প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গ্রেফতার আতঙ্কে পুরুষশূন্য যশোরের যে গ্রাম

যশোর প্রতিনিধি : যশোরের ঝিকরগাছার মাটিকুমড়া গ্রাম পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। সেখানে বিরাজ করছে অমাবশ্যা রাতের নিস্তব্ধতা। আসামি আটকের নামে সেখানে চলছে পুলিশি তাণ্ডব। পুলিশ ওই গ্রামের প্রায় ১শ বাড়ি ভাংচুর করেছে। পুরো গ্রামটা ঘিরে রেখেছে পুলিশ বাহিনী। ঝিকরগাছা মাটিকুমড়া গ্রাম থেকে ৪৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। গ্রামে কেউ ঢুকতে অথবা গ্রাম থেকে কেউ বের হতে পারছে না বলে গ্রামের সাধারণ মানুষ অভিযোগ করেছে।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার রাতের এক ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঝিকরগাছা থানা পুলিশের কয়েকজনের গ্রামবাসীর মধ্যে মারামাররি ঘটনা ঘটে। সেখান থেকেই পুলিশ এখন গ্রেফতার চালাচ্ছে পুরো গ্রামজুড়ে। জানা যায়, সিভিল পোশাকে ঐ গ্রামে এসে মাদক সেবন এবং ডাকাত সন্দেহে সংঘর্ষের পর আহত হয় হয় পুলিশ সদস্য।  আহতরা হলেন যশোর ডিবি পুলিশের এ এস আই মুরাদ (৩৯) কনস্টেবল শিমুল গাজী (৩৫) কনস্টেবল মামুন গাজী (৩৮) কনস্টেবল আসগর গাজী (৩৫) কনস্টেবল রাসেল (২৮) ও প্রাইভেটকার চালক শাওন (৩৩)। তাদেরকে উদ্ধার করে ঝিকরগাছা ও শার্শা থানার পুলিশ।

ঘটনার পর পরই ওই রাতেই পুলিশ মাটিকুমড়া গ্রামে তাণ্ডব চালায়। গ্রামবাসীকে মারধরের পাশাপাশি গ্রেফতারের ঘটনা ঘটছে। গ্রামের ইউপি সদস্য থেকে শুরু করে কেউই রেহায় পাচ্ছেন না। এ পর্যন্ত পুলিশ মাটিকুমড়া গ্রাম থেকে ৪৪ জনকে আটক করেছে।আটকের বিষয়টি ঝিকরগাছা থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক স্বীকার করে বলেন, পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় ঝিকরগাছা থানায় দুটি মামলা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, পুলিশের উপর হামলার ঘটনার সাথে জড়িতরা আটক না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আনসার আলি বলেন, ‘একটা ঘটনা ঘটলে অবস্থাতো বোঝেনই কি হয়। এঘটনায় বেশ কিছু আটক হয়েছে। তবে আটকের সংখ্যাটা এই মুহুর্তে বলা যাচ্ছে না। তবে আটককৃতদের যাচাই বাছাই করা হচ্ছে কারা ঘটনার সাথে জড়িত।’

এদিকে বৃহস্পতিবার রাতেই পুলিশ সুপার মঈনুল হক সাংবাদিকদের জানান, ‘যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার মাটিকুমড়া গ্রামে এক মাদক বিক্রেতাকে ধরতে অভিযানে যায় গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। কিন্তু ডিবি পুলিশকে ভুয়া মনে করে গ্রামের লোকজন মাইকে ঘোষণা দিয়ে জড়ো হয়ে পুলিশের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে। গণপিটুনিতে আহত হন তিন ডিবি কনস্টেবল ও প্রাইভেট কার চালক।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ