প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মুশফিক-মুমিনুলের রেকর্ড জুটিতে প্রথমদিন বাংলাদেশের

আক্তারুজ্জামান : জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ঢাকা টেস্টের টস জয় থেকে শুরু করে দিনের শেষ বল পর্যন্তই ছিল বাংলাদেশের অনুকূলে। তবে প্রথম সেশনের কয়েকটা ওভার ছিল প্রতিকূলে। কেননা ঐ ওভারগুলোতে আগের চার টেস্টের যে বাংলাদেশ ছিল সেই বাংলাদেশের রূপ দেখা যাচ্ছিল। কিন্তু দুশো পেরোনোর আগেই গুটিয়ে যাওয়ার যে রীতি তৈরি হয়েছে, সেটা আর হতে দেননি মুশফিক-মুমিনুল জুটি। স্কোরবোর্ডে ৩০৩ রান তুলে দিন শেষ করেছে টাইগাররা। যদিও হারাতে হয়েছে ৫টি উইকেট।

কিন্তু দিনের চার ওভার বাকি থাকতে মুমিনুলের ফিরে যাওয়াটা দলের জন্য কষ্টেরই বটে। তবে যাওয়ার আগে নিজের পুরোনো খেলা উপহার দিয়ে গেছেন ‘মি. টেস্ট স্প্শোলিস্ট’। মিরপুরের মাঠে সর্বোচ্চ (১৬১) রান করার পাশাপাশি মুশফিককে নিয়ে খেলেছেন চতুর্থ উইকেটে রেকর্ড (২৬৬) গড়া জুটি। তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের সপ্তম শতক।

বিপদে পড়া দলকে বাঁচাতে ক্রিজে নেমে থেমে ছিলেন না ‘মি. ডিপেন্ডেবল’ মুশফিকও। মুমিনুলকে সঙ্গ দিয়ে তিনিও খেলেছেন শত রানের ইনিংস। ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ শতক তুলে (১১১) অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। তবে দিনের ছয় বল বাকি থাকতে নাইটওয়াচম্যান হিসেবে নামা তাইজুল ফিরে যাওয়ার পর অধিনায়ক রিয়াদকে নিয়ে শেষ ওভারটা দেখেশুনেই খেলেন মুশফিক।

টেস্ট ক্রিকেটের ১৮ বছর পার করে মিরপুরের মাঠে ১৮তম ম্যাচ খেলতে নেমেছিল বাংলাদেশ দল। ঐ মাঠের সেরা দুই পারফর্মার সাকিব ও তামিমকে ছাড়াই এই প্রথম নামতে হয়েছে টাইগারদের। তাদেরকে ছাড়া মাঠে নামা যে বিপদজনক সেটা তো হাড়ে হাড়ে বুঝতে পেরেছিল টাইগাররা। তেব মুশফিক-মুমিনুলে সে অভাব কিছুটা দূর হয়।

এর আগে দিনের শুরুতে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে সপ্তম ওভারে ‘ডাক’ মেরে ফিরে যান ইমরুল কায়েস। উইকেটে থিতু হতে পারেননি লিটন দাসও (৯)। আর অভিষিক্ত মিথুন তো লজ্জার স্কোর (০) গড়ে ফিরে যান প্যাভিলিয়নে। স্কোর ২৬/৩! সফরকারীদের পক্ষে বল হাতে কাইলি জার্ভিস ৩টি এবং চাতারা ও ত্রিপানো একটি করে উইকেট নেন।

ব্যাস, এখানেই থামতে হয় জিম্বাবুয়েকে। ২৯২ রানের মাঝে আর কোনো উইকেট নিতে পারেনি সফরকারী দলের বোলাররা। জার্ভিস, চাতারা, মাভুতা ত্রিপানো, সিকান্দার সবাই আপ্রাণ চেষ্টা করে। কিন্তু ফিল্ডারদের মিস করায় উইকেট পেতে অনেক দেরী হয়। ততক্ষণে নিরাপদস্থানে পৌছে গেছে বাংলাদেশ দল।

ম্যাচের আগে টাইগারদের হয়ে সাদা জার্সিতে অভিষেক হয়েছে ব্যাটসম্যান মো. মিথুন ও পেসার খালেদ আহমেদের। বাংলাদেশের ৯১ ও ৯২তম ক্রিকেটার হিসেবে টেস্ট ক্যাপ পরেছেন মিথুন ও খালেদ। ম্যাচের আগে আকরাম খান এ দুজনকে টেস্ট ক্যাপ পরিয়ে দেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত