প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মল্লযুদ্ধ এড়াতেই সংলাপ : জুনায়েদ সাকী

উল্লাস মূর্তজা : মল্লযুদ্ধ এড়াতে সরকার নমনীয় হয়েই সংলাপের আয়োজন করেছে। তবে আমি আশা করি জনগণের আশাআকাঙ্খার কথা উপলব্ধি করেই সরকার বিরাজমান সমস্যার সমাধান করবে। সরকার যদি তার অবস্থানে অনড় থাকে তাহলে সংলাপে কোনো ফল আসবে না।

বুধবার ‘যমুনা টেলিভিশন’এর ‘টক শো’তে এসব কথা বলেন, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জুনায়েদ সাকী।

তিনি আরও বলেন, ‘শুধু সংলাপ নয় যুক্তি তর্ক স্থাপনের জন্য একটা পরিবেশ তৈরি করতে হবে। আমরা একদিকে আন্দোলন চালিয়ে যাবো যতক্ষণ পর্যন্ত অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি হয়। অপরদিকে সংলাপের প্রক্রিয়াটাও এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।’

সংবিধান সংশোধন প্রসঙ্গে জুনায়েদ সাকী বলেন, ‘যেহেতু সংবিধান তৈরিই হয়েছে জনগণের কথা ভেবে। জনগণের ইচ্ছার বহিঃপ্রকাশ হচ্ছে সংবিধান। তাই জনগণের ইচ্ছার উপর গুরুত্ব দিয়ে সংবিধান সংশোধন বা রুপান্তর সম্ভব। আমাদের দাবি সংবিধনের পুরো কাঠামোর পরিবর্তন নয় শুধুমাত্র ক্ষমতা কাঠামোর যে জায়গাগুলো গণতান্ত্রিক করা দরকার সে জায়গাগুলোকে গণতান্ত্রিক করতে হবে। পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেয়া এটা অবশ্যই সংবিধান সম্মত।’

সরকার সংলাপের আয়োজন করলেও সরকার ও তাদের মন্ত্রিপরিষদ এখনও তাদের আগের অবস্থানেই আছে। ১৯৯৫ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগও আন্দোলন করেছিল। তবে তাদের আন্দোলনে জনসম্পৃক্তাতা ছিলো। আমরা যদি জনগণের চাপে সরকারকে উপলব্ধি করাতে পারি যে, আমাদের দাবিগুলো জনগণেরই দাবি শুধুমাত্র তাতেই সফলতা আসবে।

যতক্ষণ আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারকে উপলব্ধি করানো যাবে না ততক্ষণ সংলাপ থেকে কোনো ফলাফল আসবে না বলে মনে করেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জুনায়েদ সাকী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ