প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ট্রাম্পের বাণিজ্যযুদ্ধ সমগ্র এশিয়ার অর্থনীতিকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে

নূর মাজিদ : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রা¤প প্রশাসনের বাণিজ্যযুদ্ধ নীতি চীনের অভ্যন্তরীণ বাজারের চাহিদার ওপর গভীর প্রভাব বিস্তার করতে পারে। এতে চীনের পাশাপাশি এশিয়া মহাদেশের অন্যান্য দেশের অর্থনীতিও ক্ষতির সম্মুখীন হবে। বিশেষ করে বাণিজ্যযুদ্ধের ফলে বিশ্ব অর্থনীতির পণ্য সরবরাহ ব্যবস্থায় যে বিপর্যয় সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তা এশিয়ার সকল দেশকেই প্রভাবিত করবে। গতকাল শনিবার মার্কিন গণমাধ্যম সিএনবিসি প্রকাশিত এক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনটিতে বৈশ্বিক সরবরাহ ব্যবস্থার বিপর্যয়ের পাশাপাশি অন্য যেসকল কারণে এশিয়ার অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে তা তুলে ধরা হয়। যার মধ্যে অন্যতম হলো এশিয়ার অনেক দেশই চীনের ভোক্তাবাজারের চাহিদা পূরণে পণ্য রপ্তানির ওপর অর্থনৈতিকভাবে নির্ভরশীল হয়ে উঠেছে।

বাণিজ্যযুদ্ধ যদি চীনের চাকরির বাজার এবং উৎপাদনশীলতা আংশিকভাবেও কমিয়ে আনে তবে দেশটি বাধ্য হয়েই আমদানি সংকোচন করবে। এই বিষয়ে অক্সফোর্ড ইকনোমিক্সের এশিয় অর্থনীতিবিশারদ লুইস কুজিস বলেন, ‘অধিকাংশ এশিয় দেশের অর্থনীতির জন্যই চীনা বাজারের চাহিদা পূরণে রপ্তানিবৃদ্ধি তাদের অর্থনীতিক ভারসাম্যে ও প্রবৃদ্ধির জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। চীনে পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে তারা দেশটির সঙ্গে নিজেদের বাণিজ্য ঘাটতির কমিয়ে আনতে পারে এবং একই সঙ্গে চীনা শিল্পের কাঁচামাল সরবরাহ করে বিশ্ব সরবরাহ ব্যবস্থায় অংশীদারি ভূমিকা রাখে। চীনা শিল্পে এশিয় দেশগুলোর রপ্তানিকৃত কাঁচামাল ব্যবহার ও  চীনা শিল্পোৎপাদন কমলে এই দেশগুলো সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

বর্তমানে চীনা সরকার অভ্যন্তরীণ চাহিদা পূরণে আমদানি বৃদ্ধি করছে এবং একইসঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অনেক দেশে তাদের উৎপাদন কেন্দ্রগুলো স্থানান্তর করছে। ফলে বাণিজ্যযুদ্ধের প্রভাবে চীন যদি এই সকল উৎপাদন কেন্দ্র পুনরায় নিজ ভূখ-ে ফিরিয়ে নেয় তবে ওই অঞ্চলের বিনিয়োগ পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্য অবনতি হবে। সিএনবিসি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ