প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিদেশি পর্যবেক্ষক ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে না : এমরান সালেহ্ প্রিন্স

সাজিয়া আক্তার : বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ্ প্রিন্স বলেছেন, বিদেশি পর্যবেক্ষক ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে না। আমাদের মূল উদ্দেশ্য ছিলো বিদেশি পর্যবেক্ষকদের উপস্থিতিতে সুষ্ঠু নির্বাচন করা।

যমুনা টেলিভিশনের রাজনীতি বিষয়ক টকশোতে তিনি আরো বলেন, আমরা আশা করেছিলাম, সংলাপে আলোচনার মাধ্যমে হয়তো ৭ দফার যে দাবি; সেটার মীমাংসা হবে। দেশ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে এই সংলাপ সফল হবে। সংলাপের মধ্য দিয়ে একটি যৌক্তিক সমাধান বেরিয়ে আসবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য সংলাপে এক ধরনের প্রতারণা হয়েছে।

এমরান সালেহ্ প্রিন্স বলেন, সরকার বিএনপি, ঐক্যফ্রন্ট এবং ২০ দলকে আবারো নির্বাচনের বাইরে রেখে একতরফা নির্বাচন করার ষড়যন্ত্র করছিলো। কিন্তু এর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা তাৎক্ষণিকভাবে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দিয়েছিলাম। সেখানে আমরা বলেছিলাম সংলাপের যৌক্তিক পরিণতি না হওয়া পর্যন্ত তারা যেনো তফসিল ঘোষণা না করে। কিন্তু সরকারি দলের চাপে এবং তাদের সমর্থনে নির্বাচন কমিশন ৮ তারিখে নির্বাচনের শিডিউল ঘোষণা করে। তাছাড়া আওয়ামী লীগ থেকে ৯ তারিখ মনোনয়ন ফর্ম দেয়া হবে, এটা তারা ঘোষণা দিয়ে আসছে। তাতেই বোঝা গেছে আওয়ামী লীগের জানা আছে, নির্বাচন কমিশন ৮ তারিখে তফসিল ঘোষণা করবে। সেই অনুযায়ী তারা এগোচ্ছিলো।

তিনি বলেন, দেশের স্বার্থে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি এবং ৭ দফা দাবিতে আন্দোলনের অংশ হিসেবে নির্বাচনের অংশ নিয়েছে বিএনপি। আমাদের দাবি ছিলো অন্তত ১ মাস নির্বাচন পেছানোর জন্য। আমরা আশা করেছিলাম জনগণের স্বার্থে এবং সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে যৌক্তিক দাবিটি তারা মেনে নিবেন। কিন্তু প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, ৭ দিন পেছানো হলো, অর্থাৎ ২৩ শে ডিসেম্বর থেকে সেটা ৩০ ডিসেম্বর নিয়ে আসা হলো।

তিনি আরো বলেন, ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে বিদেশিরা অত্যন্ত ব্যস্ত থাকে ক্রিসমাস এবং নিউ ইয়ার উদযাপন নিয়ে। সেই সময় বিদেশি পর্যবেক্ষক এবং দূতাবাসের প্রতিনিধিরা সবাই যার যার পরিবার নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। কিন্তু ইতিমধ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন নির্বাচন কমিশনকে জানিয়ে দিয়েছে, এই নির্বাচনে পর্যাপ্ত সংখ্যক বিদেশি পর্যবেক্ষক এই মুহূর্তে পাঠাতে পারবে না। তারা আগে দুই জন প্রতিনিধি পাঠাবে, তারা সেটা বিবেচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে। ২৫ শে ডিসেম্বর থেকে পহেলা জানুয়ারির মধ্যেই কেনো নির্বাচন? সরকার এবং নির্বাচন কমিশন এই বিষয়টি নিয়ে কেনো পানি ঘোলা করছে এটা বোধগম্য নয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ