প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এবার নায়ে পাল তুলে দিন, কাপ্তান!

বাপ্পী রহমান, চীন থেকে : দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রাক্কালে পরিচিত এক আইনজীবী আমার কাছে আওয়ামী লীগের মনোনয়রপত্র সংগ্রহ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। তখন তার পঁচিশ পেরিয়েছিলো কেবল। বিনয়ের সাথে তাকে বলেছিলাম, এমন সিদ্ধান্তকে আমি আওয়ামী লীগের সাথে ‘ফাজলামি’ বলে বিবেচনা করি। তিনি বুদ্ধিমান, কথা বাড়াননি। আমারও বিশেষ সময় ছিলো না। তারপর তার চোখের ডাক্তারের কাছে যাওয়া কিংবা পবিত্র ওমরাহ পালনের খবর জানলেও, আওয়ামী লীগে ইনভলভ হওয়ার খবর শুনিনি। হয়তো রোজকার জীবনের মতো এক্ষেত্রেও ‘ধরি মাছ না ছুঁই পানি’ নীতি অবলম্বন করেছেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরিচিত আইনজীবীর আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহের খবর শুনিনি। তবে শুনেছি মুদি দোকানদার, পিএইচডিহীন ডক্টর, বটতলার উকিল, ফুটপাথের ব্যবসায়ী, বড় ব্যবসায়ী, চতুর্থ গ্রেডের শোবিজ তারকা থেকে অনেক নামিদামি তারকা নাকি আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। অথচ এরা অনেকেই জীবনে ছাত্রলীগ, যুবলীগ বা আওয়ামী লীগ কোনোটাই করেননি!

প্রিয় পাঠক, এই মৌসুমি রাজনীতিবিদদের সাথে দয়া করে বাংলাদেশ ক্রিকেটের বরপুত্র মাশরাফি বিন মুর্তজাকে মেলাবেন না। মাশরাফি একজন বীরের নাম। যার জীবনের পরতে পরতে ছড়িয়ে আছে সাহসিকতা, দেশপ্রেম আর অদম্য এক যোদ্ধার প্রতিচ্ছবি। একজন বিনয়ী বীর যখন এমনভাবে বলেন ‘আমরা নায়ক নই। সত্যিকারের নায়ক আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বীর লড়াকুরা’, তখন বুঝতে বাকি থাকে না তার জীবনদর্শন কোন পর্যায়ের।

মাশরাফির মাহাত্ম্যের কথা কে না জানে! আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচের তৃতীয় ওভারে বল করতে গিয়ে পা পিছলে পড়ে যাওয়া মাশরাফির সঙ্গে যেন কুঁকড়ে উঠেছিলো বাংলাদেশের ক্রিকেটই। দেশের কোটি কোটি ভক্তের হৃদস্পন্দন বন্ধ হবার দশা! সেখান থেকে ব্যান্ডেজ বেঁধে উঠে দাঁড়ালেন টাইগার দলপতি। ব্যথা নিয়েই বল করলেন, জয় নিয়ে মাঠ ছাড়লেন। তাই তো মানুষটিকে একবার ছুঁয়ে দেখার তীব্র বাসনার কাছে তুচ্ছ হয়ে গিয়েছিলো মিরপুরের কঠোর নিরাপত্তা। এমন দৃশ্য আগে কখনো দেখেনি এ দেশের ক্রিকেট। বুকে আগলে নিরাপত্তারক্ষীদের থেকে বাঁচালেন ভক্তকে। নজিরবিহীন ঘটনায় ফের প্রমাণ হয়েছিলো, নেতা হতে তো এমনই ‘আকাশহৃদয়’ লাগে!

বাংলাদেশ ক্রিকেটের জীবন্ত কিংবদন্তি মাশরাফি বিন মুর্তোজা। একাধিক অস্ত্রোপচারের পরও মাঠে নেমে জন্ম দিয়েছেন অনেক রূপকথার। এবার বাংলাদেশের উন্নয়নের মহাকাব্যে সামিল হোন। এবার নায়ে পাল তুলে দিন। শুভাশিস রইলো কাপ্তান।

লেখক : গবেষক ও শিক্ষক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ