প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সড়ক ভবনের সামনে ১২ মাস পানি

ডেস্ক রিপোর্ট : গাজীপুর মহানগরীর চান্দনা চৌরাস্তার সড়ক ভবনের সামনে ঢাকা-গাজীপুর সড়কে পানি জমে থাকে ১২ মাস। মাসের পর মাস এ অবস্থা চললেও পানি সরানোর উদ্যোগ বা কোনো আগ্রহ নেই গাজীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের। এতে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে পথচারী, ব্যবসায়ী ও আশপাশের মানুষ।

ঢাকা, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল হয়ে উত্তরবঙ্গ ও গাজীপুর শহরে প্রবেশের চার রাস্তার মিলনস্থলই হলো গাজীপুর মহানগরীর চান্দনা চৌরাস্তা। দেশের প্রথম মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্য ‘জাগ্রত চৌরঙ্গী’ ঘিরে চান্দনা চৌরাস্তার চারদিকে গড়ে উঠেছে শিল্প-কারখানা, সরকারি-বেসরকারি অফিস, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মার্কেট এবং দেশের অন্যতম বড় বাসস্টপেজ। সেই বাসস্টপেজকে ঘিরে দিনরাত জমজমাট থাকে স্থানটি। এ কারণে গাজীপুরের প্রাণকেন্দ্র বলা হয় চান্দনা চৌরাস্তাকে। কিন্তু দীর্ঘদিন পরিষ্কার না করায় ড্রেন ভরাট হয়ে ময়লা-পানি ড্রেন উপচে পড়ছে সড়কে। এর সঙ্গে সড়কের ময়লা-আবর্জনা ও কাদাপানিও মিশে অনবরত দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। বিষিয়ে উঠেছে পরিবেশ। নষ্ট হচ্ছে সড়ক। কিন্তু এ নিয়ে কোনো ভাবনা নেই সড়ক বিভাগের।

চৌরাস্তার চান্দনা স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী সিনথিয়া জামান মম জানান, এমনিতেই ১২ মাস সড়কে পানি জমে থাকে। বৃষ্টি হলে পুরো সর্বনাশ। নোংরা পানি মাড়িয়ে তাঁদের যাতায়াত করতে হয়। জামাকাপড় ভিজে যায়। এসব বিষাক্ত পানি গায়ে লাগলে চুলকায়, অনেক সময় ঘা হয়। সামনের ফুটপাতের ব্যবসায়ী বাচ্ছু মিয়া বলেন, ‘পানির জন্য পথচারীদের যাতায়াতে সমস্যা হয়। বৃষ্টি হলে সড়কের একটি বড় অংশ ডোবায় পরিণত হয়।’

রহমান শপিং মলের একজন ব্যবসায়ী জানান, সড়কের পানি নিয়ে তাঁদের ভোগান্তির শেষ নেই। অনবরত দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এলাকার সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। সড়কটি সড়ক ও জনপথ বিভাগেরই রক্ষণাবেক্ষণের কথা। অথচ তাদের চোখের সামনেই মাসের পর মাস পানি জমে সড়ক নষ্ট হচ্ছে, পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।

গাজীপুর জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি সুলতান আহমাদ সরকার বলেন, ‘সড়কের পানির জন্য চৌরাস্তার ব্যবসায়ী ও পথচারীদের দুর্ভোগের সীমা নেই। আবর্জনা, ড্রেনের পানি, মাছ ও কাঁচাবাজারের নোংরা পানি মিশে উৎকট দুর্গন্ধের সৃষ্টি হচ্ছে। বিষয়টি সিটি করপোরেশন, সড়ক বিভাগ ও প্রশাসনকে বহুবার জানানো হয়েছে। কিন্তু তারা কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।’

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান কাজল জানান, চান্দনা চৌরাস্তায় ড্রেন না থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এসব বিষয় দেখার দায়িত্ব গাজীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের।

গাজীপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী নাহিন রেজা বলেন, ‘চান্দনা গাজীপুর-চান্দনা চৌরাস্তা-ঢাকা সড়কটি উন্নয়নের জন্য বিআরটি প্রকল্পে চলে গেছে। প্রকল্পের মধ্যে আধুনিক ড্রেনও রয়েছে। কাজটি দ্রুত এগিয়ে চলছে। কাজ শেষ হলে চান্দনা চৌরাস্তায় জলাবদ্ধতা থাকবে না।’

সূত্র : কালের কন্ঠ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ