প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কেমন আছেন সৈয়দ আশরাফ

বাংলাদেশ প্রতিদিন : ভালো নেই আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তার শরীরে বাসা বেঁধেছে রোগব্যাধি। ব্যাংককের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসা চলছে তার। সার্বক্ষণিক সেবা-শুশ্রূষা করছেন পরিবারের সদস্যরা। তার সুস্থতা কামনায় নিয়মিত দোয়া করছেন কিশোরগঞ্জবাসী। শুধু কিশোরগঞ্জ নয়, সৈয়দ আশরাফের শারীরিক সুস্থতার জন্য দেশের প্রতিটি জেলা, মহানগর, উপজেলা, পৌর ও ইউনিয়নে দলের নেতা-কর্মীরাও প্রার্থনা করছেন।

ঢাকায় আজ বাদ আসর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজন করা হয়েছে দোয়া মাহফিল। সৈয়দ আশরাফের ছোট ভাই সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম জানিয়েছেন, সৈয়দ আশরাফ ছয়-সাত মাস ধরে ক্যান্সারে আক্রান্ত। ক্যান্সারটা এখন ফোর্থ স্টেজে ডরমেন্ট বা ঘুমন্ত অবস্থায় রয়েছে। এটা চার থেকে পাঁচ বছরও থাকতে পারে। তবে ক্যান্সার এখনো সারা শরীরে ছড়ায়নি। বলা চলে, তার শারীরিক অবস্থা বেশি খারাপও নয়, আবার ভালোও নয়। তিনি স্মৃতিশক্তি হারাননি। চিকিৎসকরা তাকে সুস্থ করে তুলতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছেন। তারা এখনো আশা ছাড়েননি।

তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিয়মিত সৈয়দ আশরাফের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। কখনো আমার মাধ্যমে, আবার কখনো থাইল্যান্ডে রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক খোঁজখবর রাখছেন। প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত সহানুভূতি দেখিয়ে বলেছেন, চিকিৎসার টাকা নিয়ে কোনো চিন্তাভাবনা করতে হবে না। আশরাফের সুচিকিৎসা হবে। থাইল্যান্ডে বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্রের খবর, প্রায় ছয় মাস হলো বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সৈয়দ আশরাফের পাশে তার পরিবারের সদস্যরা নিয়মিতই আছেন। শুরু থেকেই তার ছোট ভাই ছিলেন, পরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে পরিবারসহ আসেন তার বোন ও লন্ডন থেকে এসেছেন তার মেয়ে। থাইল্যান্ডে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত নিয়মিত হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি দূতাবাসের প্রতিনিধিদের পাঠাচ্ছেন তার চিকিৎসা সংক্রান্ত সহযোগিতার জন্য।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ও ১৯৭৫ সালে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে নিহত জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলামের বড় সন্তান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম টানা চারবার কিশোরগঞ্জ-১ আসন থেকে জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। বর্তমান জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফ অতীতে বেসরকারি বিমান চলাচল ও পর্যটন, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন। তবে সবকিছুর বাইরে ২০০৭-০৮ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে সংস্কারপন্থিরা যখন আওয়ামী লীগ থেকে শেখ হাসিনাকেই মাইনাস করার অপতৎপরতায় লিপ্ত ছিলেন, সেই ক্রান্তিকালে দলীয় প্রধানের পক্ষে নেতা-কর্মীদের ঐক্য অটুট রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন সৈয়দ আশরাফ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত