প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে আয়কর মেলা

আবু বকর : ‘উন্নয়ন ও উত্তরণ-আয়করের অর্জন’ এই শ্লোগান নিয়ে আগামী ১৩ নভেম্বর মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে আয়কর মেলা। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে আয়কর মেলা চলবে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত।

মেলার সমন্বয়কারী এবং এনবিআর সদস্য (আয়কর প্রশাসন) জিয়া উদ্দিন মাহমুদ বলেন, গত কয়েক বছর ধরে নভেম্বর মাসে মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। “মেলায় সবাই আয়কর রিটার্ন জমা দিতে পারবেন।

মেলা উপলক্ষে আজ রোববার সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআর। বিকেল ৩টায় রাজধানীর সেগুনবাগিচায় এনবিআর সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে আয়কর মেলার বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া।

১৩ নভেম্বর সকাল ৯টায় রাজধানীর বেইলী রোডের অফিসার্স ক্লাব প্রাঙ্গণে মেলা উদ্বোধন করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

গত দুই বছর কেন্দ্রীয়ভাবে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্মাণাধীন রাজস্ব ভবনে মেলা অনুষ্ঠিত হলেও এবার তা আবারও ফিরে আসছে বেইলী রোডের প্রাঙ্গণে।

জিয়া উদ্দিন মাহমুদ জানান, মেট্রোরেলের কাজ চলমান থাকায় যানজট এড়াতেই এবার অফিসার্স ক্লাবে মেলা আয়োজন করা হচ্ছে। নির্বিঘ্নে বিপুল সংখ্যক করদাতা যাতে মেলায় আসতে পারেন সেজন্য এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এছাড়া আগারগাঁওয়ের নির্মাণাধীন রাজস্ব ভবনের কাজ চলায় এবার সেখানেও মেলা আয়োজন করা সম্ভব হচ্ছে না।

মেলার নতুনত্ব জানতে চাইলে জিয়া উদ্দিন বলেন, “এবারের মেলায় নতুন করদাতাদের উদ্বুদ্ধ করতে অডিও ভিজ্যুয়াল পদ্ধতিতে ওয়ার্কশপ হবে। নতুন করদাতা তৈরি ও রিটার্ন দাখিলে সাহায্য করতেই এই কর্মশালা।

“এতে সাধারণত কারদাতাদের মনে যে প্রশ্নগুলো আসে, তা সেট করা থাকবে। নতুন কোনো প্রশ্ন জাগলে সেই প্রশ্নের উত্তরও অন্তর্ভুক্ত হবে। এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচি চলতে থাকবে, যা হেল্প ডেস্কের মতো কাজ করবে। এটিই এবারের মেলার একমাত্র ব্যতিক্রম।”

তিনি জানান, রাজধানী ঢাকাসহ সব বিভাগীয় শহরে সাত দিন আয়কর মেলা হবে। এছাড়া সব জেলা শহরে চার দিন এবং ৩২টি উপজেলায় দুই দিন মেলা হবে। পাশাপাশি উপজেলা পর্যায়ে ৭২টি ‘গ্রোথ সেন্টারে’ এক দিন ভ্রাম্যমাণ মেলা অনুষ্ঠিত হবে।

প্রতিবছরের মত করদাতারা এবারের মেলায়ও আয়কর বিবরণীর ফরম থেকে শুরু করে কর পরিশোধের জন্য ব্যাংক বুথও পাবেন। তাদের জন্য মেলায় সহায়তা কেন্দ্রে অপেক্ষা করবেন কর কর্মকর্তারা। একই ছাদের নিচে সব সেবা মিলবে। করদাতা শুধু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে আনলেই হবে।

২০১০ সালে প্রথমবারের মতো ঢাকা ও চট্টগ্রামে আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়। এরপর প্রতিবছরই মেলার পরিধি বেড়েছে।

জিয়া উদ্দিন মাহমুদ বলেন, করমেলার মাধ্যমে তরুণ ও দেশপ্রেমিক করদাতারা উদ্বুদ্ধ হচ্ছে। করমেলার সুনাম দেশের বাইরে ছড়িয়ে পড়েছে। করসচেতনতা তৈরি এবং মানুষকে কর প্রদানে উদ্বুদ্ধ করার ক্ষেত্রে করমেলা আন্তর্জাতিকভাবে রোল মডেল হিসেবে পরিগণিত হচ্ছে।

মেলায় নতুন করদাতারা ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন) নিতে পারবেন। আবার পুনর্নিবন্ধন করে ই-টিআইএন নিতে পারবেন পুরনো করদাতারা।

এছাড়া ই-পেমেন্টের জন্য পৃথক বুথ থাকবে। মুক্তিযোদ্ধা, নারী, প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ করদাতাদের জন্য আলাদা বুথ থাকবে।

আগামী ১২ নভেম্বর রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে সেরা করদাতাদের পুরস্কার দেয়া হবে। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন অর্থমন্ত্রী মুহিত।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ