প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত সরকারের ইচ্ছার প্রতিফলন : এমরান সালেহ প্রিন্স

মো: মারুফুল আলম : বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেছেন, ইলেকশন কমিশনের নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিশ্চয়ই আওয়ামী লীগের ইচ্ছার প্রতিফলন। শুক্রবার সময় টিভির টকশো’তে তিন এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা আর ইভিএম ব্যবহার সরকারের ইচ্ছা প্রতিফলনের অংশ। সরকার আগে থেকেই জানতো, ৮ তারিখ তফসিল ঘোষণা হবে। সে কারণেই আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ৯ তারিখ থেকে মনোনয়নপত্র বিতরণের কর্মসূচি দুই দিন আগেই প্রেস রিলীজের মাধ্যমে ঘোষণা করা হয়েছে। একইভাবে, নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে, সুশীল সমাজের সঙ্গে এবং নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে সংলাপ করেছিলো।

এ প্রসঙ্গে প্রিন্স বলেন, সেদিন ইভিএম ব্যবহার না করার পক্ষে অধিকাংশের মত ছিলো। সেই ইভিএম নিয়ে আওয়ামী লীগের এতই উৎসাহ যে, অন্য কোন বিষয় নিয়ে সেরকম উৎসাহ দেখা যায়নি। সে সময়ে সিইসি সাহেব বলেছিলেন, সকল রাজনৈতিক দল একমত না হলে নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার হবে না। সেখান থেকে হঠাৎ ইউটার্ন নিয়ে একেবারে বাজেট পাশ করে ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে ইভিএম এর ব্যবস্থা হয়ে গেলো। নিশ্চয়ই এতে করে আওয়ামী লীগের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটিয়েছে ইলেকশন কমিশন।

প্রিন্স বলেন, প্রধানমন্ত্রী প্রথম সংলাপে স্পষ্ট করে বলেছিলেন যে, ‘নতুন আর মামলা হবে না’, যেগুলো হয়েছে সেগুলোর তালিকা চেয়ে তিনি বলেছিলেন ‘রাজনৈতিক মামলা হলে আমরা ব্যবস্থা নেবো’। উনার ওই বক্তব্যের পর আমাদের দলের মহাসচিবের স্বাক্ষরিত বিভিন্ন সময়ে সেই তালিকাগুলো প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। কিন্তু আমাদের কাছে মনে হয়েছে, নতুনভাবে মিথ্যা মামলার এই গতি রকেটের গতির মত হয়ে গেছে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গ্রামে-গঞ্জে সাধারণ কর্মী-সমর্থকদের নামে গায়েবী মামলা হচ্ছে।

এমনকি ক্যান্ডিডেটদের নামে মামলা দেয়া হয়েছে। আমার নামেও মামলা দেয়া হয়েছে। কর্মী সমর্থকদের যদি মামলার কারণে এলাকাছাড়া থাকতে হয় এমন পরিস্থিতিতে আমরা কাকে নিয়ে নির্বাচন করবো। তাই বলছি, এটা নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এর ‘সারা বাংলাদেশে উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরী হয়েছে’ বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রিন্স বলেন, নিশ্চয়ই উৎসবমুখর পরিবেশ আওয়ামী লীগের মধ্যে, সাধারণ মানুষের মধ্যে নয়।

আজকে টেলিভিশন ফুটেজে দেখা গেছে- আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে ভীড়, আর বিএনপি কার্যালয়ের সামনে র‌্যাব, পুলিশ দিয়ে একজনের সাথে একজন গা ঘেঁষে দাড়িয়ে আছে। আমরা অফিসে ঢুকতে পারিনি। এটা কি নিরপেক্ষ সুষ্টু নির্বাচনের পরিচয় বহন করে? এটা কি ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ এর পরিচয় হতে পারে?

প্রিন্স আরও বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতি, নির্বাচন, আন্দোলন সামগ্রিক বিষয় নিয়ে আমাদের দলে সিরিয়াস বৈঠক চলছে। আসলে বিএনপি একটা নির্বাচনমুখী রাজনৈতিক দল। আমাদের আন্দোলনের মূল বিষয়টা কিন্তু নির্বাচন। নির্বাচন করে সরকারে গিয়ে জনকল্যানমুখী পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়ন করতে চাই আমরা। এখন নির্বাচনটা কিভাবে হবে। নিরপেক্ষ নাকি নিয়ন্ত্রিত? এটাই প্রশ্ন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ