প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইন্টারনেট কী, জানেন না অধিকাংশ পাকিস্তানি

ডেস্ক রিপোর্ট : ইন্টারনেট কী, পাকিস্তানের প্রায় ৬৯ শতাংশ মানুষ এখনো জানেন না। দেশটির ১৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সী মানুষের মধ্যে এই গবেষণা চালানো হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি-বিষয়ক আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এসব তথ্য।

পাকিস্তানের ডন অনলাইনে আজ সোমবার এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গবেষণা পরিচালনা করেছে শ্রীলঙ্কাভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান লার্নেশিয়া। প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিষয়ে গবেষণার জন্য পরিচিতি লাভ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। গত বছরের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত পরিচালিত গবেষণায় নমুনা হিসেবে বাছাই করা হয় দুই হাজার খানা। এর নমুনায়ন-পদ্ধতি এমনভাবে নকশা করা হয়েছে, যাতে পাকিস্তানের ১৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সী মানুষের ৯৮ শতাংশের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত হয়েছে।

লার্নেশিয়ার প্রধান নির্বাহী হিলানি গালপায়া প্রতিবেদনে বলেন, পাকিস্তান টেলিকমিউনিকেশন অথরিটির (পিটিএ) ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, দেশটিতে মোবাইলের সক্রিয় গ্রাহক ১৫ কোটি ২০ লাখ। যদিও দেশটিতে সিম নিবন্ধনব্যবস্থা যথেষ্ট স্বচ্ছ ও তথ্যসমৃদ্ধ নয় বলে অভিযোগ রয়েছে। সিম নিবন্ধনব্যবস্থা গ্রাহকদের সম্পর্কে কিছুই জানায় না। তিনি (গ্রাহক) পুরুষ, নারী, ধনী বা দরিদ্র যেই হোন না কেন। তাঁদের গবেষণা প্রতিবেদনে এশিয়ার দেশগুলোতে ইন্টারনেট সচেতনতার বর্তমান অবস্থার কথা তুলে ধরা হয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, পাকিস্তানে বর্তমানে ১৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সী মাত্র ৩০ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট সম্পর্কে অবগত। আর ইন্টারনেট ব্যবহার করেন মাত্র ১৭ শতাংশ মানুষ। আর ইন্টারনেট ব্যবহার না করার কারণ হলো—ইন্টারনেট সম্পর্কে সচেতনতার অভাব।

পাকিস্তানে পুরুষের চেয়ে নারীদের মধ্য ইন্টারনেট ব্যবহারের হার কম। পুরুষের তুলনায় ৪৩ শতাংশ কম নারী দেশটিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইন্টারনেট ব্যবহার না করার কিছু কারণের মধ্য অন্যতম হলো সময়ের অভাব, ইন্টারনেটে উচ্চমূল্য, ব্যবহারের বাধ্যবাধকতাও রয়েছে। এর মধ্যে ৪৯ শতাংশ বলেছে সময়ের অভাবের কথা। ১৮ শতাংশের মতে, ইন্টারনেটের উচ্চমূল্য এবং ২২ শতাংশ জরিপে অংশগ্রহণকারী বলেছেন, ইন্টারনেট ব্যবহারে বাধ্যবাধকতার কারণে তারা ওদিকে ততটা আগ্রহী হন না।

পাকিস্তানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী মানুষের মধ্যে শহর ও গ্রামের ব্যবহারকারীদের মধ্যকার পার্থক্য ভারত ও বাংলাদেশের চেয়ে তুলনামূলকভাবে কম। পাকিস্তানে এ হার ১৩ শতাংশ, ভারতে এ হার ৫৭ শতাংশ ও বাংলাদেশে তা ৬২ শতাংশ।

হিলানি গালপায়া বলেন, পাকিস্তানে মোবাইল ব্যবহারকারীদের মধ্যে স্মার্টফোন ব্যবহারকারী এখন ২২ শতাংশ। ২৫ শতাংশ মানুষের কাছে ইন্টারনেট-সুবিধাসম্পন্ন মোবাইল রয়েছে, তবে এগুলো পুরোনো প্রযুক্তির। বাকি ৫৩ শতাংশ মানুষের কাছে শুধু কথা বলতে পারা যায়, এমন মোবাইল ফোন আছে। এর অর্থ হলো এই ৫৩ শতাংশ মানুষের কোনো ইন্টারনেট নেই।

পাকিস্তান টেলিকমিউনিকেশন অথরিটি এই সমীক্ষার ফলাফলের ব্যাপারে কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি।
সুত্র : প্রথম আলো

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ