প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খুনি মোস্তাকের সাক্ষাৎকার

আনোয়ার শাহাদত : যারা জানে, তারা জানে আমার বিনয় সম্পর্কে; অর্থাৎ আমি যে কত বিনীত লোক। আমার মতোন বিনীত লোক পাওয়া দুষ্কর ছিল যে যুগে, এমন কি এ যুগেও!  সে যুগ মানে হলোগেÑবিচিন্তা যুগ, কি মিনার মাহমুদ যুগ! সে হবে লেট এইটিস, পড়ন্ত ৮০’র দশক। আমি হাবাগোবা বিনীত হিসবে বেশ খ্যাত; বিশ্বাস না হলে এখনকার কি তখনকার বিখ্যাতদের জিজ্ঞাসা করা যেতে পারে যেমন আমান (দৌলা) ফজলুল বারী, আসিফ, জিল্লুর, বোরহান, আমিন, মানিক এমন কি আক্কাস বা মতি ভাই (চৌধুরী)।

তো ওই বিনয় নিয়মে আগামসি লেনের (অবাক হলাম ওই লেনের নামটি মনে আছে এখনও) বাংলার ইতিহাসের সেরা ‘রাজনৈতিক খুনি’ (খুনের দায়) খন্দকার মোস্তাকের সাক্ষাৎকার পাবো, তিনি রাজি হলেন। তিনি রাজি হলেন কেনোনা সেই আমার বিনয় এ্যাপ্রোচ। মিনার ভাই এটা খুব হয়তো পছন্দ করতেন আমার যে, আমার কথিত ওই বিনয় সত্ত্বেওÑআমার ভেতরের শক্ত ভুতটিকে…। মোস্তাকের সাক্ষাৎকার তিনি এডিট করবার পর আমাকে তার কক্ষে এসে ডেকে নিয়ে গেলেন।  বললেন; আপনি এ কি করেছেন? কেমনে করলেন, এ দেখি ওকে (খন্দকার মোস্তাক) তো দেখি একেবারে ঘামিয়ে কাঁদিয়ে ফেলেছেন! হাত বাড়িয়ে হ্যান্ডশেক করলেন, সিগারেট দিলেন, বললেন ‘আপনারে দিয়ে হবে’! (হা হা হা…মিনার ভাই’র এটা প্রিয় সংলাপ, আমাকে অনেক দিন বলেছেন)। সেই সাক্ষাতকারের হেড লাইন ছিল ‘আর একটু উন্নতমানের প্রশ্ন করুন’।

কথিত আছে, খুনী মোস্তাক আগে কখনও বিস্তারিত সাক্ষাৎকার দেননি আমার আগে (বোঝেন আমার বিনয়ের ফল কারে কয়!)  সকালে ঘুম থেকে উঠে এমন নিউ ইয়র্ক স্টাইল ম্যারাথন দিনে (আজ ম্যারাথন দিন ছিলো) হেমন্তের রঙ্গিন পাতা দেখতে লং ড্রাইভে গেছি। দুপুরে প্রিয় ইলেক্ট্রনিক্সের দোকানে গেছে ডিফিউশন পেপার কিনতে। ফেরবার পথে সাবওয়েতে পরিকল্পনা করেছি ঘরে ফিরে আইয়ুব খানের ডায়েরিটা পড়বো (ফিরে এসে খুজলাম, খুঁজে পাইনি), না হলে, ইউএস কংগ্রেসের রিপোর্ট ৭৫ এর উপর, বিশেষ করে জেল হত্যা।  না হলে খুসবন্ত সিংএর জিন্নাহ’র উপর লেখা বই…এখন যে সবই গুলিয়ে ফেলেছি…শরাবান তাহুরার ফলে…) বছর দুয়েক আগে রিমি আপার (শারমিন রিমি, তাজউদ্দীন কন্যা) সঙ্গে দেখা হয়েছিল নিউ ইয়র্কে, বললাম চিনেছেন কিনা, তিনি কহেন, হ্যাঁ তোমার বউয়ের নাম…(তিনি আমার বউয়ের নাম কয়), হা হ হা…এই কারণে মেধাবী লোকজন আমার পছন্দ; মানে শারমিন আপারে, তাজউদ্দিন কন্যা…। আমার ব্যক্তিগত ভাবে তাহের (কর্নেল তাহের) ও চার নেতার (জেল হত্যা) হত্যার প্রতি বিশেষ কি কারণে জানি না দুর্বলতা আছে। তো শারমিন হোসেনের বইখানি কিন্তু আর তার স্বাক্ষর দেয়া আমি কিনলাম না।

সে কেন কিনলাম না বলতে পারব না। কিছুদিন পর ভাবছি ঢাকা যাবো, তখন পাঠক সমাবেশে যাবোয়ানে না হয়, তার বইখানা নিতে (আর সঙ্গে ফাও বিজু সাহেবের আদা ও লেবু দেওয়া চা হবেয়ানে বাড়তি); না হলে বাতিঘরের ওই হ্যাটপরা চাঁটিগাইয়ের ভ্রাতার অধিক চিনি দেয়া কফি খেয়ে নাহয় বইখানা কিনলাম এবং মিলিয়ে দেখিলাম কিসিঞ্জার এবং পাক প্রো মিলিটারির জেল হত্যার এক এ্যানালিটিক্যাল কম্পেয়ারিজন…।  এবং মোশাররাফ কন্যার লেখা গ্রন্থখানি…। লেখক : সাংবাদিক। ফেসবুক থেকে। সম্পাদনা : রেআ

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত