Skip to main content

বেসরকারি চাকুরিজীবীর লিগ্যাল নোটিশ 'পাঠাও'-এর বিরুদ্ধে

কান্তা আইচ রায় : বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানে চাকুরিরত একজন ব্যক্তি বাংলাদেশের জনপ্রিয় রাইড শেয়ারিং অ্যাপ পাঠাওকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন। আফজাল হোসেন নামের এই ব্যক্তির অভিযোগ ‘পাঠাও’ তার কাছ থেকে নির্ধারিত ভাড়ার বেশি আদায় করেছে এবং রাইড শেয়ারিং এই অ্যাপটি প্রায় সময়েই তার যাত্রীদের কাছ থেকে বেশি ভাড়া আদায় করে যার কোন যৌক্তিকতা নেই। লিগ্যাল নোটিশে মো: আফজাল হোসেনের উকিল বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টে এডভোকেট তানজীম আল ইসলাম উল্লেখ করেন, ২৩ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে বাংলামোটর থেকে গন্তব্যস্থল শেওড়াপাড়ার জন্য একটি পাঠাও রাইড ঠিক করেন আফজাল। সেখানে ভাড়া প্রদর্শন করা হয় ১০৫ টাকা। তবে গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর পর পাঠাও রাইডার (বাইক ড্রাইভার) ভাড়া দাবি করেন ১৭৩ টাকা। যেহেতু ভাড়া প্রদর্শিত হয়েছিল ১০৫ টাকা, সেহেতু আফজাল হোসেন এই টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানান। তবে তর্কাতর্কি পর তাকে ১৭৩ টাকা দিতে বাধ্য করা হয়। আফজাল হোসেন আরো অভিযোগ করেন,  ৪ নভেম্বর তারিখে রোকেয়া স্মরণী থেকে বীর উত্তম সি আর দত্ত রোডে আবারো পাঠাও বাইক সার্ভিস ব্যবহার করতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হয় তাকে। এইবার ভাড়া দেখানো হয় ১২১ টাকা। অথচ গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর পর সেই ভাড়া হয় যায় ১৪৯ টাকা। এ বিষয়ে চালককে ১২১ টাকা নিতে অনুরোধ করলে তিনি তা অস্বীকার করেন এবং নতুন ভাড়া দিতে বাধ্য করা হয় আফজাল হোসেনকে। তিনি লিগাল নোটিশে দাবি করেন, ভাড়ার এই হেরফের হবার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। আফজাল হোসেনের দাবি তার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। এছাড়াও লিগ্যাল নোটিশে আরো উল্লেখ করা হয় যে, পাঠাও তাদের ড্রাইভারদেরকে দিয়ে উপরোক্ত নিয়মে নিয়মিত পকেট কাটছে গ্রাহকদের। লিগ্যাল নোটিশটিতে পাঠাও সার্ভিসের ভাড়া কোন নিয়মের ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হচ্ছে তার স্পষ্ট ব্যাখা চাওয়া হয়েছে। সূত্র : সময় টিভি