প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সংসদ নির্বাচনের আগে ভোটারদের হিসেব-নিকেশ!

ড. আবুল হাসনাৎ মিল্টন : বাংলাদেশের মতো দেশে সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রথম শর্ত হলো নিবন্ধিত গুরুত্বপূর্ণ দলসমূহের অংশগ্রহণ। যখন আওয়ামী লীগ বা বিএনপির মতো বড় দলগুলোর যে কোনো একটি নির্বাচন বর্জন করে, তখন এমনিতেই ভোটারদের মধ্যে ভোটদানের আগ্রহ কমে যায়। নির্বাচনের মান নিয়ে তখন যে যতো কথাই বলুক না কেনো, তা আর তেমন গুরুত্ব বহন করে না। স্থানীয় সরকার পর্যায়ের নির্বাচনের তুলনায় জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ক্ষেত্রে প্রার্থী নির্বাচনে ভোটারদের মানসিকতা ভিন্ন থাকে। দুটি নির্বাচনে প্রার্থীদের কাছে ভোটারদের প্রত্যাশাও ভিন্ন। ভোটদানের ক্ষেত্রে প্রার্থীর দলীয় প্রতীকও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। গবেষণায় দেখা গেছে, জাতীয় নির্বাচনে ভোটারদের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ তাদের রাজনৈতিক সমর্থনানুযায়ী সমর্থিত দলের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে থাকেন। উন্নয়ন, কূটনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন সরকারের সাফল্যও নির্বাচনে ভোটদানের সময় অনেক ভোটারের বিবেচনায় থাকে। এমন কী খেলাধুলায় সাফল্যও নির্বাচনে সরকারি দলের প্রার্থীর পক্ষে যায়।

ভোট প্রদানের ক্ষেত্রে বিগত সরকারের উন্নয়নই একমাত্র বিবেচ্য নয়। অতীত অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, বাংলাদেশের মানুষ অনেক সময় সরকারের বেশি ভালো কাজের সমর্থন করার চেয়ে কম মন্দ কাজের বিরোধিতা করার জন্য ভোট দেয়। তৃণমূল পর্যায়ে ক্ষমতাসীন সংসদ সদস্য এবং তার অনুসারী সমর্থক নেতা-কর্মীর বিরূপ আচরণও ভোটে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। যে কারণে প্রতিটি আসনে প্রার্থী নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। নির্বাচনে জিততে হলে বিতর্কিত প্রার্থীদের মনোনয়ন না দেওয়াই উচিত।

নির্বাচনে কিছু অদ্ভুত ঘটনাও ঘটে। ফলে জাতীয় নির্বাচনে ভোট প্রদানের ক্ষেত্রে সবসময় ভোটারের সুচিন্তিত মতামতের প্রতিফলন ঘটে না। অনেক তুচ্ছ বিষয়ও ভোট প্রদানের নির্ধারক হয়ে দাঁড়ায়। নির্বাচনের সাথে সম্পর্কিত নয়, এমন অনেক ব্যক্তিগত বা সামাজিক বিষয়ও ভোটদানের সিদ্ধান্তকে প্রভাবিত করে।

বাংলাদেশের মানুষ প্রার্থীর ঔদ্ধত্য পছন্দ করে না। বরং প্রার্থীর বিনয়, নম্র আচরণ পছন্দ করে। সুষ্ঠু নির্বাচনে দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসীর চেয়ে ক্লিন ইমেজের প্রার্থীর জয়লাভের সম্ভাবনা বেশি। আবার কোনো কোনো ইস্যুর সাথে যদি ভোটারের আবেগকে জড়িয়ে দেওয়া যায়, তবে তা প্রার্থীর পক্ষে যেতে পারে।

গবেষণায় দেখা গেছে, একজন ভোটারের ভোট প্রদানের সিদ্ধান্ত নানান কারণে প্রভাবিত হতে পারে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিটি আসনের জন্য তাই সম্ভাব্য সবকিছু বিবেচনা করে রাজনৈতিক দলগুলির দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন করা উচিত। আজকাল দিন পাল্টেছে। কালো টাকা, পেশিশক্তির জোর আর ফাপড়বাজি করে নির্বাচনে জেতার দিন এখন আর নেই।

লেখক : অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী কবি ও চিকিৎসক। চেয়ারম্যান, আন্তর্জাতিক বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ