প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বগুড়া প্রি-ক্যাডেট স্কুলে পরীক্ষার ফর্ম পূরনে অতিরিক্ত ফি

আরএইচ রফিক, বগুড়া : বগুড়ার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসএসসি পরীক্ষার ফর্ম ফিলাপের ক্ষেত্রে নিদিষ্ট অংকের চেয়ে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে । ফলে অনেক স্কুলে গরীব ছাত্র ছাত্রীদের জন্য অতিরিক্ত ফি জমা দিয়ে ফর্ম ফিলাপ করতে হিমসিম খেতে হচ্ছে।

বগুড়া শহরের ঐতিহ্যবাহী প্রি-ক্যাডেট স্কুল কর্তৃপক্ষের দায়িত্বহীনতা ও রহস্যজনক কঠোর অবস্থানের কারনে নিদিষ্ট অংকের চেয়ে অনেক বেশী পরিমান টাকা জমা দিয়ে ফর্ম ফিলাপের নির্দেশ জারী করার কারনে কমপক্ষে ২০/২৫জন শিক্ষার্থীর শিক্ষা জীবন মারাত্বক ভাবে হুমকীর মুখে পড়েছে।

জানা গেছে , স্কুল পরিচালনা কমিটি ও প্রধান শিক্ষকের মধ্য দীর্ঘ দিনের অভ্যান্তরিন দন্দের কারনে এমনিতেই স্কুলেই শিক্ষা ব্যবস্থা মারাত্বক ভাবে বিঘিœত হবার পর দীর্ঘ চড়াই উৎরাই পেরিয়ে একটি সুরাহা হবার সম্ভাবনা দেখা দিলেও পূনরায় পদে বহল হওয়া প্রধান শিক্ষকের ব্যাক্তিগত রোষে পড়েছেন প্রতিষ্ঠানের অনেক শিক্ষার্থী এমন অভিযোগ উঠেছে।

একাধিক অভিযোগে প্রি-ক্যাডেট স্কুলের অনকে ছাত্র ছাত্রী জানান, স্কুল পরিচালনা কমিটির সাথে প্রধান শিক্ষকের দন্দের কারনে কিছুদিন আগ পর্যন্ত প্রধান শিক্ষক তার পদ থেকে বাহিরে থাকায় তাদের শিক্ষা পরিবেশ মারাত্বক বিঘিœত হয় । যে বিষয়টি বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয় ফলে শহরের প্রায় সকলেই জানেন । কিন্তু হরহামেশাই স্কুল অভ্যান্তরে কমিটি ও প্রধান শিক্ষকের অবস্থানের কারনে হই হল্লা লেগেই থাকতো । পরে আদালতে পক্ষে বিপক্ষে রিট মামলা এবং শেষ অবস্থায় উচ্চ আদালতে রিট আবেদন খারিজ হয়ে যাবার পরে আবারো ওই শিক্ষা প্রতিষ্টানে ক্ষমতা দখলের দন্দে শিক্ষা পরিস্থিতি হুমকীর মুখে পড়তে যাচ্ছে । খোজ নিয়ে জানা গেছে , পক্ষ বিপক্ষে অবস্থানের কারনে অনেক শিক্ষার্থী জিঘাংসার স্বিকার হতে যাচ্ছে ।

এ ব্যপারে আরো জানা যায়, আসন্ন এসএসসি পরীক্ষা অংশ নেয়ার ক্ষেত্রে প্রস্তুতি পরীক্ষায় ফল খারাপের ক্ষেতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী তাদের দু’একটি সাবজেক্টে আবারো পরীক্ষা নেবার নিবেদন করেছেন । অন্য দিকে পরীক্ষার নিদিষ্ঠ ফি জমার ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটি সকল সরকারী নিয়মনীতি নির্দেশনার প্রতি বৃদ্ধা আঙ্গুল প্রদর্শন করে নিদিষ্ট অংকের চেয়ে অনেক বেশী টাকা ধার্য করে দিয়েছেন । জানা গেছে সরকারী নিয়মে বিজ্ঞান বিভাগে বোর্ড ফি সহ ১৭৫০টাকা এবং অন্য বিভাগে ১৫৭০টাকা জমা দেবার কথা থাকলেও প্রি ক্যাডেট স্কুল সে ক্ষেত্রে ৪৫০০টাকা জমা দিয়ে পরীক্ষার ফর্ম ফিলাপের নির্দেশনা জারী করেছেন।
গতকাল রবিবার খোজ খবর করতে স্কুলে গিয়ে প্রধান শিক্ষককে সেখানে পাওয়া যায়নি। সেকানে থাকা স্কুলের শিক্ষকরা এ ব্যপারে কোন মন্তব্য করতে না চাইলেও নাম প্রকাশে অনইচ্ছুক এক জন শিক্ষক জানান , ফর্ম ফিলাপের ক্ষেত্রে স্কুলের প্রধান শিক্ষক ৪৫০০টাকা বেধে দিয়েছেন।

সেখানে গিয়ে আরো দেখা গেছে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী যাদের অধিকাংশই গরীব। তারা নিজেদের অপারকতা জানিয়ে সরকারী নিয়মে ফর্ম ফিলাপের ফি জমা নেবার জন্য সেখানকার করনীকের কাছে অনুনয় বিনয় করছেন । সেখানকার কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, আগামী ১২ নভেম্বর ফর্ম ফিলাপের শেষ দিন । অতিরিক্ত টাকার জন্য তারা এখন পর্যন্ত ফি জমা করতে পারেননি। এ বিষয়ে ভুক্ত ভোগী শিক্ষার্থীরা বগুড়া জেলা প্রশাসক সহ শিক্ষা কর্মকর্তাদের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন । এদিকে বগুড়ার বিভিন্ন স্কুলে সরকারী নির্দেশ অমান্য করে নিদিষ্ঠ অংকের চেয়ে বহুগুন বেশী টাকা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ