাদের ব্যাপার।

আবার অনেকে বলে হিরো আলম ঠিকমত কথা বলতে পারেনা সে কেন এমপি হবে। আমি তাদের বলতে চাই আপনারা যেভাবে সুযোগ সুবিধা পেয়েছেন হিরো আলম সেইভাবে সুযোগ সুবিধা পেলে আজ আপনাদের মত ভাল প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করত।

মিস্টার আলম বলেন, “দেশের মানুষে আমাকে জিরো থেকে হিরো করেছে। আজ মানুষের ভালবাসার কারণেই আমি এই অবস্থানে এসেছি। আমি যদি এমপি হই তাহলে মানুষের সেই ভালবাসার প্রতিদান দিতে কাজ করে যাব।”

তবে এমপি নির্বাচিত হলেও নিজের গান বা অভিনয় ধরে রাখার কথা প্রসঙ্গে হিরো আলম বলেন, “অন্য সেলিব্রেটিদেরকে দেখেন তারা কিন্তু অভিনয় ছাড়ে নাই।আমিও সেটা ধরে রাখবো। কারণ এজন্যই মানুষ আমাকে চেনে। মানুষ উপরের শ্রেণীতে উঠে গেলে তার ব্যাকগ্রাউন্ডটা ভুলে যায়। আমি আমার অতীতকে ভুলে যেতে চাইনা।”

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেন এই আলোচনা?
হিরো আলমের এই মনোনয়নপত্র কেনা নিয়ে, সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, “বহুদিন আগে… একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে কাজ করার সময় নানা কিসিমের প্রশিক্ষণের একটা কথা মনে আছে. Right people in the right place. প্রশিক্ষক বলেছিলেন এটা নাহলে প্রতিষ্ঠান বা সংগঠনের সাফল্য আসেনা।। আজ হিরো আলম মনোনয়ন ফর্ম নিয়েছে জাতীয় পার্টি থেকে..”

হিরো আলমকে নিয়ে তার বা আরও দশটা মানুষের এই আগ্রহের পেছনে তিনি তার হাস্যকর চরিত্রটাকে প্রধান কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন।

হিরো আলমের মনোনয়ন কেনা নিয়ে মানুষের প্রতিক্রিয়া।
তবে হারুন উর রশিদ নামে আরেক ইউজার একে এক ধরণের “বর্ণবাদ” হিসেবে আখ্যা দেন।

তিনি তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন, “হিরো আলম ময়ূরী মনোনয়ন ফর্ম কিনলে দোষ হয়। হাসি ঠাট্টা ট্রল হয়। এটাই বর্ণবাদ।”

নিজ ফেসবুক স্ট্যাটাসে হিরো আলমকে প্রসঙ্গ হিসেবে বেছে নেয়ার কারণ হিসেবে তিনি বিবিসিকে জানান, “হিরো আলম নিম্নস্তর থেকে উঠে আসা একজন মানুষ। তিনি তার মতো সংগ্রাম করে আজকের জায়গায় এসেছেন। কিন্তু তার এই উঠে আসাটা আমাদের অনেকের বর্ণবাদী মন মেনে নিতে পারছেনা। এজন্যই তাকে নিয়ে এতো ট্রল হচ্ছে।”

“হিরো আলম রাজনীতিতে আসার ক্ষেত্রে যোগ্য নাকি অযোগ্য সেটা নিয়ে কিন্তু আলোচনা হচ্ছেনা, তার শ্রেণী বা ভাষা নিয়েই কটাক্ষ হচ্ছে।”

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আলোচিত হিরো আলম জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন তিনি। মনোনয়নপত্র কিনে আবারো ব্যাপকভাবে আলোচনায়ে এসেছেন কেবল ব্যবসায়ী থেকে উঠে এসে বলিউড অভিনেতা বনে যাওয়া আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলম। এর আগে গতকাল সোমবার তিনি বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পাটির ‘লাঙল’ মার্কায় নির্বাচন করার জন্য মনোনয়নপত্র কেনেন। জানা গেছে, মঙ্গলবার দলের কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তিনি।

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ