Skip to main content

৩০ নভেম্বরের পরে অ্যাকর্ড দেশে থাকতে পারবে না : বাণিজ্যমন্ত্রী

স্বপ্না চক্রবর্তী : দেশে কোনোভাবেই আর অ্যাকর্ডের মেয়াদ বাড়ানো হবে না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি বলেন, সুপ্রীম কোর্টের রায় অনুযায়ী ৩০ নভেম্বরের পর অ্যাকর্ড আর বাংলাদেশে থাকতে পারবে না। সোমবার রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে বিজিএমইএ, ডেনিশ পার্টনার স্টেপ-আপ প্রজেক্ট, ডেনিশ ফ্যাশন ইন্সটিটিউট এবং ডেনিশ চেম্বার অফ কমার্স কর্তৃক আয়োজিত ‘ক্লোজিং সিরোমনি এন্ড ডিসেমিনেশন অফ লার্নিং’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, অ্যাকর্ড গত ৫বছরে মাত্র ২০টি কারখানার ইনফ্রাস্ট্রাকচার পরিবর্তন করে হস্তান্তর করতে পেরেছে। কিন্তু রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির পর আমাদের দেশের কারখানাগুলোতে আর কোনো বড় দুর্ঘটনা ঘটেনি। কারখানা মালিকরা নিজেরাই সচেতন শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিয়ে। সরকারের পক্ষ থেকে কারখানা মনিটরিংয়ের জন্য আলাদা মনিটরিং সেল তৈরি করা হয়েছে। তাই এই দেশে অ্যাকর্ডের আর কোনও প্রয়োজনীয় নেই। অ্যাকর্ডের মেয়াদ না বাড়ালে জিএসপি সুবিধা হুমকির সম্মুখিন হতে পারে এমন মন্তব্য কেউ কেউ করছেন বলে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, জিএসপি বাতিল এত সহজ প্রক্রিয়া না। আমরা অনেকগুলো ক্রাইটেরিয়া পূরণ করেই জিএসপি সুবিধা পেয়েছি। সুতরাং আমি মনে করি এই সুবিধা বাতিল হওয়াও এত সহজ না। এসময় তিনি জাতীয় নির্বাচন নিয়ে বলেন, দেশের রাজনীতিতে একটি ইতিবাচক ধারা অবস্থান করছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে বিএনপিসহ ২০দলীয় জোট নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। বিষয়টি শুধু রাজনীতির জন্য নয় ব্যবসায়ীদের জন্য ইতিবাচক বলে মন্তব্য করেন তিনি। বিজিএমইএ সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, কারখানায় শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে আমরা আমাদের সর্বোচ্চটা করেছি। এখন বিদেশী ক্রেতাদের কাছে আমাদের পণ্যের দাম বাড়ানোর দাবি জানাচ্ছি আমরা। আর কোনও চাওয়া নেই আমাদের। বিজিএমইএ সহ-সভাপতি (অর্থ) মো. নাছিরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইন স্ট্রাপ পিটারসন এবং এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম (মহিউদ্দিন)।

অন্যান্য সংবাদ