প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাস থেকে বাবাকে ফেলে দিয়ে মেয়েকে হত্যা !

মাসুদ আলম : আশুলিয়ায় চলন্ত বাস থেকে বাবাকে ফেলে দিয়ে মেয়ে জরিনা খাতুনকে হত্যাকান্ডের ২ দিন পেরিয়ে গেলেও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। এ ঘটনায় ২/৩টি বাস শনাক্ত করেছে পুলিশ। হত্যাকান্ডে একাধিক বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত চলছে। এদিকে জরিনা হত্যা মামলাটি তদন্তের জন্য রোববার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ হেডকোয়াটার্সের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজি) নিদের্শে মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের বার দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে পিবিআইয়ের টিম কাজ শুরু করেছে।

জরিনার বৃদ্ধ বাবা আকবর আলী বলেন, আমি জীবিত থাকতে মেয়ে হত্যার বিচার দেখে যেতে চাই। খুনিরা আমাকে মারধর করে বাস থেকে ফেলে দিয়ে আমার মেয়েকে হত্যা করেছে। খুনিদের পায়ে ধরে মাপ চেয়েছিলাম, যেন জরিনাকে ছেড়ে দেয়। শুক্রবার জরিনা তার নাতিকে দেখতে বাবাকে নিয়ে মেয়ের বাড়ি আশুলিয়ার গাজীরচট মুন্সিপাড়ায় বেড়াতে যান। ওই দিন বিকেলে তারা গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জের উদ্দেশ্যে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ইউনিক বাসস্ট্যান্ডে টাঙ্গাইলগামী একটি বাসে উঠেন। বাসের উঠার পর থেকে বাসে থাকা লোকজন তাদের মারধর শুরু করে। রাস্তায় বাবাকে ফেলে দিলেও মরাগাং এলাকায় মহাসড়কের পাশে জরিনার লাশ খুঁজে পায় পুলিশ।

আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ বলেন, হত্যাকান্ডে জড়িত চালক, হেলপার ও সুপারভাইজারসহ জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। প্রাথমিকভাবে ২/৩টি বাস শনাক্ত করা হয়েছে। ঘটনাস্থলের আশপাশের বেশ কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। জরিনা হত্যার পেছনে অন্য কোন কারণ থাকতে পারে। সব বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত চলছে। সম্পাদনা: মাহবুব আলম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ