প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ম্যাডাম অসুস্থ হাসপাতালে নিন : মির্জা ফখরুল
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রতি খালেদা জিয়ার সর্মথন

শাহানুজ্জামান টিটু : খালেদা জিয়াকে আবারো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) স্থানান্তরের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার দুপুরে পুরনো ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারের বাইরে বিএনপি মহাসচিব সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানান তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ম্যাডাম আমাদের জন্য দোয়া করেছেন। তিনি আশা করছেন যে, জনগণের যে ঐক্য আমরা তৈরি করেছি, সেই ঐক্যের মধ্য দিয়ে আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাবো। নির্বাচন নিয়ে কোনো কথা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি ‘না’ সূচক জবাব দেন তিনি।

সূত্র জানায় নির্বাচন, আসন বন্টন, সর্বশেষ রাজনৈতিক বিষয় তাকে অভিহিত করা এবং তার সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী করণীয় নির্ধারণের বিষয় সিদ্ধান্ত জানতে বিএনপির পাঁচ শীর্ষ নেতা কারাগারে দেখা করেন। এরআগে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের মতিঝিলের অফিসে বৈঠক করেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। সেখান থেকে বের হয়ে তারা যান খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে যান।

মির্জা ফখরুল বলেন, ম্যাডাম অসুস্থ, অত্যন্ত অসুস্থ এবং উনার চিকিৎসা এখনো ঠিক মতো হচ্ছে না। পিজি হাসপাতালে রেখে ডাক্তাররা চিকিৎসা করার জন্য যে পরামর্শ দিয়েছিলো কর্তৃপক্ষ সেই পরামর্শ গ্র্রাহ্য করেননি। তাকে হঠাৎ করেই তাকে কারাগারে নিয়ে আসা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা তখনই বলেছি এটা অমানবিক। তার চিকিৎসার জন্য অবিলম্বে তাকে আবারো পিজি হাসপাতালে নিয়ে তার চিকিৎসার সুব্যবস্থা করার জন্য জোর দাবি জানাচিছ।

মির্জা ফখরুল বলেন, আইনের মধ্যে কোথাও নেই যে, যিনি চলতে পারেন না, অসুস্থ তাকে হুইল চেয়ারে করে আদালতে হাজির করতে হবে এবং আবার কারাগারে নিয়ে আসতে হবে। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। চারদিন ধরে তাকে থ্যারাপী দেয়া হয়নি। আজকে বোধহয় থ্যারাপিস্ট যাচ্ছেন। ফলে ম্যাডামের ব্যথা আরো বেড়ে গেছে।

দুপুর ২টা ৪৩ মিনিটি পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, জমিরউদ্দিন সরকার ও মির্জা আব্বাস। দেড়ঘন্টা পর তারা কারাগার থেকে বেরিয়ে আসেন। সাংবাদিকদের সাথে আলাপের সময়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত