প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খুলনা পাওয়ারের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার

আরিফুর রহমান তুহিন: শেয়ার লেনদেনের স্থগিতাদেশ তুলে নেওয়া হলো পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি খুলনা পাওয়ারের। রোববার দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসসি) পর্ষদ সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর আগে বাজার ও বিনিয়োগকারীদের স্বার্থে গত ৭ নভেম্বর সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অধ্যাদেশ, ১৯৬৯ এর ৯ ধারার ৭ উপ-ধারা ও ডিএসই লিস্টিং রেগুলেশন ২০১৫ এর ৫০ (১) অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেয় ডিএসই।

তার আগে ৪ নভেম্বর খুলনা পাওয়ারের ১ কোটি ৮০ লাখ ৬৪ হাজার ২৩৫টি শেয়ার বিক্রির ঘোষণা দেয় কোম্পানিটির করপোরেট উদ্যোক্তা সামিট করপোরেশন। অথচ কোম্পানিটির ২০১৭-১৮ অর্থবছরের লভ্যাংশ সংক্রান্ত বিষয়ে আগামী ২২ নভেম্বর রেকর্ড ডেট রয়েছে। এমতাবস্থায় রেকর্ড ডেটের আগে শেয়ার বিক্রি করলে লভ্যাংশ পাওয়া যাবে না।

এদিকে খুলনা পাওয়ারের শেয়ার বিক্রির ঘোষণার খবরের দিন কোম্পানিটির শেয়ার দাম ১১১ টাকা ৯০ পয়সা থেকে কমে ১০২ টাকা ৪০ পয়সায় নেমে আসে। যা পরের দিন ৫ নভেম্বর তা আরও কমে ৯২ টাকা ৪০ পয়সায় দাঁড়ায়। প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার দাম কমার পাশাপাশি শেয়ারবাজারে টানা পতন হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতেই কোম্পানিটির শেয়ার অনির্দিষ্টকালের জন্য লেনদেন স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেয় ডিএসই। তবে দুই কার্যদিবস পরেই ডিএসই এ স্থগিতাদেশ তুলে নিল।এ বিষয়ে ডিএসই জানাই, কোম্পানিটির কর্পোরেট উদ্যোক্তা সামিট কর্পোরেশন তাদের ঘোষিত শেয়ার ব্লক মার্কেটে বিক্রি করবে। এ কারণে স্থগিতাদেশ তুলে নেয়া হয়েছে।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, খুলনা পাওয়ারের শেয়ার দর গত সেপ্টেম্বর মাসে অস্বাভাবিক হারে বাড়ে। ওই মাসে কোম্পানিটির শেয়ার ৭০ টাকা থেকে ১৩৮ টাকায় উঠে যায়। যা মাসের ব্যবধানে প্রায় দ্বিগুণ হয়। তবে এর পেছনে কোনো যৌক্তিক কারণ ছিল না বলে ডিএসইর অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ